প্রেমাতাল পর্ব – ৩৯ || মৌরি মরিয়ম

এলার্ম বেজে উঠতেই তিতির হাত বাড়িয়ে সেটাকে বন্ধ করলো। রাতে ঘুম আসেনা, ইনসমনিয়া হয়ে গিয়েছে বোধহয়। ঘুমাতে ঘুমাতেই ২/৩ টা বেজে যায়। তাই এলার্ম দিয়ে রেখেছিল, যাতে ভোর ৫ টায় উঠতে কোন প্রব্লেম না হয়।
তিতির আড়মোড়া ভেঙে উঠে বসলো। বাইরে তাকিয়ে দেখলো এখনো আলো ফোটেনি। এম্নিতেই তো শীতের দিনে সকাল কে ভোর মনে হয় আর ভোরকে রাত। কম্বলটা সরিয়ে বিছানা থেকে নামলো। লাইট জ্বালিয়ে চুলগুলো হাতখোপা করতে করতে ঘরের দরজা খুলে বের হলো। রান্নাঘরে ঢুকে
পানি গরম দিয়ে তিতির একটা বাটিতে দুটো ডিম ভেঙে ভালভাবে ফেটে নিল। তারপর অন্য একটা বড় বাটিতে ময়দা, বেকিং সোডা, চিনি, লবণ একসঙ্গে চেলে নিল। এরপর তাতে ফাটানো ডিমের মিশ্রণটা ঢেলে দিল, সঙ্গে একটু বাটারমিল্ক দিয়ে পুরোটা একসাথে ব্লেন্ড করে নিল। এরপর এতে লাল রঙ (ফুড কালার) এবং ভ্যানিলা এসেন্স দিয়ে ভালভাবে মিশিয়ে নিল। তারপর গতকাল কিনে আনা হার্টশেপ মাঝারি সাইজের কেক প্যানটায় মিশ্রণটি ঢেলে ছড়িয়ে দিল। ৩৫০ ডিগ্রি প্রি হিটেড ওভেনে ২০ মিনিট বেক করতে দিয়ে দিল। চুলা জ্বালিয়ে গোসলের পানি গরম দিল, গোসল না করলে শীত লাগে বেশি। রান্নাঘরটা যতটুকু নোংরা হয়েছিল পরিস্কার করলো, যেকটা জিনিস মেখেছিল ধুয়ে রাখলো। কেক ডেকোরেশনের জন্য ফ্রেশ ক্রিম, চিজ, বাটার, চিনি, ভ্যানিলা ইত্যাদি ফ্রিজ থেকে বের করে পরিমাণমত একটা বাটিতে নিয়ে আবার ফ্রিজে রেখে দিল। বাটিটা ওর ঘরে রেখে আবার রান্নাঘরে ফিরে এল। রান্নাঘরের লাইট বন্ধ করে চোরের মত অপেক্ষা করতে লাগলো কেকটা বেক হবার জন্য। আর আল্লাহ আল্লাহ করতে লাগলো যাতে মা এত তাড়াতাড়ি না ওঠে। যদিও মা ভোরে উঠে নামাজ পড়লেও ৬ টার আগে নিজের ঘর থেকে বের হন না। তবু ভয় ভয় করতে লাগলো। কিছুক্ষণ পর পায়ের আওয়াজ পেতেই বুক কেপে উঠলো তিতিরের। মা? যদি মা হয় কি বলবে ও এখন? ফ্ল্যাটের মেইন দরজা খোলার শব্দ পেয়ে তিতির বুঝলো মা না, বাবা নামাজ পড়তে যাচ্ছে। ২০ মিনিট পর ওভেন থেকে কেকটা নামিয়ে কেকের মাঝখানে টুথপিক ঢুকিয়ে দেখলো বেক হয়েছে কিনা। হয়নি, আবার দিল ৫ মিনিটের জন্য। ৫ মিনিট পর একইভাবে চেক করে দেখলো বেক হয়ে গিয়েছে। ওভেন বন্ধ করে কেকটা নামিয়ে নিল। তারপর কেকটা হাতে নিয়ে নিজের ঘরে ঢুকলো। দরজা লাগিয়ে হাফ ছেড়ে বাঁচলো। যাক মা ওঠার আগে সব করতে পেরেছে। ফ্যান ছেড়ে কেকটা ঠান্ডা হতে দিয়ে গরম পানি নিয়ে গোসলে ঢুকলো তিতির।
গোসল করে বেড়িয়ে মাথায় টাওয়াল পেঁচিয়ে তিতির কেকটা ডেকোরেশন করতে বসলো। কেকের মাঝ থেকে কেটে তিনটা ভাগ করে নিল। একটি বাটিতে ফ্রেশ ক্রিম, চিজ, বাটার, চিনি, ভ্যানিলা দিয়ে বিট করে নিল। এরপর মিশ্রণটি কেকের নিচের অংশে খানিকটা দিয়ে কেকের আরেকটা অংশ দিয়ে চাপা দিল স্যান্ডউইচের মতো করে। তারপর আবার একইভাবে ক্রিমের মিশ্রণটি ঢেলে কেকের আরেকটা অংশ দিল। এবার কেকের উপরে চকলেট চিপস ও সুইট বল দিয়ে হালকা ডেকোরেশন করলো। ব্যাস রেড ভেলভেট চিজ কেক রেডি। কেকটাকে যত্ন করে বক্সে ঢুকিয়ে সরাসরি ব্যাগে চালান করে দিল তিতির।
আলমারি খুলে মুগ্ধর দেয়া চিকন সিলভার পাড়ের গাঢ় নীল শাড়িটা বের করলো তিতির। শাড়িটা শুধু একবারই পড়েছিল। শাড়িটা ওর খুব পছন্দের যাতে নষ্ট না হয়ে যায় তাই বেশি পড়ত না ও। শাড়িটা পড়ার সময় কুচি দিতে দিতে আয়নায় একবার তাকালো। বাহ বেশ লাগছে তো! শাড়ি পড়া শেষ করে কানে সিলভার একটা ঝুমকা পড়লো। গাঢ় করে কাজলে চোখ আঁকলো। তারপর কপালে বড় একটা নীল টিপ পড়লো। হাতে কয়েকটা চুড়ি পড়লো। চুলগুলো খোলাই রাখলো। সাজ কমপ্লিট! এবার আয়নায় নিজেকে ঘুরে ঘুরে দেখলো, সব ঠিকঠাক আছে।
ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলো সাড়ে ৭ টা বাজে। এত তাড়াতাড়ি বেড়িয়ে কি করবে! আধাঘন্টা শুয়ে রইলো। ৮ টা বাজতেই ঘর থেকে বের হয়ে ডাইনিং এ গেল তিতির। টেবিলে বাবা, মা, ভাবী। ভাল হয়েছে ভাইয়া নেই, ও বোধহয় অফিসের জন্য বেড়িয়ে গিয়েছে, ৮ টায়ই বের হয় প্রতিদিন। ওকে দেখেই মা বলল,
-“বাহ, সুন্দর লাগছে তো তোকে। লিপস্টিক পড়িসনি কেন?”
-“লিপস্টিক ভাল্লাগেনা মা।”
-“তুই না একদম কেমন জানি!”
বাবা বলল,
-“কি দরকার? আমার মেয়ে তো এমনিতেই সুন্দর।”
তিতির খাওয়া শুরু করলো। ভাবী বলল,
-“সত্যি তিতির, তোমাকে কিন্তু সত্যি অনেক সুন্দর লাগছে।”
মা বলল,
-“কি রে? আজ এত সাজগোজ? আবার শাড়িও পড়েছিস দেখছি।”
-“সব ভুলে যাও নাকি? তোমাকে বলেছিলাম না সেদিন আজ অফিসের পিকনিক। সব কলিগরা শাড়ি পড়বে, আমাকেও ধরলো। কি আর করা, পড়লাম।”
-“মাঝে মাঝে শাড়ি পড়বি, ভাল লাগে দেখতে।”
তিতির হেসে বলল,
-“আচ্ছা।”
নাস্তাটা শেষ করেই তিতির বেড়িয়ে পড়লো। ব্যাগটা খুব সাবধানে নিচ্ছিল ও, যাতে কেকটা নষ্ট না হয়, যদিও কিছু হবে না কারন কেকটা বক্সেই আছে তবু সাবধানের মার নেই। সুহাসের সাথে এঙ্গেজমেন্ট হওয়ার ৪/৫ মাস হলো! এঙ্গেজমেন্টের পর থেকে মা কত ভাল ব্যাবহার করে! আবার আগের মত। আসলে বাবা-মায়েরা সবসময় সন্তানের ভাল চান। কিন্তু ভাল চাইতে গিয়েই অনেক সময় কষ্ট দিয়ে বসে, বুঝে উঠতে পারেনা সন্তানের আসল ভালটা কোথায়! জেনারেশন গ্যাপের কারনেই এটা হয়। কিন্তু সন্তানরাও তো বাবা-মাকে তার চেয়েও বেশি কষ্ট দিয়ে ফেলে মাঝে মাঝে, বুঝে দিক আর না বুঝে দিক তিতিরও কম কষ্ট দেয়নি বাবা-মা কে। একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে হাত থেকে আংটিটা খুলে টিস্যুতে পেঁচিয়ে ব্যাগের পকেটে রাখলো তিতির। রাতে বাসায় ফেরার সময় আবার পড়তে হবে।

