ওরে খোকা || ফরিদ সরকার

ওরে খোকা

Person
ফরিদ সরকার

খোকা, আজ তুই অনেক বড়!
এ বড়ত্ব কি যে কষ্টে এসছে
তা কি মনে করিস তুই?
কখনো মনে করবি না, একধম না!
তাহলে আমি হয়তো অপরাধী হবো,
কারণ?কারণ, তোর সন্তানরা
সেই কষ্ট করে না, যেটা তোর হয়েছে।
হয়তো এটাই বলতে চাইবি ,
আমিআমার সন্তানকে সব দেই;
আমাকে কেন দিল না?
শুন খোকা, অপরাধী করিস না প্লিজ!
আচ্ছা তুই সেদিন অনেক কষ্ট পেয়েছিলি?
ঐযে, যেদিন ১ টাকার লাল পয়সার জন্য
পাগলামো করছিলি কিন্তু দিতে পারিনি!
পাগলাটে খোকা কেন জেদ করছিলি?
স্কুলে কেন গেলি না সেদিন?
ঐদিনের পড়া থেকে পিছিয়ে যাবি,
অন্তত এটা ভাবতে পারতি!
কিন্তু লাল কয়েনটার কথা ভাবলি!!
কি হলো? খেলি কাঁচা কঞ্চির বারি!
হৃদয় আমার ক্ষত সেদিনের আঘাতে!
খোকা, এটা কি তুই জানিস?
জানি, জানি তো আমরা!
আমরা মা জাত;
জানি তোদের দুঃখের পঙক্তি।
শুন্ খোকা, এই খোকা শুন্
তুই কি আজো দুপুরে খাস না
তখন খেতে পারিস নাই অভাবে,
আজ কি খাস না তুই সুখে?
নাকি এখন টা তোর অভ্যাস?
আচ্ছা সকালের পান্তাভাত এখনো চলে?
খোকা, আজ সকালেও ভাবলাম ;
কত সকাল গেছে পান্তাভাতে,
আবার না খেয়ে, চাল না থাকায়।
তিন টাকার কেক কবে কোথায়?
ভাবতেও ভাবতে হতো!
জানিস? তোর বাবা, তোর বাবা;
কত রাত বালিস ভিজিয়েছে
পরম ভালোবাসাযুক্ত অশ্রুজলে?
সকালে দেখলাম মুড়ি দেওয়া চাদরে
কালো কসের মতো আফসা দাগ!
বুঝে নিলাম চোখের জল।
লাঙল জোয়াল রেখে খেতে বসলো,
আমি অধীর আগ্রহে জিজ্ঞেস করলাম,
অশ্রুসিক্ত নয়নে একবার আমার দিকে!
আবার খাবার প্লেটে,
কষ্টের পাহাড়কে উপেক্ষা করে বললেন
আমার ছেলেটার চাহিদা মেটাতে অপারগ,
আমি…আমি চকলেট পর্যন্ত দিতে পারিনা!
আর নাকি আমি নাকি বাবা!
সোনাল আমার দিকে তাকিয়ে থাকে,
অথচ এটাও বলতে সাহস পাই না
বাবা, আনতে ভুলে গেছি পরে আনবো
মিথ্যা তো বলতে পারি না,
কারণ ও তো ধোকায় পড়ে যাবে।
আমার কাছে পয়সা নাই তা আমার জানা।
মিথ্যা অভিনয় কি সেটা ও শিখবে।
সত্য ভুলে যাবে……
সত্য নামক অহংকার কি তা জানবে না।
এই খোকা খারাপ লাগছে বুঝি?
আরে খোকা,
এসব দুঃখের একেকটা তলা,
বহুতল পেরিয়েই দেখা মেলে;
সুখের ছাদনাতলা!
শুন খোকা বাড়ি আসবি কবে?
আচলে হাত মুছার দরুণ গন্ধটা আর নেই রে,
ভুলে গেছিস? আচল দিয়ে হাত মুছবি না?
তোর বাবা অনেক গুলা মাছ পেয়েছে কাল
শুটকি করেছি, শুটকি তোর ভালো লাগে!
খাওয়া শেষে হাতটা আমার আচলে মুছবি,

গন্ধটা অনেক দিন রয়ে যাবে…..

Tagged : / /