ঘুম ভাঙার পরও শুয়ে রইলো মুগ্ধ তিতির যদি আসে! যদি আগের মত এসে ওর ঘুম ভাঙায়! আজকের দিনটা কি ও না এসে পারবে? অবশ্য নাও আসতে পারে, এখন তো ওর এঙ্গেজমেন্ট হয়ে গিয়েছে। এখন তো চাইলেও এত সহজে আসতে পারবে না। যদি তিতির আসে সেই চিন্তা করে অফিস থেকে ছুটি নিয়েছে মুগ্ধ। আসলে ছুটি টা কাজে লাগবে আর না আসলেও রেস্ট নেয়া যাবে একটা দিন। কিন্তু মনে হচ্ছে আসবে। রাতে তিতির উইশ করেনি। যেহেতু উইশ করেনি, নিশ্চই কোন সারপ্রাইজ আছে। আবার নিজের মনকে সামলে নিল মুগ্ধ, এত বেশি ভাবলে পরে যদি না আসে তো খুব খারাপ লাগবে।
ওদিকে তিতির মুগ্ধর অফিসের সামনে গিয়ে অপেক্ষা করতে লাগলো। মুগ্ধ আসছে না। মুগ্ধ কি তাহলে আজ ছুটি নিয়েছে! মুগ্ধর বাসায় কি যাবে ও? না না যাওয়াটা ঠিক হবে না। মুগ্ধর মা ব্যাপারটা ভাল চোখে নাও দেখতে পারে। কি করবে! অফিস টাইম ১০ টা কিন্তু মুগ্ধ সাধারণত ৯:৩০-৯:৪৫ এর মধ্যে অফিসে আসে। ৯ টা থেকে অপেক্ষা করছে তিতির, যখন ১০:৩০ বেজে গেল তখন তিতির ফোন করলো মুগ্ধকে।
তিতিরের কল পেয়ে মুগ্ধর বুকের ভেতরটা নেচে উঠলো। ফোনটা রিসিভ করতেই ওপাশ থেকে সেই মিষ্টি কন্ঠ ভেসে এল,
-“হ্যালো..”
-“হ্যালো, গুড মর্নিং।”
-“ব্যাড মর্নিং, তুমি আজ অফিসে যাওনি?”
-“না।”
-“কেন?”
-“ছুটি নিয়েছি।”
-“কেন? কোন কাজ আছে?”
-“নাহ তো। অফিস করতে করতে টায়ার্ড হয়ে গিয়েছি।”
-“ওহ। তুমি কি ফ্রি আছো?”
-“হ্যাঁ, দেখা করবে?”
-“হ্যাঁ, চাচ্ছিলাম।”
-“কোথায় আসব বলো? আর কখন?”
-“এখনি এসো.. বনানী ব্রিজ।”
-“ওয়েট ওয়েট, বাই এনি চান্স তুমি কি বনানীতে? অফিসে গিয়েছিলে?”
-“অফিসে না, অফিসের সামনে।”
-“শিট! সরি।”
-“তুমি কেন সরি বলছো? আমি তো তোমাকে জানিয়ে আসিনি। তোমার তো দোষ নেই।”
-“আচ্ছা, শোনো আমি ১০-১৫ মিনিটের মধ্যে আসছি। তুমি ওদিকে একটা রেস্টুরেন্টে ঢুকে বসো।”
-“আমি ব্রিজের দিকে যাচ্ছি। তুমি ওখানে এসে ফোন দিও। আমি কোথায় থাকি ঠিক নেই।”
-“আচ্ছা।”
মুগ্ধ লাফ দিয়ে বিছানা থেকে নেমে ৫ মিনিটের মধ্যে ফ্রেশ হয়ে বেড়িয়ে আলমারি খুলে একটা শার্ট হাতে নিতেই খেয়াল হলো তিতির অফিসের সামনে গিয়েছিল তার মানে সারপ্রাইজ দিতে চেয়েছিল, নিশ্চই শাড়ি পড়েছে! পাঞ্জাবি পড়াটা আজ ফরজ। সামনেই তিনটা পাঞ্জাবি ইস্ত্রি করা আছে। সাদা, লেমন, নীল। কোনটা পড়বে? আচ্ছা তিতির কি রঙের শাড়ি পড়েছে? কে জানে। যাই হোক, তিতিরের পছন্দের রঙ নীল। নীল পাঞ্জাবিই পড়া উচিৎ, আর এই নীল পাঞ্জাবিটা অনেক সুন্দরও। হাতের কাছে যে জিন্স পেল সেটাই পড়লো। পাঞ্জাবিটাও পড়লো, তারপর সাদা একটা কোটি পড়ে বোতাম লাগাতে লাগাতেই ঘর থেকে বের হলো। মা জিজ্ঞেস করলো,
-“কিরে মুগ্ধ, কোথায় যাচ্ছিস?”
-“ফ্রেন্ডরা এসেছে মা।”
-“ওহ, নাস্তাটাও করে যাবিনা?”
-“না, মা আমি খেয়ে নেব। ওদেরকে তো ট্রিট দিতেই হবে। তখন তো খাবই। তুমি খেয়েছো?”
-“হ্যা, স্নিগ্ধ ভার্সিটিতে যাওয়ার সময় নাস্তা করে গিয়েছে, ওর সাথে আমিও খেয়ে নিয়েছি।”
-“আচ্ছা মা, আসছি তাহলে।”
-“দাড়া। এত তাড়া কিসের?”
একথা বলে মা এগিয়ে গেল। মুগ্ধকে টেনে নিচু করে কপালে একটা চুমু দিয়ে বলল,
-“আমার সোনার ছেলের জীবনে এই দিনটা বারবার আসুক, হ্যাপি বার্থডে।”
মুগ্ধ মাকে জড়িয়ে ধরে বলল,
-“লাভ ইউ মা।”
-“হয়েছে এবার যা।”
-“হুম, শোনো রাত্রে মজা করে কিছু রান্না করো কিন্তু। পিউকেও আসতে বলো। একা জামাইয়ের হাত ধরে যেন চলে না আসে আবার, শশুরবাড়ির সবাইকে নিয়ে আসতে বলবে।”
-“আচ্ছা।”
-“আর প্লিজ অন্য কাউকেই বলবে না। আমি বার্থডে পার্টি করছিনা যে আত্মীয়স্বজন দিয়ে ঘর ভরে ফেলবে। আমার ভাল লাগে না।”
-“তোর ফুপীকেও বলবো না? পাশাপাশি বাড়িতে থেকে না বলে পারে কেউ?”
-“ফুপীকে বললে ইকরা আসবে।”
-“হ্যা, তাতে সমস্যা কি? ইকরাকে তুই সবসময় এত ভুল বুঝিস কেন বলতো?”
-“মা মা প্লিজ ওর কথা বলোনা, আমি গেলাম। সন্ধ্যার পর ফিরবো, এসে যদি ইকরাকে দেখি বাসা থেকে বের হয়ে যাব বলে দিলাম, টাটা।”
মা আর কথা বলল না। মুগ্ধ যেতে যেতে বলল,
-“পারলে ছানার মিষ্টি বানিও।”
১৫ মিনিটের একটু বেশি সময়ই লাগলো মুগ্ধর। ব্রিজের সামনে গাড়ি থামিয়ে নামলো। তিতিরকে কোথাও দেখতে পাচ্ছে না। ফোন দিচ্ছে কিন্তু তিতির ধরছে না। আবার ডায়াল করলো। হঠাৎ একটা বাচ্চা ছেলে(টোকাই) এসে মুগ্ধর সামনে ২/৩ টা গোলাপ ধরলো। বলল,
-“হেপি বাড্ডে।”
মুগ্ধ হাসলো, তিতিরের কাজ। কিন্তু গেলটা কোথায় মেয়েটা। এরপর আরেকটা বাচ্চা ফুলহাতে এল। একই ভাবে ওকে গোলাপ দিল। সেটা নিতে না নিতেই আরেকটা বাচ্চা এল, ফুল দিল। সেই ফুল নিতে না নিতেই আরো দুটো বাচ্চা এসে ফুল দিল। সবাই ফুল দিয়ে দিয়ে বলছে, “হেপি বাড্ডে।” মুগ্ধ হাসতে হাসতে সেই ফুল নিচ্ছে। দূরে দাঁড়িয়ে সেই মনোমুগ্ধকর হাসি দেখছে তিতির। মুগ্ধ আশেপাশে তাকিয়ে তিতিরকে খুঁজছে। কিন্তু বাচ্চাগুলোর হইচইয়ের কারনে অন্য কোন দিকে তাকাবার জো নেই। এরা একে একে আসছে আর ফুল দিয়ে উইশ করছে।
সবার ফুল দেয়া শেষ হতেই তিতির মিষ্টি একটা হাসি মুখে নিয়ে মুগ্ধর সামনে গেল। তিতিরকে দেখে মুগ্ধ হা হয়ে গেল। মনে হচ্ছে কোন স্বর্গচূড়া থেকে দেবী নেমে এসেছে। তিতিরও নীল পড়েছে, কিভাবে মিলে গেল! ফুল দিয়ে সব বাচ্চারা হইহই করতে করতে চলে গেল। ওরা যখন যাচ্ছিল তখন মুগ্ধ খেয়াল করলো সবার হাতে একটা করে বিরিয়ানির প্যাকেট। তিতির মুগ্ধকে একটা গোলাপ দিয়ে বলল,
-“হ্যাপি বার্থডে, এটা ৩৪ তম ফুল।”
মুগ্ধ হেসে ফুলটা নিল। বলল,
-“ওহ, বাচ্চাগুলো সবাই মিলে কি আমাকে ৩৩ টা ফুল দিয়েছে?”
-“হ্যা।”
-“হায়রে! বুড়া হয়ে গেলাম। কেন তুমি আমাকে মনে করিয়ে দিলে যে এটা আমার ৩৪ তম বার্থডে?”
-“চিন্তা করোনা তুমি স্টিল অনেক ইয়াং আর হ্যান্ডসাম আছো।”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“বাই দ্যা ওয়ে, ওদের হাতে বিরিয়ানির প্যাকেট দেখলাম। তুমি কিনে দিয়েছো?”
-“হ্যা।”
-“আমি আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে! আমি খাওয়াতাম।”
-“তোমার ইচ্ছে হলে তুমি খাওয়াও গিয়ে, আমি ধরে রেখেছি নাকি? পথশিশুদের তো অভাব নেই। আমি অনেক কষ্টে ওদের জোগাড় করেছি, আমি প্ল্যান করেছি, আমি খাইয়েছি, তাতে তোমার কি?”
-“তাও ঠিক।”
-“থ্যাংকস ফর দ্যা সারপ্রাইজ।”
-“আমার সারপ্রাইজ তুমি নষ্ট করেছো আজ অফিসে না গিয়ে।”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“আচ্ছা, সরি।”
-“কিন্তু তোমাকে নীল পাঞ্জাবিতে দেখে আমিও সারপ্রাইজড হয়েছি।”
-“ওটা তো আমিও হয়েছি। তুমি নীল পড়ে আসেছো ভাবিওনি।”
তিতির হাসলো। মুগ্ধ বলল,
-“কিন্তু এখানে দাঁড়িয়ে থাকবে? চলো কোথাও যাওয়া যাক।”
গাড়িতে উঠেই মুগ্ধ বলল,
-“কোথায় যাবে?”
-“তুমি কতক্ষণ টাইম দিতে পারবে? আফটার অল টুডে ইউ আর দ্যা বার্থডে বয়। আজ সবাইকে টাইম দিতে হবে তোমার।”
-“রাতে বাসায় টাইম দিতে হবে। সারাদিন, সারা সন্ধ্যা ফ্রি।”
-“তাহলে পদ্মার পাড়ে যাব। নৌকায় চড়বো, পদ্মার ইলিশ আর শুকনো মরিচ ভাজা দিয়ে ভাত খাব।”
-“ইটস আ গ্রেট আইডিয়া কিন্তু নৌকায় চড়বে? ওদিকের নদীতে অনেক গ্যাঞ্জাম। ভাল লাগবে কি?”
-“যেদিকে গ্যাঞ্জাম নেই সেদিকে নিয়ে যাবে।”
-“আচ্ছা। কিন্তু তার আগে পেটে কিছু দিতে হবে। কিচ্ছু খাইনি। ঘুম থেকে উঠেই আসলাম। তুমি ব্রেকফাস্ট করে বেড়িয়েছো তো?”
-“হ্যা।”
একটা রেস্টুরেন্টের সামনে গাড়ি থামিয়ে মুগ্ধ বলল,
-“ভাল করেছো। কিন্তু আমার সাথে আবার খেতে হবে চলো।”
-“না না। আমি খাব না, আর তুমি খাবার নিয়ে গাড়িতে চলে আসো। রেস্টুরেন্টে যেতে ইচ্ছে করছে না।”
-“আহ, আচ্ছা ঠিকাছে।”
মুগ্ধ দুজনের জন্যই খাবার পার্সেল করে নিল। তারপর গাড়িতে উঠেই আরেকটা সারপ্রাইজ পেল। ওর প্রিয় রেড ভেলভেট চিজ কেক নিয়ে বসে আছে তিতির। মুগ্ধ অবাক হয়ে বলল,
-“রেড ভেলভেট চিজ কেক! ওহ মাই গড। কোথায় পেয়েছো? বানিয়েছো নাকি?”
-“হ্যা।”
-“মানে কি কিভাবে বানিয়েছো?”
-“যেভাবে বানায় সেভাবেই বানিয়েছি।”
-“সেটা তো বুঝলাম কিন্তু বাসায় কেউ দেখেনি? কি বলেছো?”
-“অনেক ভোরে সবাই ঘুম থেকে ওঠার আগে বানিয়েছি।”
-“সত্যি তিতির, এরকম সিচুয়েশনে আমার খুব বেশি আফসোস লাগে তোমাকে সারাজীবনের জন্য পাবনা বলে। তুমি সবার থেকে আলাদা তিতির। তুমি অনেক লক্ষী, অনেক পাগলী। এই শীতের মধ্যে ভোর রাতে উঠে কয়টা মেয়ে পারে এসব করতে? পাগল না হলে পারা যায় না।”
খুশি মুগ্ধর চোখমুখে ঝিলিক দিচ্ছিল। তিতির বলল,
-“ভালবাসলেই পারা যায়। এখন কি একটু খেয়ে দেখবে কেমন হয়েছে?”
-“হ্যা অবশ্যই।”
হঠাৎ মনে পড়তেই তিতির বলে উঠলো,
-“হায় হায়। আমি তো ছুরি আনিনি। এখন কি হবে? কাটবে কিভাবে?”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“নো প্রব্লেম। তুমি আছো না?”
একথা বলেই মুগ্ধ তিতিরের হাতটা টেনে নিয়ে তিতিরের আঙুল দিয়ে কেকটা কাটলো। যদিও কেকটা ছড়িয়ে গেল। কাটার বদলে ভাঙা হলো। তবুও ব্যাপারটা তিতিরের এত ভাল লাগলো যা বলার মত না। তিতির মুগ্ধকে কেক খাইয়ে দিল। মুগ্ধও তিতিরকে খাইয়ে দিল। মুগ্ধ কেক খেতে খেতে বলল,
-“উম্মম্মম্মম্মম্ম… বেস্ট রেড ভেলভেট চিজ কেক এভার।”
একবারেই মুগ্ধ অর্ধেকটা কেক খেয়ে ফেলল। তিতিরের তৃপ্তির নিঃশ্বাস ফেলল। ও জানতো, মুগ্ধ এমনই করবে। এই কেকটা মুগ্ধর খুব প্রিয়। কোন রেস্টুরেন্টে খেতে গেলে পেস্ট্রি থাকলেই ও খুঁজত রেড ভেলভেট চিজ কেক আছে কিনা। ভোর রাতে উঠে চোরের মত আতঙ্ক নিয়ে কেক বানানোটা সার্থক।
দুপুরবেলা মাওয়া ঘাটে গিয়ে একটা স্পিডবোট রিজার্ভ করলো মুগ্ধ। উঠতে উঠতে বলল,
-“তিতির, আমরা ওপাড়ে গিয়ে ভাত খাব। এপাড়ে গ্যাঞ্জাম বেশি।”
-“আচ্ছা।”
স্পীডবোট চলতে শুরু করলে তিতির অকারনেই বারবার হাসছিল। ভাল লাগছিল মুগ্ধর। ২০ মিনিটের মধ্যে পৌঁছে গেল ওপাড়ে। ওপাড়ে গিয়েই ইলিশ মাছ ভাজা, শুকনো মরিচ ভাজা আর ভর্তা দিয়ে ভাত খেল ওরা। তারপর একটা ভ্যান ভাড়া করে গ্রামের ভেতর দিয়ে কিছুক্ষণ ঘুরলো। তারপর কিছুক্ষণ নৌকায়ও ঘুরলো। অনেক অনেক গল্প করলো ওরা কিন্তু খুব স্বাভাবিক সব গল্প। যেন ওদের সম্পর্ক স্বাভাবিক। যেন অনেকদিন পর দেখা হয়নি ওদের, প্রায়ই দেখা হয়।
ওপাড় থেকে ফিরতে ফিরতেই সন্ধ্যা হয়ে গেল। এখন তো ৫ টার সময়ই সন্ধ্যা হয়ে যায়। গাড়ি স্টার্ট দিয়ে কিছুদূর যেতেই জ্যামে পড়লো। মুগ্ধ বলল,
-“তোমার বাসায় ফিরতে হবে কখন?”
-“দেরী হলেও প্রব্লেম নেই। বাসায় বলেছি আজ অফিসের পিকনিক।”
-“আচ্ছা। কি দুষ্টু মেয়ে রে বাবা।
তিতির হাসলো। মুগ্ধ বলল,
-“কিন্তু এই জ্যাম ছাড়তে তো মনে হচ্ছে অনেক দেরী লাগবে।”
আরো কিছুক্ষণ পর মুগ্ধ গাড়ি ঘুড়িয়ে গ্রামের ভেতরের রাস্তা দিয়ে যেতে লাগলো।
-“গ্রামের রাস্তা দিয়ে যাচ্ছো কেন?”
-“মেইনরোডের যে অবস্থা দেখলাম রাত ১০/১১ টায়ও পৌঁছতে পারবো না। ৮/৯ টার দিকে আবার পিউরা আসবে। আমি বাসায় না থাকলে কেমন দেখায় না?”
-“হ্যা তা তো ঠিকই। কিন্তু তুমি এসব রাস্তা চেন তো?”
-“হ্যা, আগে সাইক্লিং করতাম না? এখানে অসংখ্যবার এসেছি।”
-“ও।”
এরপর হঠাৎ মনে পড়ায় মুগ্ধ বলল,
-“ওহো ভাল কথা তিতির, খুব ভাল একটা খবর আছে। আমি ভুলে গিয়েছিলাম তোমাকে বলতে।”
-“কি কথা?”
-“পিউয়ের বেবি হবে।”
-“ওয়াও। এই কথাটা তুমি আজ আমাকে বলছ?”
-“আরে আমাকে বলেনি তো এতদিন। পিউ অনেকদিন আসেনা তাই মাকে জিজ্ঞেস করলাম পিউ আসেনা কেন? তখন মা বলল পিউ অসুস্থ, চিন্তা করো তখনো বলছিল না। পরে আমি তো টেনশানে পড়ে গিয়েছিলাম যে কি হলো আবার। তখন মা আমার অস্থিরতা দেখে বলল।”
তিতির বলল,
-“এসব কথা কাউকে বলতে হয়না। যত কম মানুষ জানবে তত ভাল।”
-“বাহ রে তা বলে আমিও জানবো না?”
-“পিউ বোধহয় লজ্জায় বলতে পারেনি।”
-“আরে বাবা লজ্জা কিসের? এটা তো ন্যাচারাল ব্যাপার।”
-“তুমি বুঝবে না।”
-“ইশ এমনভাবে বলছো যেন তোমার কতবার বেবি হয়েছে!”
তিতিরের মন খারাপ হয়ে গেল। সেদিন যদি ওদের বিয়ে হতো। প্ল্যানমতো আজ তিতিরেরও বেবি হতো। মুগ্ধ ব্যাপারটা খেয়াল করলো। ধ্যাত, কি বলতে কি বললো! মজা করতে গিয়ে কষ্ট দিয়ে ফেলল। এখন সরি বলা মানে খুঁচিয়ে ঘা বাড়ানো। অন্যভাবে তিতিরের মনটা ভাল করে দিতে হবে। কি বলা যায় ভাবতে লাগলো।
তিতির অন্যমনস্ক হয়ে বাইরের দিকে তাকিয়ে ছিল। মুগ্ধ বলল,
-“আজ ড্রাইভ করতে ভাল লাগছে না।”
-“কেন?”
-“তোমাকে দেখতে পারছি না যে তাই।”
তিতির হেসে বলল,
-“সারাদিন তো দেখলে!”
-“আজ তোমাকে এতই সুন্দর লাগছে যে সারাদিন দেখেও আশ মেটেনি।”
-“সিলেটের সেই রাতের থেকেও বেশি সুন্দর?”
মুগ্ধ আচমকা ব্রেক করলো। সিটবেল্ট বেধে না রাখলে এক্ষুনি মাথায় ব্যাথা পেত তিতির। মুগ্ধ গাড়ি থামিয়ে অবাক চোখে তাকিয়ে রইলো তিতিরের দিকে। তিতির লজ্জায় ব্লাশ করছিল, খুব ভালও লাগছে বোধহয় ওর। মেয়েরা বোধহয় এমনই, প্রিয় মানুষের এটেনশান পেলে খুশিতে ফুটতে থাকে। তিতির বলল,
-“এখানে গাড়ি থামালে কেন? কেমন জঙ্গল জঙ্গল! আমার ভয় করছে।”
মুগ্ধ বলল,
-“জঙ্গল না এটা একটা গ্রাম। আশেপাশে বাড়িঘর নেই এই যা।”
-“যাই হোক, একটু ভুতুরে টাইপ। চালাও তো। গাড়ি চললে ভয় করে না। না চললে মনে হয় এক্ষুনি গ্লাস ভেঙে ভুত ঢুকে পড়বে।”
-“তুমি মোটেও ভয় পাচ্ছো না তিতির, ভাব ধরো না। তুমি ভয় পাবার মত মেয়ে না। আর যা খুশি তা হোক কিন্তু আগে বলো, তুমি এটা কি বললে? কি মনে করালে?”
-“কই কিছু না তো।”
-“তুমি আসলে বুচ্ছো খুব দুষ্টু একটা মেয়ে। দেখলে মনে হয় ভাজা মাছ উলটে খেতে জানো না। আসলে তলে তলে বহুত…”
-“কি? থামলে কেন? বলো..”
-“বলছি।”
একথা বলেই মুগ্ধ গাড়ির লাইটটা বন্ধ করে তিতিরের কোমর জড়িয়ে কাছে টেনে আনলো। ঘুটঘুটে অন্ধকার, কিচ্ছু দেখা যাচ্ছে না। তিতির নিচু স্বরে বলল,
-“লাইট জ্বালাও ভয় করছে।”
অন্ধকারের যে নিজস্ব একটা আলো আছে সেই আলোতেই মুগ্ধ দেখলো তিতির তাকিয়ে আছে ওর চোখের দিকে। মুগ্ধর দৃষ্টিও তিতিরের চোখে। দুজন দুজনের খুব কাছে, একজনের নিঃশ্বাস আরেকজনের নিঃশ্বাসের সাথে মিশে যাচ্ছে। তিতির মনে মনে প্রার্থনা করতে লাগলো, মুগ্ধ যেন এটুকু কাছে এসে সরে না যায়। ওর বিবেক যেন এতটা নিষ্ঠুর আজ না হয়। এতদিনের অপূর্ণতা যেন একবার হলেও ভরিয়ে দেয় ও। মুগ্ধর দৃষ্টিটা চোখ থেকে নেমে তিতিরের ঠোঁটে চলে গেল। তিতির চোখ বন্ধ করলো। মুগ্ধ তিতিরের ঠোঁটে ঠোঁট ছোঁয়ালো। তিতির ভেসে গেল।
এলিফ্যান্ট রোড দিয়ে বের হয়ে ধানমন্ডি ৩ নাম্বার দিয়ে ঢুকলো মুগ্ধ। তিতির বলল,
-“আমাকে ৮ নাম্বারে নামিয়ে দিও। ওখান থেকে রিক্সা নিয়ে নেব।”
-“আচ্ছা।”
৮ নাম্বারে গিয়ে গাড়ি থামালো মুগ্ধ। তিতির বলল,
-“আজকে তোমার বার্থডে সেলিব্রেট করার জন্যই আমি দেখা করেছি। কাল থেকে আবার সবকিছু আগের মত হয়ে যাবে।”
মুগ্ধ একটা প্লাস্টিক হাসি দিয়ে বলল,
-“হুম, আমি জানি। কিন্তু আর এভাবে এসোনা তিতির। এবছরই তো তোমার বিয়ে! তারপর এরকম হুটহাট দেখা আর হবে না আমাদের। এখন থেকে অভ্যাস করাই ভাল। তুমি এখন একজনের বাগদত্তা। তবু কাছে এসেছ যখন মনে হয়েছে তুমি আমারই। তাই কাছে না আসাটাই ভাল।”
তিতিরের চোখে পানি এল। কিন্তু মুগ্ধর সামনে ও ভুলেও কাঁদবে না, আজকের দিনে তো নয়ই। হেসে বলল,
-“আচ্ছা ঠিকাছে। ভাল থেকো।”
-“হুম, টেক কেয়ার অফ ইওরসেল্ফ। চলো তোমাকে রিক্সা ঠিক করে দিচ্ছি।”
তিতির হাত ধরে থামালো মুগ্ধকে। বলল,
-“দাঁড়াও, একটু পর।”
-“কি?”
তিতির হেসে মুগ্ধর গালে একটা চুমু দিয়ে বলল,
-“হ্যাপি বার্থডে এগেইন।”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“আই লাভ ইউ মাই রসগোল্লা।”
তিতির একটু মোটা হবার পর থেকে মুগ্ধ মাঝে মাঝে ওকে রসগোল্লা বলে ডাকতো। অনেকদিন পর ডাকটা আবার শুনে ভাল লাগলো তিতিরের। হেসে বলল,
-“আই লাভ ইউ টু।”

To be continued.

Tagged : / /

প্রেমাতাল পর্ব – ৩৮ || মৌরি মরিয়ম

মুগ্ধ বাথরুম থেকে বের হয়ে নতুন কেনা টাওয়াল টা নিয়ে সোজা বারান্দায় চলে গেল। ডিভানে বসে শার্টটা খুলে ছুড়ে ফেলল ফ্লোরে। টাওয়াল টা পড়ে প্যান্ট টা খুলে সেটাও ছুড়ে ফেলল। রাগে নিজের চুল নিজেই ছিঁড়লো। তান্নাকে পেলে এখন খুন করতো ও। শুধুমাত্র তান্নার জন্য আজ নিজের তিতিরকে আদর করতেও হাত কাঁপে মুগ্ধর। চিৎকার করে কাঁদতে ইচ্ছে করছে। কিন্তু ছেলে হয়ে জন্মে যে পাপ করে ফেলেছে, আল্লাহ কাঁদার ক্ষমতাটা দিয়ে পৃথিবীতে পাঠাননি।
অনেকক্ষণ পার হয়ে গেল। তিতিরের গোসল এখনো হয়নি? ওকে ওই অবস্থায় ওভাবে ফেলে আসায় কি কষ্ট পেয়েছে? ওর ওই অবাক দৃষ্টি তো অন্তত তাই বলছিল। ও কি এখন কাঁদছে?
মুগ্ধ বাথরুমের দরজায় নক করলো,
-“তিতির? আর কতক্ষণ? আজ এত টাইম লাগছে যে? পরে ঠান্ডা লেগে যাবে তো।”
তিতির চোখ মুছে ফ্লোর থেকে উঠে দাঁড়ালো। বলল,
-“আসছি।”
মুগ্ধ তিতিরের গলা শুনেই বুঝলো ও কেঁদেছে। তখন ওর আরো বেশি অসহায় লাগতে শুরু করলো। কি করবে ও? ওর হাতে কি সত্যি কিছু আছে?
তিতির গোসল শেষ করে খেয়াল করলো জামাকাপড় ভেতরে আনেনি। রিসোর্টের টাওয়ালটা গায়ে পেঁচিয়ে দরজার আড়ালে দাঁড়িয়ে ঘরে উকি দিল। কিন্তু মুগ্ধকে দেখতে পেল না। মুগ্ধ আবার কোথায় গেল! তখনই বারান্দায় চোখ পড়তেই মুগ্ধকে দেখতে পেল। বলল,
-“এই, শোনোনা।”
মুগ্ধ বারান্দা থেকেই বলল,
-“কি?”
-“আমি তো কাপড় আনিনি।”
-“ওহ দাড়াও, দিচ্ছি।”
-“শোনো।”
-“কি?”
-“টাওয়াল আছে ভেতরে। শুধু কাপড় দিলেই হবে।”
-“আচ্ছা।”
মুগ্ধ নতুন কেনা পোলো শার্ট আর থ্রি-কোয়ার্টার নিয়ে দরজার সামনে এসে বলল,
-“নাও।”
তিতির হাত বাড়ালো। মুগ্ধ ওর হাতে ওগুলো দিল। কিছুক্ষণ পর তিতির বেড়িয়ে আসতেই মুগ্ধ ঢুকলো। কেউ কারো দিকে তাকালো না। তিতির চুল মুছে বিছানায় শুয়ে পড়লো। হঠাৎ তিতিরের নজরে পড়লো শপিং ব্যাগ গুলোর দিকে। তিতির যখন অন্তর্বাস কিনছিল, মুগ্ধকে তখন ভাগিয়ে দিয়েছিল সেখান থেকে। ততক্ষণে মুগ্ধও কিছু কিনেছিল যা দেখেনি তিতির। ও অবশ্য গাড়িতে উঠে দেখতে চেয়েছিল কিন্তু মুগ্ধ বলেছিল,
-“তুমি কি কিনেছো আমি দেখতে চেয়েছি? যেহেতু চাইনি তুমিও আমারগুলো দেখতে পারবে না। সবারই পারসোনাল জিনিস থাকতে পারে।”
তিতির উঠে গিয়ে শপিং ব্যাগ গুলো খুলতেই দেখলো অরেঞ্জ,রেড আর এশ কালারের কম্বিনেশনের একটা জর্জেট শাড়ি ব্ল্যাক পাড়! সাথে ব্ল্যাক কালারের রেডিমেড স্লিভলেস ব্লাউজ, ম্যাচিং পেটিকোট, বাহ! মুগ্ধর বরাবরই সবদিকে খেয়াল থাকে আর পছন্দটাও ফার্স্টক্লাস। সব ইউনিক জিনিস ওর চোখে পড়ে। ঝটপট শাড়িটা পড়ে ফেলল তিতির। শাড়িটা পড়ে আয়নার সামনে দাঁড়াতেই মনটা ভাল হয়ে গেল। কিছুক্ষণ আগের খারাপ লাগাটা এখন আর ওর মধ্যে নেই। কারন, মুগ্ধ বেড়িয়ে যখন ওকে এভাবে দেখবে মুগ্ধরও ভাল লাগবে।
হলোও তাই। দরজা খুলে খালিগায়ে টাওয়াল পড়া মুগ্ধ চুল ঠিক করতে করতে বেড়িয়ে এল। তিতিরকে দেখেই থমকে দাঁড়ালো। তিতির হাসি হাসি মুখ করে বলল,
-“সারপ্রাইজ!”
-“দিলে তো আমার সারপ্রাইজ টা নষ্ট করে।”
-“নষ্ট হয়নি। আমি সারপ্রাইজ পেয়েছি। তাইতো ইচ্ছে হলো তোমাকেও দেই।”
মুগ্ধ তিতিরের সামনে দাঁড়িয়ে বলল,
-“সত্যি সারপ্রাইজড হয়েছি।”
তিতির হাসলো। মুগ্ধ তিতিরের কপালে একটা চুমু দিয়ে বলল,
-“তোমাকে খুব সুন্দর লাগছে।”
তিতিরের মাথায় শয়তানি ঘুরঘুর করছিল। খুব ইচ্ছে করছিল মুগ্ধর পড়নের টাওয়ালটা একটা টান দিয়ে খুলে ফেলতে। বেশ হতো। কিন্তু একাজ ও করতে পারবে না। ভাবতেই লজ্জা লাগছে। মুগ্ধ সরে গিয়ে ব্যাগ থেকে কাপড় বের করলো। প্যান্ট পড়তে পড়তে বলল,
-“ভাল হয়েছে শাড়ি পড়েছো। চলো সিলেট সিটিটা আজ ঘুরে ফেলি।”
-“হুম চলো।”
-“আর রিসোর্টের ভেতরেও কিন্তু অনেক কিছু আছে। এটার অনেক বড় এরিয়া।”
-“অনেক কিছু বলতে?”
-“ইকো পার্ক, সুইমিংপুল আরো কি কি যেন।”
-“আর কালকের প্ল্যান কি?”
-“কাল সকাল সকাল আমরা একবারে বেড়িয়ে পড়বো। বিছনাকান্দি ঘুরে দুপুরেই রওনা দিব। রাতের মধ্যে ঢাকা। রাত হলেই তো তোমার বাসায় খোঁজ পড়বে, তাই না?”
-“হ্যা।”
মনটা সামান্য খারাপ হলো তিতিরের। সুন্দর সময় কেন এত তারাতারি চলে যায়? আনমনে ভাবছিল ও। এমন সময় মুগ্ধ আচমকা তিতিরের চুল মুছে দিতে শুরু করলো। বলল,
-“চুলগুলো আজও মুছতে শিখলে না।”
তিতিরের চোখে পানি এসে গেল। অনেক কষ্টে কান্নাটাকে হজম করে নিল। ইশ, আজীবনের জন্য তিতির মুগ্ধর এই টুকরো টুকরো ভালবাসা গুলো হারিয়ে ফেলবে একসময়। মুগ্ধ হয়ে যাবে অন্য কারো স্বামী, তিতির হয়ে যাবে অন্য কারো স্ত্রী! তার আগেই যদি জীবনটাকে থমকে দেয়া যেত? ইশ এমন করলে কেমন হয় আজ তিতির কোনো একটা বিষ কিনে নিয়ে আসবে লুকিয়ে লুকিয়ে, তারপর সেই বিষ গোপনে রাতের খাবারের সাথে মিশিয়ে মুগ্ধকে খাইয়ে নিজেও খেয়ে পড়ে থাকবে এখানে। ওদের ভালবাসার হ্যাপি এন্ডিং হবে। আইডিয়াটা কিন্তু বেশ। কিন্তু বিষ কোথায় পাওয়া যায়? ওষুধের দোকানে কি পাওয়া যায়?
-“এই তিতির? কি হলো? কি ভাবছো?”
তিতির ভাবনার জগৎ থেকে বেড়িয়ে এল। বলল,
-“তেমন কিছুনা। আমাদের প্রথম পরিচয়ের কথা ভাবছিলাম।”
-“ওহ। বাই দ্যা ওয়ে, তুমি শাড়ি পড়া শিখতে গেলে কেন?”
-“তো? প্রত্যেকবার মায়ের কাছে যেতে ভাল লাগে নাকি?”
-“না মানে, তুমি যদি না শিখতে তাহলে আমি সেই ছোটবেলার মত আবার পড়িয়ে দিতে পারতাম।”
তিতির কোমরে হাত দিয়ে এক টানে কুচিগুলো খুলে ফ্লোরে ফেলে দিল। তারপর বলল,
-“ইচ্ছে করলে যেমন কোন কাজ শেখা যায়, ইচ্ছে করলে তেমন কোন কাজ ভোলাও যায়। আমি ভুলে গেছি কিভাবে শাড়ি পড়তে হয়।”
মুগ্ধ হেসে শাড়িটা তুলে নিল। পড়াতে পড়াতে বলল,
-“তুমি ইদানীং অনেক দুষ্টু হয়েছো।”
-“তোমাকে না পেয়ে না পেয়ে।”
মুগ্ধ আর কিছু বলল না। মনোযোগ দিয়ে শাড়ির কুচি দিতে লাগলো। কুচি দেয়া শেষ করে হাটু গেড়ে বসে কুচিগুলো কোমরে গুঁজে দিয়ে তিতিরের দিকে তাকিয়ে বলল,
-“পৃথিবী গোল, কিছু কিছু ঘটনার রিপিটেশন তো হতেই পারে, তাই না?”
তিতির অন্যদিকে তাকিয়ে মিষ্টি একটা লাজুক হাসি দিল। মুগ্ধ তিতিরের নাভির ডানপাশে চুমু খেল। তিতির হাসতে হাসতে পিছিয়ে গেল। মুগ্ধ বলল,
-“এত হাসির কি হলো?”
-“সুড়সুড়ি লেগেছে।”
-“বাহরে! এমনই বুঝি হয়? প্রথমবার তো হাসোনি, সুড়সুড়ি তখন কোথায় ছিল?”
-“আরে তখন তো বুঝেই উঠতে পারিনি কি হচ্ছে!”
মুগ্ধ উঠে দাঁড়ালো। তিতির কাছে এসে মুগ্ধর বুকের লোমের মধ্যে নাক ঘষলো, গাল ঘষলো আর তারপর ঠোঁটও ঘষলো। মুগ্ধ হাসিমুখে দাঁড়িয়ে সবটা অনুভব করছিল। তারপর তিতির সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে হাতদুটো মুগ্ধর বুকের ঠিক মাঝখানটায় মেলে রাখলো। তারপর মাথা উঁচু করে মুগ্ধর চোখের দিকে তাকিয়ে বলল,
-“তোমার যখন অন্য কারো সাথে বিয়ে হবে তখন এরকম খালিগায়ে তাকে বুকে নেবে না। নিতে হলে কিছু একটা পড়ে তারপর নিবে।”
-“আমি তোমাকে ছাড়া আর কাউকে বিয়ে করবো না। করলে এতদিনে করে ফেলতাম।”
-“তবুও, করতে হতেও পারে তাই বলছি সব করতে পারো কিন্তু তাকে খালি বুকে হাতও রাখতে দেবে না। চুমুও দিতে দেবে না বুকে। এটা শুধু আমার রাজত্ব করার যায়গা।”
মুগ্ধ হাসলো। তিতির বলল,
-“হেসোনা, হাস্যকর লাগতে পারে কিন্তু আমার এরকম কিছু কথা রাখতে হবে তোমাকে।”
-“ওকে রাখবো। বাকীগুলো কি?”
-“তাকে শাড়ি পড়িয়ে দিতে পারবে না।”
-“ওকে দিবনা, তারপর?”
-“হাঁস বার-বি-কিউ করে খাওয়াবে না।”
-“ওকে, স্পেসিফিকলি হাঁস বললে তাই জিজ্ঞেস করছি তাহলে কি মুরগী বার-বি-কিউ করে খাওয়ানো যাবে?”
-“যাবে।”
-“আচ্ছা আচ্ছা, ওকে। তারপর?”
-“তার ভেজাচুল মুছে দিতে পারবে না।”
-“ওকে দিবনা, নেক্সট?”
-“তার সাথে লিপকিস করার সময় আর যেখানে ইচ্ছা সেখানে হাত রাখতে পারো কিন্তু এক হাত কোমরে আরেক হাত কানের নিচে রাখবে না।”
মুগ্ধ মুখ টিপে টিপে হেসেই চলেছে। বলল,
-“আচ্ছা, তারমানে লিপকিস করা যাবে?”
-“হ্যা, যাবে। কিন্তু হাত সাবধান।”
-“আচ্ছা, তারপর?”
-“তাকে কক্ষনো কোলে নিতে পারবে না।”
-“ওকে নিবনা, আর?”
-“কখনো ওর কপালে কিস করবে না।”
এবার একটু বেশিই হাসলো মুগ্ধ। বলল,
-“আচ্ছা করবো না। তারপর?”
-“তোমরা দুজন কখনো একসাথে গোসল করবে না।”
-“এই এই, ওয়েট ওয়েট.. এতক্ষণ তুমি সেসবই নিষেধ করেছো যা যা আমি তোমার সাথে করেছি। কিন্তু এটা কি বললে? আমি তুমি তো কখনো একসাথে গোসল করিনি। তাহলে এটা না করলে কেন?”
-“আমার ইচ্ছে!”
মুগ্ধ হেসে তিতিরের কপালে চুমু দিয়ে বলল,
-“ওকে, তিতিরপাখি! বিয়েই তো করবোনা। তবু যদি কোনদিন করি তো তুমি যা যা নিষেধ করলে তার সব আমি মনে রাখবো।”
তিতির হাসলো। মুগ্ধ ওকে বুকে জড়িয়ে ধরলো।
বিকেলটা রিসোর্টের মধ্যের ইকো পার্ক আর শহরের মধ্যেই একটা চা-বাগানের আশেপাশে ঘুরে কাটালো ওরা। ভেতরে ঢোকার পারমিশন পেল না। তারপর সন্ধ্যা হতেই ওরা মাজারে গেল। আর তারপর মাজার থেকে বেড়িয়ে গাড়িতে উঠেই মুগ্ধ জিজ্ঞেস করলো,
-“বলোতো এখন কোথায় যাচ্ছি আমরা?” পাশে বসে তিতির আনমনে চুলগুলোকে আঙুল দিয়ে আচড়াচ্ছিল। মুগ্ধর প্রশ্ন শুনে বলল,
-“কোথায়?”
-“সুরমা নদীতে একটা ভাসমান রেস্টুরেন্ট আছে। স্টাইল করে বলতে গেলে বলতে হবে ওটা একটা ছোট জাহাজ। কিন্তু আসলে একটা লঞ্চ।”
তিতির হাসলো। বলল,
-“রেস্টুরেন্টে গিয়ে কি হবে?”
-“খাব।”
-“ডিনার না রিসোর্টে করবে বললে?”
-“এটা প্রি-ডিনার। সন্ধ্যার নাস্তা।”
-“পারোও তুমি।”
-“অবশ্যই পারি। এক যায়গায় এসেছো সেখানকার স্পেশাল খাবার গুলো খাবে না?”
-“তুমি খাও।”
রেস্টুরেন্টে খেতে খেতে মুগ্ধ বলল,
-“তোমার কপালে একটা মাঝারী সাইজের কালো টিপ থাকলে ভাল লাগতো।”
-“ও হ্যা, তুমি তো টিপ আর কাজল পছন্দ করো। কিন্তু সাজ পছন্দ করো না এই ব্যাপারটা আমার মাথায় সেট হয়ে গেছে। তাই সাথে কিছুই রাখা হয় না।”
-“থাক, এটা নিয়ে আবার আফসোস করতে বসোনা যেন।”
তিতির হাসলো। মুগ্ধ বলল,
-“এইযে তুমি শুধু স্যুপ নিলে আমি অন্যকিছু খেতে জোড় করলাম না কেন বলোতো?”
-“কেন?”
-“কারন, এখান থেকে বেড়িয়ে আমরা আরেকটা রেস্টুরেন্টে যাব। এখানে কম খেলে সেখানে ভাল করে খেতে পারবে তাই।”
তিতির হেসে বলল,
-“মানে কি? কি ঢুকেছে তোমার পেটে আজ?”
-“আমি অনেক খেতে পারি, সেটা তুমি তো জানোই। আসলে আমি যেটা খেতে বেড়িয়েছি এখানে সেটা নেই তাই আরেকটাতে যেতে হবে।”
-“সেটা কি?”
-“সাতকড়া গরুমাংস।”
-“সাতকড়া কি?”
-“অস্থির জিনিস। অনেক স্বাদ, অনেক।”
-“কিন্তু সেটা কি বলবে তো?”
-“একটা ফল, দেখতে লেবুর মত। যেটা দিয়ে গরুমাংস রান্না করা হয়। কিযে স্মেল রে ভাই। এটা সিলেটের স্পেশাল জিনিস। সিলেট ছাড়া আর কোথাও পাবে না।”
-“ওহ। তোমার বলার ধরণ দেখে খেতে ইচ্ছে করছে।”
-“অবশ্যই খাবে।”
-“খেতে পারবো কিনা কে জানে!”
-“কেন?”
-“ঠোঁট জ্বলছে। কত জায়গায় কেটেছে কে জানে!”
-“ইশ, আসলেই? কেটে গেছে?”
-“কামড়ালে কাটবে না?”
-“শুধু জ্বলছে না ব্যাথাও করছে?”
-“ব্যাথাও করছে।”
-“আহারে, সরি।”
-“সরি বলোনা। শোধ করে দিব রাতেই।”
মুগ্ধ দুষ্টু হাসি দিয়ে বলল,
-“রিয়েলি? আমি চারপায়ে খাড়া।”
-“তোমার পা দুটো।”
-“হ্যা, তোমার দুটো সহ বলেছি।”
হাসলো তিতির। মুগ্ধও সে হাসিতে তাল মেলালো।
ওখান থেকে ওরা চলে গেল নবান্ন রেস্টুরেন্টে। সাতকড়া গরুমাংস আর পরোটা অর্ডার করলো। মুগ্ধকে অবাক করে পরপর তিন প্লেট গরুমাংস নিল তিতির। সাথে চারটা পরোটাও শেষ। মুগ্ধ হেসে বলল,
-“কি বলেছিলাম না?”
তিতির খেতে খেতে বলল,
-“একটু ঝাল বেশি কিন্তু পৃথিবীতে এত মজার কিছু থাকতে পারে আমার জানা ছিল না, জাস্ট ওয়াও। স্মেলটাই সবচেয়ে বেশি সুন্দর। তারপর সাতকড়ার টুকরাগুলোও খেতে খুব মজা”
-“পৃথিবীতে এর চেয়ে মজার জিনিস অবশ্যই আছে। আসলে এধরণের জিনিস আমরা সচরাচর খাই না তো। তাই হঠাৎ খেলে অনেক ভাল লাগে। আর এটা ঝাল কিছু না। রান্নাটাও ঝাল হয়নি, তোমার ঠোঁট কেটে গেছে তাই ঝাল লাগছে।”
-“হুম, আচ্ছা.. এগুলো কিনতে পাওয়া যায় কোথায়?”
-“বাজারে অভাব নেই। আর রাস্তার পাশেও ঝুড়ি ভরে নিয়ে বসে থাকে দেখোনি লেবুর মত?”
-“খেয়াল করিনি। যাই হোক, যাওয়ার দিন আমি নিয়ে যাব।”
-“আচ্ছা। রান্নার সিস্টেম জানোতো?”
-“না, আলদা কোনো সিস্টেম আছে নাকি? ধুয়ে খোসা ছাড়িয়ে ছোট ছোট টুকরা করে মাংসের মধ্যে দিয়ে দেব।”
-“আজ্ঞে না। শুধু খোসাটাই রান্না করতে হয়। ভেতরের অংশটা খেতে হয়না ফেলে দিতে হয়, ওটা তিতা।”
-“ও।”
-“আর মাংসটা যেভাবে ইচ্ছা রান্না করে নামানোর ২০-৩০ মিনিট আগে দিয়ে রান্না শেষ করতে হবে। শুরুতেই দিলে তিতা হয়ে যাবে। খুবই সেন্সেটিভ জিনিস।”
ওর কথা শুনে কতক্ষণ হাসলো তিতির। বলল,
-“সত্যি, তোমার সাথে ছাড়া আমি কোথাও গেলে শুধু সেখানে যাওয়া হবে আর আসা হবে। সেখানকার কিছুই জানা হবে না, পাওয়া হবে না। সব কিছুই ঝাপসা থাকবে অথচ আমি বুঝবোও না।”
-“আমিও প্রথমে কিছুই জানতাম না তিতির। আস্তে আস্তে ঘুরতে ঘুরতে জেনেছি। যেখানে যাবে সেখানকার রাস্তাঘাট, মানুষজন, পরিবেশ সবকিছু খেয়াল করলে আপনাআপনি সব জেনে যাবে।”
যখন ওরা রিসোর্টে ফিরলো তখন ৯ টা বাজে। রুমে ঢুকে চেঞ্জ করার জন্য কাপড় নিল তিতির। মুগ্ধ বলল,
-“পড়ে থাকোনা শাড়িটা।”
তিতির হেসে বলল,
-“আচ্ছা। এই চলোনা বারান্দায় গিয়ে বসি। বারান্দাটা অনেক সুন্দর।”
-“তুমি যাও, আমি চেঞ্জ করে আসছি।”
বারান্দায় গিয়ে তিতিরের চোখে পড়লো ফ্লোরে মুগ্ধর জামাকাপড় পড়ে আছে। ওগুলো তুলে রুমে ঢুকতেই মুগ্ধ বলল,
-“হায় হায়, আমি ভুলেই গিয়েছিলাম ওগুলোর কথা। দাও আমাকে দাও, ধুয়ে দেই তারাতারি, না শুকালে ঝামেলায় পড়ে যাব।”
-“না, আমি ধুয়ে দিচ্ছি।”
-“আরে আমি ধুতে পারবো তো।”
-“জানি, আমিও ধুতে পারবো। আমি থাকতে তুমি ধোবেই বা কেন?”
-“আরে! মেয়ে বলে কি? তুমি কি আমার কাপড় ধোয়ার জন্য আছো নাকি?”
-“আমার ইচ্ছে, আমি ধোব। সরো তো।”
তিতির জোড় করে কাপড়গুলো ধুয়ে দিল। মুগ্ধ খালি গায়ে সাদা রঙের একটা হাফ প্যান্ট পড়ে বিছানায় শুয়ে টিভি দেখছিল। তিতির কাপড়গুলো বারান্দায় মেলে দিয়ে ঘরে এসে মুগ্ধর কোলের মধ্যে শুয়ে পড়লো। বলল,
-“টিভিটা বন্ধ করোনা।”
মুগ্ধ টিভি বন্ধ করে বলল,
-“তুমি পাশে ছিলে না তাই দেখছিলাম।”
-“ভাল করেছো, এখন তো আমি চলে এসেছি।”
মুগ্ধ তিতিরকে জড়িয়ে ধরে বলল,
-“তাই তো দেখছি।”
-“তুমি আবার খালি গায়ে? কিছু একটা পড়ো।”
-“আমি তো বাসায় খালিগায়েই থাকি, অভ্যাস।”
-“এসব দেখে দেখে আমার নজর খারাপ হয়ে যাচ্ছে।”
-“সিরিয়াসলি তিতির তোমার কথাবার্তা শুনলে মনে হয় কি ছেলেদের বুকের লোম যেন অতি বিশেষ কিছু। কিন্তু আসলে কিছুই না। অতি সামান্য জিনিসকে তুমি মহিমান্বিত করেছো।”
-“আমার কাছে অতিসামান্য না।”
-“আচ্ছা বুচ্ছি কিন্তু হঠাৎ শুয়ে পড়লে যে? এখনি শোধ করবে নাকি?”
তিতির লজ্জা পেয়ে বলল,
-“জানিনা।”
মুগ্ধ বলল,
-“প্লিজ শোধ করে দাওনা।”
-“আমি পারবো না।”
-“তখন তো খুব বড় মুখ করে বলেছিলে।”
তিতির লজ্জা পাচ্ছিল। মুগ্ধ বলল,
-“এখনো ব্যাথা করছে ঠোঁট?”
-“হুম।”
-“এসো, বিষ দিয়ে বিষক্ষয় করে দিই।”
তিতির সরে গিয়ে বলল,
-“ইশ না। অনেক ব্যাথা।”
-“আচ্ছা, আলতো করে।”
এবার আর তিতির সরলো না। তারপর মুগ্ধ তিতিরের ঠোঁটে আলতো করেই চুমু খেতে লাগলো।
তার মধ্যেই তিতিরের ফোনটা বেজে উঠলো। বাবা ফোন করেছে, উঠে বসে ফোনটা ধরলো তিতির,
-“হ্যা, বাবা বলো।”
-“কী অবস্থা মা তোর? কেমন আছিস?”
তিতির হেসে বলল,
-“সকালেই তো মাত্র এলাম বাবা, ভাল আছি।”
-“ও হ্যা তাই তো। তুই কোথাও গেলে ঘর অন্ধকার হয়ে থাকে। তা কি করছিস?”
-“প্রজেক্ট ওয়ার্কটা করছিলাম বাবা, এখন একটু রেস্ট নিচ্ছিলাম। একটু পর আবার করবো। যেভাবেই হোক, দুদিনের মধ্যেই কম্পলিট করতে হবে।”
-“হুম, কাল কখন আসবি?”
-“বাবা, আমি কাল নাও আসতে পারি। প্রজেক্ট ওয়ার্ক টা কম্পলিট হলেই আসব। নাহলে আসব না। পরশু আসবো।”
-“সেকী!”
-“রুপাদের বাসাতেই তো আছি বাবা, টেনশান কিসের? নাকি বিশ্বাস হচ্ছে না? আন্টির সাথে কথা বলবে?”
-“না না ছি ছি, আন্টির সাথে কেন কথা বলবো? আর টেনশান না। আসলে তোকে না দেখলে ভাল লাগে না তো। তুই লাগলে থাক কালকেও সমস্যা নেই।”
-“ওকে বাবা। ডিনার করেছো?”
-“নাহ, এখন করবো।”
-“আমিও।”
-“ঠিকাছে মা। আমি তাহলে রাখছি। তান্না ফোন করলে ধরিস না। কাল আসবি না শুনলে আবার কি না কি বলবে তোকে। আমি ওর সাথে কথা বলে নেব।”
-“আচ্ছা বাবা। তুমি যা বলবে।”
ফোন রেখে মন খারাপ করে বসে রইল তিতির। মুগ্ধ বলল,
-“কি হলো?”
-“বাবাকে কতগুলো মিথ্যে বললাম!”
-“হুম, তাই দেখলাম আর অবাক হলাম।”
তিতির মুগ্ধর দিকে তাকিয়ে বলল,
-“তোমার জন্য আমি সব পারি।”
-“শুধু ফ্যামিলির অমতে আমাকে বিয়েটা করতে পারো না।”
-“এটা করলে আমার বাবা মরে যাবে। বিশ্বাস করো শুধুমাত্র বাবার জন্যই আমি এটা পারি না।”
-“আচ্ছা বাদ দাও, এসব ভেবে মন খারাপ করার কোন মানে হয়না। কিন্তু এটা বলো বাবাকে কেন বললে কাল ফিরবে না।”
-“ও হ্যা, আরেকটা দিন থাকতে ইচ্ছে করছিল খুব, তাই আরেকটা দিনের পারমিশন নিলাম।”
-“আর বললে যে আন্টি মানে রুপার আম্মুর সাথে কথা বলিয়ে দেবে। এটা বললে কোন সাহসে?”
তিতির হেসে বলল,
-“জানি বাবা কথা বলবে না তাই বলেছি। জানি এটা অন্যায়। কিন্তু বাবা যদি ছেলের কথা না শুনে একটা বার সব যাচাই করে দেখতো। জেদ না ধরে থেকে তোমার আমার বিয়েতে রাজী হতো তাহলে তো আজ আমাকে এতবড় মিথ্যেবাদী হতে হতোনা। আর আমাকে নকল মিসেস তিতির মেহবুব হতে হতোনা। আসল মিসেস তিতির মেহবুবই হতাম। তখন আজ যা করছি তা অন্যায় বা খারাপ হতো না।”
মুগ্ধ তিতিরের হাত ধরে টেনে নিজের বুকের মধ্যে নিয়ে বলল,
-“তুমিই একমাত্র আসল মিসেস তিতির মেহবুব। সেদিনই কনফার্ম হয়েছিলে যেদিন আমি লাভ ইউ বলার পর তুমি আমাকে জড়িয়ে ধরেছিলে।”
তিতির হাসলো। মুগ্ধ বলল,
-“আচ্ছা, শোনো।”
-“বলো।”
-“তালগাছে উঠবে?”
তিতির অবাক হয়ে বলল,
-“কি? তালগাছে উঠতে যাব কেন? আর আমি গাছে উঠতে পারিও না।”
-“ছোটবেলায় কখনো বাবা তোমাকে পায়ের তলায় ঠেকিয়ে উপর উঠিয়ে দোলায়নি?”
হঠাৎ মনে পড়ে গেল তিতিরের। বলল,
-“হ্যা হ্যা। বাবা এরকম করতো, ভাইয়াও করতো। পায়ের তলাটা আমার পেটের সাথে ঠেকিয়ে আমাকে উঁচু করে ফেলতো। আমি উপুর হয়ে থাকতাম। বাবা বলতো এটা তালগাছ। উফ কি যে মজার ছিল ছোটবেলাটা।”
-“সেটার কথাই বলছি। উঠবে?”
-“তুমি ওঠাবে?”
-“হ্যা।”
-“কিন্তু আমি তো বড় হয়ে গিয়েছি। বাবা তো নিতো সেই ছোট থাকতে। যখন ক্লাস টু কি থ্রিতে পড়ি।”
-“আমার কাছে তুমি এখনো ছোটই, এসো তো। তোমাকে তালগাছে উঠাই।”
মুগ্ধ তিতিরকে তালগাছে উঠিয়ে হাতে হাত ধরে রাখলো। অদ্ভুত এক অনুভূতি হলো তিতিরের। ও জানে মুগ্ধর সাথে সারাটা জীবন থাকলে পার্থিব সমস্ত সুখগুলো মুগ্ধ ওর পায়ের কাছে এনে রাখতো যা পৃথিবীর আর কেউ পারবে না। তিতির খিটখিট করে হাসছে। আর মনে মনে হাজার ফোটা চোখের জল জমিয়ে ফেলছে পরে ফেলার জন্য। এখন ফেলা যাবে না। মুগ্ধ কত সখ করে ওকে তালগাছে উঠিয়েছে। কাঁদলে কষ্ট পাবে না?

To be continued..
Tagged : / /

প্রেমাতাল পর্ব – ৩৭ || মৌরি মরিয়ম

তিতির চোখ মেলে দেখলো গাড়িতে ও একা। মুগ্ধ নেই, গাড়ি একটা শপিং মলের সামনে পার্ক করা। এটা কোথায় বুঝতেও পারছে না। তিতির মোবাইল বের করে মুগ্ধকে কল করলো,
-“হ্যালো, আমার ঘুমকুমারীর ঘুম ভেঙে গেল?”
-“হুম। আপনি আমাকে একা রেখে কোথায় চলে গেছেন?”
-“তুমি লক করা আছো তাই একা রেখে আসলেও প্রব্লেম নেই। আমি তোমককে ডেকেছিলাম কিন্তু তুমি ওঠোনি তখন। আমি মলে ঢুকেছি, কিছু কেনাকাটা আছে।”
-“কি আবার কিনবে?”
-“আরে হুট করে এসেছি না? সাথে জামাকাপড় তো নেই, পড়বো কি? দুজনের জামাকাপড় কিনতে ঢুকেছি।”
-“শুধু তোমারটা কেন তাহলে। আমার আজ ফ্রেন্ডের বাসায় থাকার কথা ছিল না? একটা এক্সট্রা সালোয়ার-কামিজ আছে সাথে।”
-“ওহ, সেটা ভাল কথা কিন্তু বিছনাকান্দিতে কি তুমি সালোয়ার-কামিজ পড়ে পানিতে নামবে? সামলাতে পারবে তো?”
তিতির উচ্ছাসিত হয়ে বলল,
-“আমরা বিছনাকান্দি যাব?”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“তো সিলেট এসেছি কেন?”
-“ওয়াও, আমি খুশি ধরে রাখতে পারছি না। বাই দ্যা ওয়ে, সিলেট এসেছি মানে? আমরা কি সিলেট চলে এসেছি?”
-“হ্যা।”
-“বাপরে! এতক্ষণ ঘুমিয়েছি আমি?”
-“ব্যাপার না।”
-“তুমি কোনো ব্রেক নাওনি?”
-“নাহ।”
-“কষ্ট হয়েছে অনেক?”
-“আরে না।”
মুগ্ধ ততক্ষণে কথা বলতে বলতে বাইরে চলে এসেছে। গাড়ির দরজা খুলে বলল,
-“আসুন ম্যাম।”
তিতির হেসে বেড়িয়ে এল। শপিং মলে ঢুকে কেনাকাটা করছে এমন সময় তিতির লেডিস শার্ট দেখছিল। কয়েকটা কালারের মধ্যে বেবি পিংক টা বেছে নিল তিতির। মুগ্ধ বলল,
-“এটা নিও না। ব্ল্যাক কিংবা নেভি ব্লু টা নাও।”
-“কেন এটা খারাপ লাগছে? তুমি তো বলেছিলে আমাকে লাইট কালারে ভাল লাগে।”
মুগ্ধ বলল,
-“এটা পড়ে পানিতে নামবে? নাকি এমনি পড়তে নিচ্ছো?”
-“পানিতে নামার জন্যই তো নিচ্ছি।”
-“তোমার সেন্স অফ হিউমার ভাল, কিন্তু মাঝে মাঝে সেটা কাজে লাগাও না কেন?”
-“কি করলাম আবার? কিছুই তো বুঝতে পারছি না।”
মুগ্ধ এবার কাছে এসে নিচু স্বরে বলল,
-“হালকা কালারের ড্রেস পড়ে ভিজলে সব দেখা যায়।”
তিতির লজ্জা পেয়ে পিংক টা রেখে নেভি ব্লু টা নিল। পিংক টা এমনভাবে ছুড়ে রাখলো যেন ওটাতে কোন পোকা পড়েছে।
কেনাকাটা শেষ করে ওরা লাঞ্চ করে নিল। তারপর গাড়িতে উঠতেই তিতির বলল,
-“আমরা উঠছি কোথায়? হুট করে এলাম রুম পাব তো?”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“বুকিং দেয়া হয়ে গেছে।”
-“সিরিয়াসলি? কোথায়?”
-“শুকতারা ন্যাচার রিট্রিট।”
তিতির চোখদুটো বড় বড় করে বলল,
-“রিসোর্ট?”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“হ্যা।”
-“ওয়াও। খুব ভাল হয়েছে, আমার হোটেলে একদম ভাল লাগে না।”
-“সেজন্যই তো রিসোর্টে থাকবো।”
কিন্তু হঠাৎই চিন্তায় পড়ে গেল তিতির। বলল,
-“কিন্তু খরচটা তো অনেক বেশি হয়ে যাবে।”
-“তাতে কি? কতদিন তো কোথাও যাই না। হোকনা একটু খরচ, ডেইলি ডেইলি তো যাচ্ছি না।”
-“কেন যাওনা?”
-“তুমি ছাড়া এখন আর কোথাও যেতে ভাল লাগে না।”
তিতির চুপ হয়ে গেল। কে জানে এটাই হয়তো মুগ্ধর সাথে শেষ ট্যুর!
রিসোর্টের রিসিপশানে দাঁড়িয়ে মুগ্ধ বলল,
-“স্কিউজমি, আমাদের বুকিং ছিল।”
ম্যানেজার একটা ফর্ম দিল ফিলাপ করার জন্য। এতদিন যত যায়গায় গিয়েছে এসব ফর্মালিটিজ মুগ্ধই করেছে। আজ ফর্মটা তিতিরের দিকে এগিয়ে দিল। যা সবসময় মুগ্ধ লিখে এসেছে আজ তা লিখলো তিতির।
Mr. Mehbub Chowdhury Mugdho with Mrs. Titir Mehbub.
…………………………………………….
…………………………………………….
…………………………………………….
ফর্মালিটিজ শেষ করতেই একজন কেয়ারটেকার ওদের দোতলায় নিয়ে গিয়ে রুম খুলে দিয়ে বলল,
-“স্যার, লাঞ্চ করবেন?”
-“না না আমরা লাঞ্চ করে এসেছি। ডিনার করবো এখানে।”
-“ওকে স্যার, কিছু লাগলে ইন্টারকমে ১০১ এ কল করলেই হবে।”
-“ওকে, থ্যাংকইউ।”
-“মোস্ট ওয়েলকাম স্যার।”
ছেলেটি চলে যেতেই মুগ্ধ-তিতির ঘরে ঢুকলো। তিতিরের মনটাই ভরে গেল। বিশাল একটা ঘর। লাল ইটের সিরামিকের দেয়াল। বেতের বিছানা, বেতের আলমারি, বেতের ড্রেসিং টেবিল, সাথে কাঠের ফ্রেম করা আয়না। ঘরের পুরো একটা দেয়ালে কাঠের ফ্রেমে থাই গ্লাস লাগানো। ওপাশে একটা বারান্দা, বারান্দায় যাওয়ার জন্য বড় একটা দরজাও আছে, দরজাটাও গ্লাসেরই। ভেতর থেকেই দেখলো বারন্দার ওপাশে যতদূর চোখ যায়, শুধু পাহাড় দেখা যায়। পুরো গ্লাসের দেয়ালটায় লাল রঙের পর্দা লাগানো। বেড কভার, বালিশের কভার সব সাদা। বিছানায় সামনে, টয়লেটের সামনে পর্দার সাথে মিলিয়ে লাল রঙের পাপোশ বিছানো। সব মিলিয়ে অসাধারণ লাগলো। তিতির দরজা খুলে বারান্দায় গেল। সেখানে গিয়ে আরেকটা সারপ্রাইজ পেল। বারান্দার একপাশে বাগানের মত ঘাস লাগানো হয়েছে, পাশে সাদা গোল সিরামিকের টবে ফুলের গাছ। অন্যপাশে একটা ডিভান রাখা। পুরো বারান্দায় রেলিং বলে কিছু নেই। তবে বাউন্ডারি আছে, সেখানেও ঘাস ও ছোট ছোট বাগানবিলাশ লাগানো হয়েছে। আর বারান্দার ওপারে উন্মুক্ত পাহাড়, যতদূর চোখ যায় শুধু সবুজ আর সবুজ। বান্দরবান আর সিলেটের দূরে থাকা সবুজ সৌন্দর্যের একটা পার্থক্য রয়েছে। বান্দরবানের দূরের সবুজগুলো গাঢ় সবুজ। আর সিলেটের দূরের সবুজগুলো হালকা সবুজ, কিন্তু উজ্জল। তবে দুটো সৌন্দর্যই চোখ জুড়ানো, মন ভোলানো। কারো সাথে কারো তুলনা করা চলে না।
হঠাৎ মুগ্ধ তিতিরকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে ওর চুলের গন্ধ নিল। তিতির মুগ্ধর বাহুডোরে থেকেই ফিরলো মুগ্ধর দিকে। তারপর মুগ্ধকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে ফেলল। মুগ্ধ ওর মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে বলল,
-“দেখো অবস্থা। এজন্য নিয়ে এলাম নাকি?”
তিতির চোখ তুলে মুগ্ধর দিকে তাকালো। মুগ্ধ ওর চোখ মুছে দিল। তিতির বলল,
-“তুমি ফর্মটা কেন আমাকে ফিলাপ করতে দিলে?”
-“কেন, কি হয়েছে তাতে?”
-“মিস্টার এন্ড মিসেস লেখার পর আমার কেমন যেন একটা ফিলিং হলো।”
মুগ্ধ হেসে জিজ্ঞেস করলো,
-“কেমন?”
-“জানিনা, কেমনই যেন! বোঝাতে পারব না।”
-“সবসময় তো আমিই ফিলাপ করি এবং তখন আমার এই ফিলিং টাই হয়। তোমাকে এটার সাথে পরিচয় করানোর জন্যই আজ তোমাকে ফিলাপ করতে দিয়েছি।”
তিতির আবার কাঁদলো। কাঁদতে কাঁদতে বলল,
-“সব ঠিকঠাক থাকলে তো আজ আমরা হাসবেন্ড-ওয়াইফই থাকতাম।”
-“আমরা হাসবেন্ড-ওয়াইফই তিতির। আমাদের আত্মার বিয়ে অনেকদিন আগেই হয়ে গেছে। তোমার কি মনে হয়না আমাদের সম্পর্কটা শুধু একটা প্রেম না। তার থেকেও অনেক বেশি কিছু?”
-“হয় তো।”
-“হুম, এবার কান্নাটা থামাও না বাবা। আর গোসলে যাও। আমরা বিকেলে বের হব।”
-“কোথায় যাব?”
-“কোথাও একটা যাব। কোথায় তা এখনো জানিনা।”
মুগ্ধ তিতিরের চোখটা আবার মুছে দিল। তিতির বলল,
-“তুমি আমাকে কতদিন ধরে কোলে নাও না বলোতো?”
মুগ্ধ একথা শুনে এক সেকেন্ডও দেরী করলো না। কোলে তুলে নিল তিতিরকে। তারপর ঘরে নিয়ে গিয়ে নামাতে নিল আর তিতির বলে উঠলো,
-“নামিও না, নামিও না।”
মুগ্ধ অবাক হয়ে বলল,
-“কেন?”
-“গোসল করবো না? বাথারুমে দিয়ে আসো।”
-“ওহ, ওকে।”
মুগ্ধ তিতিরকে বাথারুমে রেখে ফেরার সময়ই তিতির শাওয়ার ছেড়ে ওকে ভিজিয়ে দিল। মুগ্ধ লাফিয়ে উঠে বলল,
-“এটা কি করলে বলোতো?”
তিতির হো হো করে হেসে দিল। মুগ্ধও ওকে টেনে শাওয়ারের নিচে এনে ভিজিয়ে দিল। কোথায় তিতির সরে যাওয়ার চেষ্টা করবে তা না করে মুগ্ধর টাই টা আলগা করে শার্টের উপরের দুটো বোতাম খুলে দিল। তারপর ওর গলার পিছনে দুহাত বেঁধে দাঁড়িয়ে তাকিয়ে রইলো ওর চোখের দিকে। মুগ্ধ যখন বিস্ময় কাটিয়ে উঠতে পারলো তখন তিতিরের ওড়নাটা টেনে ফেলে দিল। তারপর তিতিরের কোমর জড়িয়ে উঁচু করে শূন্যে তুলে নিজের সমান করে বলল,
-“উইল ইউ কিস মি?”
তিতির চোখ নামিয়ে হাসলো। শাওয়ারের পানি তিতিরের চুল বেয়ে বেয়ে এসে পড়ছে মুগ্ধর ঠোঁটে, চোখে, বুকে। মুগ্ধ বলল,
-“এমনভাবে করো তিতির যার ফিল টা আমার মধ্যে মৃত্যু পর্যন্ত থাকবে?”
তিতির মুগ্ধর দুই গালে হাত রেখে আরো একটু কাছে চলে গেল। তারপর ঠোঁটে ঠোঁট বসালো। শাওয়ারটা ছাড়াই রইলো। বেশ অনেকক্ষণ পর মুগ্ধ আচমকা তিতিরকে নামিয়ে দেয়ালে ঠেকিয়ে পাগলের মত চুমু খেতে লাগলো। তিতিরের ঠোঁটের কত যায়গায় যে কামড়ে দাগ বসিয়ে দিল তার কোন হিসেব নেই। অবশ্য তিতির যে মুগ্ধর কত চুল টেনে ছিঁড়লো তারও কোনো ইয়ত্তা নেই। মুগ্ধও একসময় তিতিরের ঠোঁট ছেড়ে গলায় নেমে এল। হাত চলে গেল কোমরে। পাগলামি চলতেই থাকলো। তিতিরের চোখ দুটো বন্ধ, ঘনঘন নিঃস্বাস ফেলছে। তখনই মুগ্ধ একটা হাত কোমর থেকে সরিয়ে তিতিরের পিঠের কাছে নিয়ে গেল। গলায় চুমু খেতে খেতেই তিতিরের পিঠ বরাবর কামিজের চেইনটা খুলে ফেললো। ভেজা পিঠে ভেজা হাত রাখতেই মুগ্ধর খেয়াল হলো তিতির আজ কিছুতেই না করছে না মুগ্ধকে কিন্তু ওর ফ্যামিলি তো সত্যিই কোনদিন মানবে না। একদিন হয়তো তিতিরের বিয়েও হবে অন্যকারো সাথে সেদিন যদি তিতিরের আফসোস হয় আজকের দিনটার জন্য? চেইনটা আবার লাগিয়ে দিল। তিতির অবাক হয়ে চোখ খুললো। মুগ্ধ বলল,
-“তারাতারি গোসল করে বেড়িয়ে এসো। এর বেশি ভিজলে ঠান্ডা লেগে যাবে।”
একথা বলে তিতিরের কপালে একটা চুমু দিয়ে ঘরে চলে গেল মুগ্ধ।
মুগ্ধ বেড়িয়ে যাওয়ার পর তিতির যেখানে দাঁড়িয়ে ছিল সেখানেই বসে পড়লো। পাগলের মত কাঁদতে লাগলো। কান্নাটা কোনভাবেই থামাতে পারছে না। কিন্তু কেন কাঁদছে তা ও নিজেও ধরতে পারছে না। এত আদর পেয়ে সুখে কাঁদছে নাকি যা পেলনা তার জন্য কাঁদছে!
To be continued…
Tagged : / /

প্রেমাতাল পর্ব – ৩৬ || মৌরি মরিয়ম

সবসময় এরকমই হয় নিজ থেকে তিতির কখনোই এগিয়ে আসে না। কিন্তু মুগ্ধ যখন একবার শুরু করে দেয় তিতির আর ছাড়তেই চায়না। নেশা হয়ে যায় ওর। বুদ্ধদেব গুহ লিখেছেন, ‘মধুতে যে মরে তাকে বিষ দিয়ে মারতে নেই।’ কোন বইতে যেন লিখেছেন? ‘সবিনয় নিবেদন’ নাকি ‘একটু উষ্ণতার জন্য’ তে? এই মুহূর্তে মনে পড়ছে না, তা সে যে বইতেই লিখুক না কেন কথা সত্য। তাই মুগ্ধ ওকে মধু দিয়েই মারলো। অনেকদিন ধরে এরকম একটা সুযোগের অপেক্ষায় ছিল মুগ্ধ! কিন্তু তিতির তো দেখাই করতে চাইতো না। যাই হোক, এবার কিছু তো একটা হবে। ফলাফল নিশ্চিত সুপ্রসন্ন!
তারপর তিতিরকে বাসায় পৌঁছে দিয়ে এল মুগ্ধ। পুরো রাস্তায় কেউ কোন কথা বলেনি। তিতির আর একটি বারের জন্যও তাকালো না মুগ্ধর দিকে। গলির মাথায় যেতেই তিতির বলল,
-“আমাকে এখানেই নামিয়ে দাও। বাসার সামনে তোমার সাথে যেতে চাচ্ছি না।”
-“হুম, ঠিকাছে তুমি বোসো। আমি তোমার জন্য একটা রিক্সা নিয়ে আসি।”
-“রিক্সা লাগবে না, এটুকু তো হেটেই চলে যেতে পারব।”
-“তোমার শরীরটা এখন উইক। পারবে না।”
-“বেশী বাড়াবাড়ি করো না। এটুকু কোন রিক্সা যায় নাকি? দুই কদমে চলে যেতে পারবো।”
একথা বলেই তিতির গাড়ি থেকে নামছিল। মুগ্ধ তিতিরের হাত ধরে থামালো। বলল,
-“সবকিছু নিয়ে আরেকটু ভেবো প্লিজ। আরেকটা বার ট্রাই করো বাবা-মাকে রাজী করাতে? তোমাকে ছাড়া থাকার অনেক চেষ্টা করেছি তিতির, পারছি না।”
তিতির একথার কোন উত্তর না দিয়ে হাতটা ছাড়িয়ে নিয়ে বলল,
-“আমি আসছি।”
তিতির যতক্ষণ ধরে হেটে হেটে গেল ততক্ষণ তাকিয়ে রইলো মুগ্ধ। তিতির একবারও পেছন ফিরে তাকালো না।
বাড়ির গেটের ভেতর ঢুকে দাঁড়িয়ে পড়লো তিতির। কয়েক সেকেন্ড পর ভেতর থেকেই উঁকি মারলো। মুগ্ধ ততক্ষণে ঘুরে গেছে। গাড়ির দরজা খুলে ভেতরে ঢুকলো। তারপর চলে গেল। যতক্ষণ গাড়িটা দেখা যাচ্ছিল ততক্ষণ তাকিয়ে রইলো তিতির। মুগ্ধ চোখের সীমানার বাইরে যেতেই উপরে চলে গেল। দু’বার বেল দেয়ার পরও কেউই দরজা খুলছে না। তিতিরের কষ্ট হচ্ছিল দূর্বল শরীরে দাঁড়িয়ে থাকতে। এরপর তিতির কলিং বেলের সুইচটা অনেকক্ষণ চেপে ধরে রইলো। তখন চম্পা এসে দরজা খুলে দিয়ে আবার দৌড়ে চলে গেল ড্রইং রুমে। তিতির দরজা আটকে ড্রইং রুমের দরজায় দাঁড়াতেই দেখতে পেল মা ডিভানে শুয়ে আছে, বাবা আর ভাবী সোফায় বসে। আর চম্পা ফ্লোরে বসে আছে। যে যেখানে যেভাবেই থাক না কেন সবার মনোযোগ টিভির দিকে। টিভিতে একটা ইন্ডিয়ান বাংলা সিরিয়াল চলছে। যেখানে এই মুহূর্তে একটা ছেলেকে কোন এক পার্টিতে তার শ্বশুর সবার সামনে অপমান করছে। একটা মেয়ে কাঁদছে, মেয়েটা সম্ভাবত ছেলেটার স্ত্রী। মা উত্তেজনায় শোয়া থেকে উঠে বসে বলল,
-“দেখসো দেখসো কি ভাল ছেলেটাকে কিভাবে অপমান করতেছে। অমানুষ একটা, আরে ব্যাটা খালি টাকাই দেখলি! নিজের মেয়েটার সুখের দিকে তাকাইলি না!”
তিতিরের মুখে তাচ্ছিল্যের হাসি ফুটে উঠলো। হায়রে জীবন! একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে নিজের ঘরে চলে গিয়ে দরজা লাগালো।
আয়না ধরে নিজের ঠোঁটের দিকে তাকিয়ে আছে তিতির। মাত্র কিছুক্ষণ আগে মুগ্ধ ছিল এখানে। নিজেই নিজের ঠোঁট স্পর্শ করলো। মুগ্ধকেই অনুভব করতে পারছে। ইশ কি সুখ দিল মুগ্ধ। আচ্ছা, মুগ্ধর যখন অন্য কারো সাথে বিয়ে হয়ে যাবে তখনও কি মুগ্ধ এভাবেই সুখ দেবে ওর বউকে? হয়তো দেবে না, কিন্তু সত্যি যদি দেয়! তাহলে সেটা কিভাবে সহ্য করবে তিতির? ধুর, তিতির তো জানবেই না তো সহ্য করার ব্যাপারটা আসছে কোত্থেকে? কিন্তু এসব তো শুধু ওর অধিকার, অন্য কাউকে পেতে দেবে না ও। মুগ্ধর শেষ কথাটা কানে বাজছিল। ‘আরেকবার চেষ্টা করো’। কিন্তু কিভাবে চেষ্টা করবে ও? কম চেষ্টা তো করেনি।
রাতে খাওয়ার টেবিলে বাবা বলল,
-“তিতির মা..”
তিতির বাবার উল্টোদিকে ঠিক মুখোমুখি বসা ছিল। বাবার দিকে তাকিয়ে বলল,
-“জ্বী বাবা, বলো?”
-“তোর চাচ্চু তোর জন্য যে প্রপোজাল টা এনেছিল সেটা কিন্তু এসলেই ভাল। ছেলেটা তোর ছবি দেখে তোকে খুবই পছন্দ করেছে। এখনো বিয়ে করেনি। একবার কথা বলে দেখ, ভাল লাগতেও তো পারে। ছেলেটা কিন্তু অসাধারণ, লাখে একটা যাকে বলে।”
তিতির মুখের ভাতটুকু শেষ করে স্পষ্ট স্বরে বলল,
-“বাবা, আমি বিয়ে করলে মুগ্ধকেই করবো এবং তোমাদের সম্মতিতেই। অন্য কাউকে বিয়ে করা আমার পক্ষে সম্ভব না। আমাকে কেটে ফেললেও আমি অন্য কাউকে বিয়ে করবো না।”
মা টেবিলের উল্টোদিকে বসে ছিল। উঠে এসে তিতিরের গালে একটা চড় মারলো। এত জোরে মারলো যে তিতির টাল সামলাতে না পেরে পাশে বসে থাকা ভাবির গায়ের উপর গিয়ে পড়লো। মা বলল,
-“কোন বিয়েসাদির দরকার নেই তোর। এমনি থাকবি আজীবন। মাস্টার্স কম্পলিট হলেই চাকরী খুঁজবি। বিয়ে দেব না তোকে।”
মা একথা শেষ করেই আবার নিজের চেয়ারে বসে খাওয়া শুরু করলো। তিতির উঠে সোজা হয়ে বসতেই তান্না বলল,
-“বাবা, আজীবন লক্ষী মেয়ে লক্ষী মেয়ে বলেছ না? দেখো এখন তোমার লক্ষী মেয়ের অধঃপতনের নমুনা।”
তিতির উঠে নিজের ঘরে চলে গেল। দরজা লাগিয়ে ফ্লোরে বসে কাঁদতে লাগলো। কেউ পেছন থেকে ডাকলো না আজ। অথচ আগে ও একবেলা না খেয়ে ঘুমাতে পারতো না। ঘুমিয়ে পড়লেও মা নাহয় ভাইয়া প্লেটে করে ভাত এনে ওর মুখে তুলে খাইয়ে দিত। ও ঘুমের ঘোরেই খেত। ওর ফ্যামিলির কেউ কখনো ওর কোন কিছুতে বাধা দেয়নি, কখনো খোঁচা দিয়ে কথা বলেনি গায়ে হাত তোলা তো বহুদূরের কথা। মাত্র কিছুদিনের ব্যাবধানে সবকিছু কেমন বদলে গেল।
তারপর আরো কয়েক মাস পার হয়ে গেল। এর মধ্যে মুগ্ধ অনেকদিনই ফোন করেছে, তিতির কখনো ধরেছে, কখনো ধরেনি। ধরে কি বলবে সেই তো এক কথা নিয়ে তর্কাতর্কি হবে। কি লাভ এসব করে! কিন্তু একদিন রাতে ইন্টারনেট অন করতেই হোয়াটস এ্যাপে মেসেজ এল। মুগ্ধর নাম দেখেই বুকটা কেঁপে উঠলো তিতিরের। মুগ্ধ একটা অডিও পাঠিয়েছে। তিতিরের মন বলে, ‘তারাতারি প্লে কর তিতির’। আর ওর ব্রেইন বলে, ‘খবরদার তিতির, ভুলেও প্লে করিস না। মরবি মরবি।’ শেষপর্যন্ত মনেরই জয় হলো। তিতির অডিওটা প্লে করতেই মুগ্ধর গিটারের টুংটাং শুরু হয়ে গেল। তারপর গান….
“যে কটা দিন তুমি ছিলে পাশে,
কেটেছিল নৌকার পালে চোখ রেখে।
আমার চোখে ঠোঁটে গালে
তুমি লেগে আছো..
যেটুকু রোদ ছিল লুকোনো মেঘ
দিয়ে বুনি তোমার শালে ভালবাসা,
আমার আঙুলে হাতে কাধে
তুমি লেগে আছো..
তোমার নখের ডগায় তীব্র প্রেমের মানে,
আমিও গল্প সাজাই তোমার কানে কানে,
তাকিয়ে থাকি হাজার পরদা ওড়া বিকেল,
শহর দুমড়ে মুচড়ে থাকুক অন্য দিকে।
ট্রাফিকের এই ক্র্যাকার ফোনই..
আমাদের স্বপ্ন চুষে খায়।
যেভাবে জলদি হাত মেখেছে ভাত
নতুন আলুর খোসার এই ভালবাসা,
আমার দেয়ালঘড়ি কাঁটায়
তুমি লেগে আছো..
যেমন জড়িয়ে ছিলে ঘুম ঘুম বরফ পাশে,
আমিও খুঁজি তোমায় আমার আশেপাশে,
আবার সন্ধ্যেবেলা ফিরে যাওয়া জাহাজ পাশে,
বুকে পাথর রাখা আর মুখে রাখা হাসি,
যে যার নিজের দেশে
আমরা স্রোত কুড়োতে যাই।
যেভাবে জলদি হাত মেখেছে ভাত
নতুন আলুর খোসার এই ভালবাসা
আমার দেয়ালঘড়ি কাঁটায় তুমি লেগে আছো।
যে কটা দিন তুমি ছিলে পাশে
কেটেছিল নৌকার পালে চোখ রেখে
আমার চোখে ঠোঁটে গালে
তুমি লেগে আছো।”
গানটা শুনে নিজেকে ধরে রাখতে পারলো না তিতির। কান্নায় ভেঙে পড়লো তিতির। গানটার প্রত্যেকটা শব্দ যেন ওদের জন্যই লেখা হয়েছে। ও আগেও বহুবার শুনেছে এই গানটা, তখন ওর এরকম ফিলিং হয়নি। মুগ্ধও যেন একটু বেশিই আবেগ দিয়ে গেয়েছে। কেন মুগ্ধ এমন করছে! মুগ্ধ এমন করলে ও বাঁচবে কি করে? মুগ্ধ কি একটুও বোঝে না? মুগ্ধকে দেখতে ইচ্ছে করছে। কিন্তু কিভাবে দেখবে! একটা ছবিও তো নেই। মুগ্ধর ছবিওয়ালা ফোন, মেমরি কার্ড সবই তো কেড়ে নিয়ে ভেঙে ফেলেছিল ভাইয়া। মুগ্ধ তো ইদানীং ফেসবুকও ইউজ করে না। শুধু হোয়াটস এ্যাপের এই ছবিটা দেখে তো মন ভরছে না তিতিরের। কোনভাবে রাতটা পার করলো। তারপর সকাল সকাল উঠেই ৮ টার মধ্যে রেডি হয়ে বের হয়ে গেল তিতির। সিএনজি নিয়ে ৯:১৫ এর মধ্যেই তিতির পৌঁছে গেল মুগ্ধর অফিসের সামনে। না মুগ্ধর সামনে যাবে না, শুধু দূর থেকে একবার দেখেই চলে যাবে। মুগ্ধর অফিস ১০ টায়। কখন আসবে কে জানে। মাত্র সকাল হলো এখনি রোদ খা খা করছে। ওড়নাটা মাথায় তুলে ঘোমটা দিয়ে নিল। মুগ্ধর অফিসের ঠিক অপজিটে একটা বিউটি স্যালুন। তার সামনে একটা গাছের আড়ালে দাঁড়ালো তিতির। মুগ্ধ যেদিক দিয়েই আসুক না কেন তিতির ওকে দেখতে পাবে। প্রায় আধাঘন্টা অপেক্ষা করার পর পৌনে ১০ টার দিকে দেখলো মুগ্ধর গাড়িটা এসে অফিসের সামনে থামলো। গাছের আড়াল থেকেই লুকিয়ে দেখছিল তিতির। রাস্তার এপাশ-ওপাশ হলেও দুরত্ব অনেক। তবু তিতিরের দেখতে প্রব্লেম হচ্ছিল না। মুগ্ধ গাড়ি নিয়ে বেজমেন্টে চলে গেল। হায় খোদা! যদি বেজমেন্ট থেকেই লিফটে উঠে যায় তাহলে তো ও দেখতেই পাবে না। না মুগ্ধ বেজমেন্ট থেকে ফিরে এল। সিকিউরিটির সাথে কথা বলছে। সাদা শার্ট, কালো প্যান্ট, টাই, সানগ্লাস সব মিলিয়ে কি যে দারুন লাগছে মুগ্ধকে! শুধু তাকিয়েই থাকতে ইচ্ছে করছে। মুগ্ধ সিকিউরিটির সাথে কথা বলা শেষ করে হাসছিল। ইশ কি মারাত্মক সে হাসি! কতদিন পর দেখছে তিতির। অবশেষে মুগ্ধ ভেতরে চলে গেল। এক পা ভেতরে দিয়েই আবার ফিরে এলো। আশেপাশে তাকালো, কি খুঁজছে ও? পকেট থেকে ফোন বের করলো। তারপর পরই তিতিরের ফোনে কল এলো। মুগ্ধ ফোন করেছে! ভাগ্যিস ফোনটা সাইলেন্ট ছিল। কিন্তু মুগ্ধ কি কিছু বুঝতে পারলো নাকি এমনিতেই ফোন করেছে? কি করবে ফোন কি ধরবে নাকি ধরবে না? ভাবতে ভাবতেই কলটা কেটে গেল। মুগ্ধ বিরক্ত হয়ে আবার কল দিল। তিতির কি করবে কি করবে করেও কলটা রিসিভ করেই ফেলল।
-“হ্যালো।”
-“হ্যা, হ্যালো তিতির.. তুমি কোথায়?”
-“এইতো ক্যাম্পাসে যাচ্ছি। এত সকালে তুমি?”
-“আসলেই ক্যাম্পাসে যাচ্ছো?”
-“হ্যা, ক্লাস আছে।”
এমন সময় মুগ্ধর সামনে দিয়ে একটা গাড়ি গেল। যার ভেতর গান বাজছে,
“Nothing gonna change my love for u…”
গানটা মুগ্ধ একই সাথে ফোনের মধ্যেও শুনতে পেল। ব্যাস মুগ্ধ এখন সিওর তিতির আশেপাশেই আছে। মুগ্ধ আশেপাশে হাটছে আর খুঁজছে। বলল,
-“তিতির, সিরিয়াসলি বলো.. তুমি কোথায়? তুমি কি বনানী? যদি এসে থাকো তো মিট মি প্লিজ। আমি তোমাকে দেখতে চাই।”
-“না, আমি বনানী কেন আসতে যাব? আমি ধানমন্ডিতে।”
এমন সময় মুগ্ধ দেখে ফেলল তিতিরকে। এক দৌড় দিল রাস্তা ক্রস করার জন্য। অর্ধেকটা আসতেই একটা গাড়ি এসে পড়লো, তিতির আঁৎকে উঠলো। মুগ্ধ থেমে গেল। গাড়িটা চলে যেতেই মুগ্ধ আবার দৌড় দিল। এক দৌড়ে তিতিরের সামনে। তিতির কোথায় যাবে বুঝে উঠতে পারলো না। এমনভাবে ধরা খাবে ভাবেনি। মুগ্ধ বলল,
-“পাবলিক প্লেস না হলে এমন একটা চড় মারতাম এখন তোমাকে যে জীবনে ভুলতে পারতে না। ফাজিল মেয়ে, যেমন ভাই তেমনি তার বোন।”
তিতিরের কান্না পেল, কিন্তু কাঁদলো না। একটুও রাগ করলো না। তিতির জানে এটা মুগ্ধর ভালবাসা প্রকাশেরই একটা ধরণ।
মুগ্ধ আর অফিসে গেল না। ফোন করে ছুটি নিয়ে নিল। তিতিরকে নিয়ে হাইওয়েতে চলে গেল। একসময় মুগ্ধ বলল,
-“এমন আর কখনোই করোনা তিতির। জানো তোমাকে একটা বার দেখার জন্য আমার মনটা কেমন করে? আর তুমি কিনা লুকিয়ে লুকিয়ে আমাকে দেখে চলে যাও। এমন করে কি লাভ বলো?”
তিতির একথার উত্তর না দিয়ে পালটা প্রশ্ন করলো,
-“একটা কথা রাখবে?”
-“কি?”
-“আগে এটা জিজ্ঞেস করলে বলতে ‘বলো’ আর এখন বলছ ‘কি?’ এখন আর আগের মত ভরসা নেই তোমার।”
-“আরে না না পাগলী! আমি তো অন্য কথা বলছিলাম হঠাৎ তুমি অন্য কথা বলায় জিজ্ঞেস করে ফেলেছি। বলো কি কথা রাখতে হবে।”
-“আমি প্রায় ১ বছর ধরে বাসায় বন্দী। কেউ বেধে রাখছে না, কিন্তু নিজেই বের হইনা। প্রায় প্রতিদিনই কথা শুনতে হচ্ছে বাসায়। আর পারছি না। আমাকে একটু কোথাও নিতে যাবে?”
-“হ্যা বলো কোথায় যেতে চাও।”
-“ঢাকার বাইরে, একদিনের জন্য জাস্ট। একটু রিফ্রেশড হতে চাই।”
মুগ্ধ অবাক হয়ে বলল,
-“মানে? ঢাকার বাইরে যাবে? তোমার ফ্যামিলি জানলে…”
আর বলতে দিল না তিতির। মুখ চেপে ধরলো। তারপর বলল,
-“একটা দিনের জন্য আমি সবকিছু থেকে দূরে চলে যেতে চাই। যেখানে ফ্যামিলি থাকবে না, প্রব্লেম থাকবে না, দুশ্চিন্তা থাকবে না, ভয় থাকবে না, শুধু তুমি আর আমি থাকবো। নিয়ে যাবে না?”
-“হুম নিয়ে যাব। কবে যাবে বলো?”
-“এক্ষুনি।”
-“মানে? এখন যাবে? বাসায় বলে এসেছো?”
-“নাহ, আজ আমার গ্রুপ স্টাডির জন্য ফ্রেন্ডের বাসায় থাকার কথা ছিল। সেই হিসেবেই আমি বলে বেড়িয়েছিলাম। গত পরশু ও আমার বাসায় ছিল। প্রব্লেম নেই। আর আমার আসলে এই মুহূর্তেই মনে হলো কোথাও গেলে ভাল লাগবে। সুযোগও আছে কিন্তু তুমি ছুটি কি পাবে?”
-“আজ তো ছুটি নিয়েই নিয়েছি।”
-“কিন্তু আজ তো থাকবো। কাল আসবো। কালকের ছুটি নিতে হবে না?”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“মাথাটা গ্যাছে না? কাল শুক্রবার।”
-“ওহ, আমার খেয়ালই ছিল না।”
-“ওকে, কোথায় যাবে বলো।”
-“তুমি যেখানে নিয়ে যাবে।”
-“কক্সবাজার?”
-“ধুর, ওটাতো আরেক ঢাকা। খালি বিল্ডিং আর বিল্ডিং।”
-“তাহলে?”
-“এনি আদার অপশন?”
-“পাহাড়ে তো কতই গিয়েছি দুজনে। চলো এবার সিলেটে যাই। ওখানে আমাদের একসাথে যাওয়া হয়নি। পাহাড়, নদী, ঝড়না সবই আছে।”
-“আচ্ছা।”
-“কিন্তু আমি তো উলটো এসে পড়েছি। এমন সৌভাগ্য হবে জানতামও তো না।”
-“এখন ঘুরে যাও।”
মুগ্ধ গাড়ি ঘোরালো। তিতির বলল,
-“আমি যদি ঘুমাই তুমি কি রাগ করবে?”
-“রাগ কেন করবো?”
-“এত লম্বা জার্নি, আমি ঘুমাবো আর তুমি এতটা রাস্তা একা একা বোর হয়ে ড্রাইভ করবে।”
-“আরে নাহ পাগল, তুমি পাশে থাকলে কিছুতেই আমি বোর হইনা।”
-“তবু, আচ্ছা চলো বাসে যাই। তাহলে তোমাকে কষ্ট করে ড্রাইভ করতে হবে না।”
-“না বাসে গেলে যেতে যেতে রাত হয়ে যাবে, গাড়িতে গেলে দুপুরের মধ্যে পৌঁছতে পারবো। আর তুমি তো জানো ড্রাইভ করতে আমার অনেক ভাল লাগে।”
-“আচ্ছা। বাসায় জানাবে না?”
-“পরে। যখন ব্রেক নেব তখন জানিয়ে দেব।”
-“আচ্ছা।”
এরপর তিতির মুগ্ধর দিকে ফিরে সিটে হেলান দিয়ে মুগ্ধর একটা হাত টেনে নিয়ে জড়িয়ে ধরে বলল,
-“এক হাতে চালাতে পারবে?”
-“হুম। তো কয়হাত লাগবে?”
-“তাহলে এই হাতটা আমার কাছেই থাকুক? আমি একটু ঘুমাই। জানো অনেক রাত ধরে ঘুমাতে পারি না আমি। এখন তোমার স্মেল নিয়ে নিয়ে ঘুমাবো, ঘুমাই?”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“ঘুমাও।”
তিতির শুনতে পেল না মুগ্ধর শেষ কথাটা। কারন ও ততক্ষণে ঘুমে তলিয়ে গেছে। মুগ্ধর হাত-পা কাঁপছে। আজ কতদিন পর তিতির স্বাভাবিক ব্যাবহার করছে ওর সাথে। ঘুরতে যেতে চেয়েছে! তাও আবার ঢাকার বাইরে! ইভেন যাচ্ছেও! কি যে ভাল লাগছে মুগ্ধর। মুগ্ধ জানে এ ভাললাগা ক্ষণিকের তবু যতটুকু পাওয়া যায় ততটুকুতেই সুখ।
To be continued…
Tagged : / /

প্রেমাতাল পর্ব – ৩৫ || মৌরি মরিয়ম

প্রত্যেকটা
মানুষই সবকিছুর একটা নির্দিষ্ট স্টক নিয়ে পৃথিবীতে আসে। সেই স্টক শেষ হয়ে গেলে
যেমন আর পাওয়া যাবে না তেমনি শেষ না হলেও মৃত্যুর আগে যেভাবেই হোক শেষ হতে হবে।
তিতিরের সুখের স্টক শেষ বোধহয়। আর কষ্টের স্টকে তো হাতই পড়েনি এতদিন। ছোটবেলা থেকে
কেঁদেছে অনেকবারই তবে সেটা শুধুই সুখে
,আবেগে। আজ থেকে যে
কষ্টের কান্না শুরু
, বুঝতে
অসুবিধা হলো না তিতিরের। এটাও বুঝতে পারছে মুগ্ধকে ও কখনোই পাবে না। তবু মৃত্যুর
আগ পর্যন্ত চেষ্টা করে যাবে।

মাঝরাতে
আবার ফোন করলো মুগ্ধ। তিতির বলল
,
-“
ঘুমাওনি
কেন
? সকালে
অফিস নেই
?”
-“
কাল
শনিবার।”

-“

হ্যা। খেয়াল ছিল না।”

-“
তোমাকে
বাসা থেকে এখনো কিছুই বলেনি
?”
-“
বলেছে।”
-“
কি
বলেছে
?”
কে
কি বলেছে সবটা মুগ্ধকে খুলে বলল তিতির। সব শুনে মুগ্ধ বলল
,
-“
সো
নাও ইউ হ্যাভ জাস্ট
2 অপশনস
টু পিক ওয়ান।”

তিতির
চুপ করে রইল। মুগ্ধ বলল
,
-“
তো
কি ডিসিশান নিলে
?”
তিতির
চুপ
, মুগ্ধও
কিছু বলল না.. সময় দিল। কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে তিতির বলল
,
-“
তোমাকে
বিয়ে করলে আমার ফ্যামিলি ছাড়তে হবে। সেটা তো পারব না আমি।”

-“
জানতাম
আমি।”

-“
আমি
তোমাকেও অনেক ভালবাসি কিন্তু বাবা-মা ছোটবেলা থেকে কত কষ্ট করেছে আমার জন্য তাদের
আমি কষ্ট দিতে পারব না।”

-“
হুম।
কিন্তু তিতির তুমি যদি চলে আসো
, আমরা বিয়ে করে ফেলি
তারপর এক সময় তোমার ফ্যামিলি ঠিকই মেনে নেবে। এখন কষ্ট পেলেও তখন তো সব ঠিক হয়ে
যাবে তাইনা
?”
-“
যারা
পালিয়ে বিয়ে করে তাদের সবারই ফ্যামিলি এক সময় না এক সময় মেনে নেয়। তাই আমরা ভাবি
সব ঠিক হয়ে যায়। কিন্তু আসলে কি ঠিক হয়
? কতটুকু ঠিক হয় বলো তো? বাবা-মায়ের মনে যে
ক্ষতর সৃষ্টি হয় সেটা কি কখনো মিলিয়ে যায়
? যায়না, হয়তো সন্তানের মুখ চেয়ে
মেনে নেয় একসময়। কিন্তু ক্ষতটা ভেতরে রয়েই যায়।”

মুগ্ধ
ভাবলো
, বাহ
তিতির বড় হয়ে গেছে! এই চিন্তাটা মুগ্ধর মাথায় আসা উচিৎ ছিল
, কিন্তু আসেনি। আসলো
তিতিরের মাথায়। তিতির ওকে চুপ থাকতে দেখে বলল
,
-“
কিছু
বলো
?”
-“
আমার
আর কিছু বলার নেই। যা ভাল মনে হয় করো।”

এভাবেই
চলতে থাকলো
, তখন
প্রতিদিন ওদের কথা হত। কেমন আছো কি করোর পর ওদের কথা ফুরিয়ে যেত। তারপর শুধু শুধু
কতক্ষণ ফোন কানের কাছে ধরে রেখে তারপর রেখে দিত। মুগ্ধ কোনো ফাজালামো করতে পারতো
না। তিতিরও তেমন কথা খুঁজে পেত না। ওরা একসাথে থাকলেও ওদের জীবনে কোন সুখ ছিল না।
এভাবে কিছুদিন যাওয়ার পর কথায় কথায় হুট করে একদিন মুগ্ধ রেগে গিয়ে বলল
,
-“
যেইনা
ফ্যামিলি তার জন্য আবার জান দিয়ে দিচ্ছে। আমার জীবনে আমি এত ফালতু ফ্যামিলি
দেখিনি।”

তিতির
অবাক হয়ে বলল
,
-“
কি
বললে তুমি
?”
-“
যা
বলেছি একদম ঠিক বলেছি। তোমার ফ্যামিলির কাছে নিজেদের ইগোর মূল্য সবচেয়ে বেশি।
তোমার সুখ কিচ্ছু না।”

তিতির
কিছু না বলে ফোন কেটে দিল। হঠাৎই পায়ের তলা থেকে একদল কীট যেন ঢুকে গেল পায়ের
ভেতর। পা থেকে সমস্ত শিরা
,উপশিরা
বেয়ে বেয়ে রকেটের গতিতে বুকের মধ্যে উঠে এসে একটা মোচড় দিয়ে আবার বেয়ে বেয়ে উঠে
গেল মাথায়। তারপর আবার একটা মোচড় দিয়ে পানির রূপ ধরে বেড়িয়ে এল চোখ দিয়ে! মুগ্ধ
এভাবে কথা বলল ওর সাথে
? তিতির
জানে ওকে ছাড়া থাকতে মুগ্ধর কষ্ট হয়। ওর কি কষ্ট হয়না
? এতবড় পৃথিবীতে একমাত্র
মুগ্ধই তো ছিল ওকে বোঝার মানুষ। এখন সেও বুঝতে পারছে না!

মুগ্ধ
সাথে সাথেই আবার কল দিল। কয়েকবার ধরলো না তিতির। কিন্তু মুগ্ধ একের পর এক কল করেই
যাচ্ছে। অবশেষে না ধরে থাকতে পারলো না। তিতির ভেবেছিল মুগ্ধ সরি বলার জন্য ফোন
করছে। কান্নাটা কোনভাবে থামিয়ে
, চোখ মুছে ফোনটা ধরলো।
মুগ্ধকে কিছুতেই বুঝতে দেয়া যাবে না যে ও কাঁদছিল। কিন্তু ফোন ধরতেই মুগ্ধ ঝাড়ি
দিয়ে বলল
,
-“
কথা
বলছি তার মধ্যে না বলে ফোন কাটলে কেন
?”
-“
এমনি।”
-“
এমনি
মানেটা কি
? ফ্যামিলি
তোমার একলারই আছে
? আর
কারো নেই
?”
-“
সবারই
ফ্যামিলি আছে আর সবার ফ্যামিলির প্রতিই তাদের দূর্বলতা আছে। তাই আমার ফ্যামিলি
নিয়ে আর আজেবাজে কথা বলোনা।”

-“
কেন
বলবো না
? তোমার
তোমার ভাই ইচ্ছেমত বাবা-মার ব্রেইন ওয়াশ করবে আর তারা কিছু যাচাই না করেই ওয়াশড
হবে। তোমার ভাই তাদের ছেলে আর তুমি কি কুড়িয়ে পাওয়া মেয়ে যে তোমার দিকটা দেখবে না
?”
-“
তোমার
সাথে কথা বলার আর কোন ইচ্ছে আমার নেই।”

-“
তোমার
সাথে কথা বলার জন্য লাগে আমি বসে আছি
? ফোন রাখো!”
শেষের
ফোন
রাখো
টা
মুগ্ধ প্রচন্ডভাবে ধমকে বলল। তিতির বলল
,
-“
তুমি
রাখো।”

-“
আর
একটা কথা বললে তোমার ভাইরে আমি খুন করবো। এক্ষুনি ফোন রাখো।”

-“
আমি
ফোন দিয়েছি মনে হয়
? তুমি
ফোন দিয়েছো
, তুমিই
ফোন রাখবে।”

-“
ধুর
বা*।”

একথা
বলেই ফোন রেখে দিল মুগ্ধ। আবার কান্নায় ভেসে গেল তিতির। আচ্ছা ঠিকাছে এই ব্যাবহার
করলো তো মুগ্ধ
? মনে
থাকবে।

আশ্চর্যজনকভাবে
তিন চারদিন চলে গেল অথচ মুগ্ধ একবারও ফোন করলো না। থাকতে না পেরে তিতিরই কল করলো।
ওই নাহয় প্রথমে সরি বলবে। কিন্তু কল ঢুকছে না। তিতির অবাক হলো। অনেকবার ট্রাই
করলো। কিন্তু কল ঢুকছেই না! ভাবীর রুমে গিয়ে ভাবীর ফোন থেকে কল করতেই কল ঢুকলো।
এবং মুগ্ধ সেই কল রিসিভও করলো। কথা না বলে কেটে দিল তিতির। ভাবীকে বলল
,
-“
যদি
কল ব্যাক করে তো বলবে নাম্বার টাইপ করতে গিয়ে ভুল করে ফেলেছিলে। পরে অপরিচিত গলা
শুনে কেটে দিয়েছো।”

-“
কে
মুগ্ধ ভাইয়া
?”
তিতির
দীর্ঘশ্বাস লুকিয়ে বলল
,
-“
হ্যা।”
-“
রাগারাগি
হয়েছে
?”
তিতির
ম্লান হেসে বলল
,
-“
সব
তো শেষই
, এখন
রাগারাগি হলেই কি আর না হলেই কি!”

ভাবী
অসহায়ের দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলো। তিতির নিজের ঘরে চলে এল। তার মানে মুগ্ধ ওকে ব্লক
করে রেখেছে। ফেসবুকে ঢুকলো ম্যাসেজ করার জন্য। কিন্তু মেসেজ গেল না। মুগ্ধ ওকে
ফেসবুকেও ব্লক করে দিয়েছে! কতক্ষণ অবাক হয়ে চেয়ে রইলো। ও পারে পিউ বা মা কে কল
করতে। কিন্তু করবে না। কেন করবে
? মুগ্ধ তো ইচ্ছে করেই
সবকিছু থেকে ব্লল কিরেছে যাতে ওর সাথে আর কথা বলতে না হয়। ঠিকাছে মুগ্ধ পারলে ও
অবশ্যই পারবে। তিতির সিদ্ধান্ত নিল কোনভাবেই আর মুগ্ধর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা
করবে না। যেদিন মুগ্ধ নিজ থেকে যোগাযোগ করবে সেদিন মুখ ঘুরিয়ে থাকবে
, খুব কথা শুনিয়ে দেবে
সেদিন।

সারাটা
দিন মাস্টার্সের ক্লাস আর ফ্রেন্ডস নিয়ে ব্যস্ত থাকতো তিতির। কিন্তু রাতটা কাটতেই
চাইতো না। একটা রাতও শান্তিতে ঘুমাতে পারেনি তিতির। ঘুম তো আসতোই না
, কোনভাবে ঘুমিয়ে পড়লেও
দুঃস্বপ্ন দেখে ঘুম ভেঙে যেত। আগে এত স্বপ্ন দেখতো না। ইদানিং বেড়েছে। মানুষের মন
যত বেশি অশান্তিতে থাকে তত বেশি স্বপ্ন দেখে একথা বুঝি আসলেই সত্যি।


মাস পর যেদিন মুগ্ধ ফোন করলো তিতিরকে কোনো কথাই শোনাতে পারেনি সেদিন ও। পারেনি
কোনো অভিমান করতে
, পারেনি
আহ্লাদ করতে
, এমনকি
পারেনি ওর সামনে কাঁদতেও। যেন অনেক দূরের মানুষ। কঠিন হয়ে থাকতে পেরেছিল শুধু।
সেদিন মুগ্ধ বলেছিল
,
-“
সরি
তিতির
, লাস্ট
যেদিন আমাদের কথা হয়েছিল সেদিন আমি তোমার সাথে অনেক খারাপ ব্যাবহার করেছি।”

তিতির
বলেছিল
,
-“

মাস পর সরি ফিল করলে
?”
-“
নাহ, ২/৩ দিন পরেই সরি ফিল
করেছিলাম কিন্তু ইচ্ছে করেই ফোন করিনি। তোমাকেও ব্লক করে রেখেছিলাম কারন যেহেতু
দূরেই থাকতে হবে তাই অভ্যাস করছিলাম।”

-“
বাহ
ভালই তো। তা অভ্যাস ভেঙে ফোন করতে গেলে কেন
?”
-“
আসলে
আমার মোবাইলে তোমার যে ছবিগুলো ছিল ওগুলো পিসিতে রেখে ডিলিট করে দিয়েছিলাম। যাতে
সবসময় সামনে না পরে। সামনে পড়লেই তো দেখতে থাকি আর মায়া বাড়ে। নিজেকে কন্ট্রোলে রাখার
জন্যই এসব করেছিলাম। আজ হঠাৎই তোমার একটা ছবি সামনে পড়লো। তারপর লোভ হলো অন্য
ছবিগুলো দেখার
, দেখলাম।
তারপর লোভ আরো বাড়লো তোমার ভয়েস রেকর্ডিং গুলোও শুনলাম। তারপর তোমাকে লাইভ শোনার
লোভ হলো। আর থাকতে না পেরে কল করলাম। এখন তোমাকে লাইভ দেখার লোভ হচ্ছে।”

-“
এতদিন
যখন কন্ট্রোলে রাখতে পেরেছো তো এখনো পারবে
, বাকী জীবনটাও
পারবে।”

-“
হুম, কন্ট্রোল করার চেষ্টা
করেছি
, করতে
তো আর পারলাম না। অনেক কষ্ট হয়েছে এই ৫ টা মাস। জানি তোমারও কষ্ট হয়েছে। অনেক কষ্ট
দিয়েছি
, ক্ষমা
করো।”

-“
না
না একদম ঠিকই করেছো তুমি। ৫ মাস যে পারে সে সারাজীবনও পারবে।”

-“
ওকে
বাট
, এটলিস্ট
স্কাইপে তে আসো
?”
তিতিরের
বুক ফেটে কান্না পাচ্ছিল তখন কিন্তু কান্নাটা চেপে রাখলো। বড্ড অভিমান হলো। ইশ ৫
টা মাস একটা কথা না বলে থেকেছে আর এখন এসেছে চেহারা দেখতে! চিন্তা করলো বেঁচে
থাকতে এ চেহারা আর দেখাবে না মুগ্ধকে। বলল
,
-“
না
স্কাইপে তে আসতে পারবো না। ইন্টারনেট নেই।”

তারপর
থেকে গত দুই মাসে মুগ্ধ অনেকবারই ফোন করেছে। প্রথম কয়েকবার ফোন ধরেনা তিতির
, তারপর ঠিকই ধরে, না ধরে পারেনা। কিন্তু
দুজনের কথাবার্তা যতক্ষণ হয় এধরণের কথাই হয়। তিতিরের অভিমানটা একসময় চলে যায়
কিন্তু তবু শক্ত থাকে কারন ও জানে ওর ফ্যামিলি মানবে না। তাই আর জড়াতে চায় না। যত
জড়াবে কষ্ট তত বাড়বে। মুগ্ধ জানে তিতির কেন এত স্ট্রং হয়ে থাকে
, ও জানে তিতির যত কাটা
কাটা কথাই বলুক না কেন ওর বুকের মধ্যে মুগ্ধর জন্য যে ভালবাসা ছিল তা আজও আছে।
সেখানে অনেক বরফ জমিয়ে ফেলেছে মুগ্ধ
, এখন গলাতেও হবে ওরই।
তাই হাল ছাড়েনি।

সন্ধ্যা
প্রায় হয়ে এসেছে। তিতির এখনো ওঠেনি। এরপর না গেলে ওর বাপ-ভাই খোঁজাখুঁজি শুরু করে
দেবে। তখন আরেক অসান্তি হবে। মুগ্ধ তিতিরের মাথার কাছে বসে চুলের ভেতর হাত বুলিয়ে
ডাকলো
,
-“
তিতির? এই তিতির?”
তিতির
উঁ করে নড়ে উঠলো। মুগ্ধ বলল
,
-“
উঠবে
না
?”
-“
না।”
তিতিরের সেই
ঘুমন্ত কন্ঠস্বর যা শুনলে শরীরের লোম দাঁড়িয়ে যায় মুগ্ধর। ও তিতিরের মাথাটা বালিশ
থেকে উঠিয়ে নিজের কোলে নিল। তারপর আবার ডাকলো
,
-“
ওঠো
না বাবা
, বাসায়
যেতে হবে তো।”

-“
না
আজকে যাব না
, তুমি
টিকেট ক্যান্সেল করে দাও। আজও আমি তোমার আদর খাব।”

মুগ্ধর
মুখে হাসি ফুটে উঠলো। শরীরে কাঁপন ধরলো। অনেকদিন পর সেই পুরোনো অনুভূতি। যেন আবার
ওরা কোথাও বেড়াতে গিয়েছে। তিতির ঘুমের মধ্যে আহ্লাদ করছে। মুগ্ধ তিতিরকে উঠিয়ে
বুকে জড়িয়ে ধরলো। মাথায় হাত বুলিয়ে বলল
,
-“
পাগলী, এত ভালবাসা লুকিয়ে কেন
রাখো
?”
কিন্তু
তিতির তখনো ঘুমে। মুগ্ধ আরো কয়েকবার ডাকার পর চোখ মেলে তাকালো ওর দিকে। কয়েক
সেকেন্ড পর লাফিয়ে উঠে সরে গেল তিতির। মুগ্ধ কিছু বলল না। তিতির ভাবতে লাগলো ও তো
ছিল রাস্তায়! মুগ্ধর বাড়িতে এল কি করে
? আর ওর বুকের উপরই বা
পড়ে ছিল কেন
? ইশ
বুকটা ধকধক করছে। কতদিন পর মুগ্ধ ওর সামনে! মুগ্ধ বুঝতে পারলো বোধহয় তাই বলল
,
-“
তুমি
রাস্তায় সেন্সলেস হয়ে পড়ে গিয়েছিলে। একটা ছেলে তোমার ফোনের ইমারজেন্সি কললিস্টে
আমার নাম্বার পেয়ে আমাকে ফোন করে। তারপর আমি সেখান থেকে তোমাকে নিয়ে ডক্টরের কাছে
যাই
, সেখানে
তোমাকে ঘুমের ইঞ্জেকশান দেয়া হয়। তারপর আমি তোমাকে এখানে নিয়ে এসেছি ঘুমানোর জন্য।
ওই অবস্থায় তোমার বাসায় দিতে গেলে আমাকে ভেতরে ঢুকতে হতো। তখন তো আরেক গ্যাঞ্জাম
লাগতো। তাই এখানে এনেছি।”

তিতিরের
মনে পড়ে গেল। বলল
,
-“
কোন
রাস্তায় পড়ে গিয়েছিলাম
?”
-“
চেয়ারম্যান
বাড়ি।”

-“
চেয়ারম্যান
বাড়ি কি করে আসলাম
? আমি
তো ছিলাম ধানমন্ডি। লেকের ধার ধরে হাটছিলাম।”

-“
মানে
কি
? তুমি
হাটতে হাটতে ধানমন্ডি থেকে বনানী এসেছো
?”
তিতিরের
মাথাটা ঝিমঝিম করছে। তিতির দুহাতে মাথা চেপে ধরলো। মুগ্ধ ওর হাত ধরে বলল
,
-“
কি
হয়েছে
? খারাপ
লাগছে
?”
তিতির
বলল
,
-“
না
ঠিকাছে।”

-“
আগে
কখনো এমন হয়েছে
?”
-“
নাহ।
আর আমি বাসায় যাব
, অনেক
দেরী হয়ে গেছে।”

-“
আচ্ছা, চলো। তার আগে একটু
হাতমুখ ধুয়ে ফ্রেশ হয়ে নাও। ভাল লাগবে।”

হাতমুখ
ধুয়ে বের হতেই তিতির দেখলো মুগ্ধর মা বসে আছে একটা ট্রে নিয়ে। ট্রে ভর্তি দুনিয়ার
খাবার-দাবার। তিতিরকে দেখেই উনি উঠে এলেন। মাথায় হাত রেখে বললেন
,
-“
ইশ, মা কি চেহারা করেছো? খাওয়াদাওয়া ঠিকমতো
করোনা না
?”
তিতির
একটু হাসার চেষ্টা করল
,
-“
না
না আন্টি খাই তো। আসলে বয়স বাড়ছে তো
, আগের মত অত ছোট তো
নেই।”

-“
এহ
আমার কাছে বয়সের কথা বলছো
? বলোনা।
এই অবস্থা কেন হয়েছে জানিনা ভাবছো
? এত ভেঙে পড়োনা মা।
তোমার ফ্যামিলি যখন মুগ্ধকে মেনে নেবেই না আর তুমিও যখন পারবে না ফ্যামিলি ছেড়ে
আসতে তাহলে সেটাই বাস্তবতা ভেবে মেনে নাও। সুখী হবে।”

তিতির
কিছু বলল না
, মাথা
নিচু করে রইলো। মা বলল
,
-“
এসো
মা একটু ভাত খেয়ে নাও।”

-“
নাহ, আন্টি আমি এখন খাব
না।”

-“
একটা
মাইর দিব ধরে। আমি খাইয়ে দিচ্ছি তোমাকে। খাব না বললে তো হবে না।”

মুগ্ধর
মা তারপর জোর করে খাইয়ে দিল তিতিরকে। মুগ্ধ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখছিল। মা বলল
,
-“
মুগ্ধ, তুইও তো খাসনি। একটু
প্লেটে নিয়ে খেয়ে নে না বাবা।”

মুগ্ধ
একটা প্লেটে অল্প একটু ভাত নিয়ে খেল। তারপর তিতিরকে নিয়ে বের হলো।

তিতির
পাশে বসে আছে। মুগ্ধ ড্রাইভ করছে। মুগ্ধর নিজের গাড়ি। সকালে অফিসে যাওয়ার সময়
নিজেই ড্রাইভ করে যায়। তারপর ড্রাইভার গিয়ে গাড়ি নিয়ে আসে। মা
,পিউ,স্নিগ্ধ ব্যবহার করে।
সন্ধ্যায় ড্রাইভার আবার গাড়ি মুগ্ধর অফিসে দিয়ে আসে। মুগ্ধ ডাইভ করে ফেরে।
প্রথমবার যখন মুগ্ধর প্রমোশন হয় তার পরপরই বাবা মারা যায়। লোন নিতে সাহস পায়নি
তখন। পুরো ফ্যানিলির দায়িত্ব যে এখন ওর উপর! তারপরের বছর আবার প্রোমোশন হয় তখন
মুগ্ধ কারলোন নিয়ে গাড়িটা কেনে। গাড়িতে বসতেই তিতিরের মনে পড়ে গেল এই গাড়িটা নিয়েও
ভাইয়া কত কিছুই না বুঝিয়েছে বাবাকে। এত তারাতারি গাড়ি কিনলো কি করে
? কি এমন চাকরী করে? নির্ঘাত অসৎ পথে আয়
করেছে। বাপ পুলিশ ছিল না
? ম্যাক্সিমাম
পুলিশরাই তো দুই নাম্বার হয়। দুই নাম্বারের ছেলেও হয়েছে দুই নাম্বার। আঙ্কেলের মত
অমন মানুষ সম্পর্কে ওসব কথা শুনে তিতির কান্না করে দিয়েছিল। নিজের ভাইকে বলতে
ইচ্ছে করছিল
, ‘সবাই তোর মত দুমুখো সাপ না। তোর
যোগ্যতা নেই বলে তুই চাকরীতে উন্নতি করতে পারিসনি। বাপের টাকায় ফুটানি মারছিস।
মুগ্ধর যোগ্যতা আছে তাই মুগ্ধ উন্নতি করতে পেরেছে।
কিন্তু বলতে পারেনি
তিতির। ছোটবেলা থেকেই ও কখনো বাসায় কারো মুখের উপর কথা বলেনি। এখনো বলেনা তবু ওকে
পদে পদে শুনতে হয় ও বেয়াদব। কারন ও ফ্যামিলির সবার সামনে দাঁড়িয়ে স্পষ্টভাবে বলতে
পারে
, ‘আমি মুগ্ধকে ভালবাসি।
জ্যামে
পড়লো ওরা। গাড়িতে ওঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত দুজনের একজনও কোন কথা বলেনি। মুগ্ধ
একটা গান প্লে করলো
,
আমার
আকাশ জুড়ে

বিশাল
পাখির ডানা

তোমার
ভেতর দিয়ে আমার আনাগোনা

তোমার
ধমনীতে আতুর হয়ে যখন

চাঁদের
আলোয় ভিজে সামিলে মন যখন

মাঝে
মাঝে একা লাগে..

ভীষন
সুখেও একা লাগে..


অসময়ে একা লাগে..


বালির পথ একা লাগে..

রাত
পেড়িয়ে দিন আসে

দিন
পেরিয়ে রাত

প্রত্যেকদিন
বাড়ছে শুধুই এই অজুহাত।

তোমার
ধমনীতে আতুর হয়ে যখন

চাঁদের
আলোয় ভিজে সামিলে মন যখন

মাঝে
মাঝে একা লাগে..

ভীষন
সুখেও একা লাগে..


অসময়ে একা লাগে..


বালির পথ একা লাগে..

সব
বুঝতে সময় লাগে

ভুল
বুঝতে নয়।

কার
সাধ্য ঘোচাবে

আমাদের
সংশয়
?
তোমার
ধমনীতে আতুর হয়ে যখন

চাঁদের
আলোয় ভিজে সামিলে মন যখন

মাঝে
মাঝে একা লাগে..

ভীষন
সুখেও একা লাগে..


অসময় একা লাগে..


বালির পথ একা লাগে।”

হঠাৎ
তিতির গানটা বন্ধ করে দিল। মুগ্ধ বলল
,
-“
কি
হলো গানটা বন্ধ কেন করলে
?”
-“
গানটা
খুব বাজে ছিল।”

মুগ্ধ
মৃদু হেসে চোখ ফিরিয়ে নিল। বাকী রাস্তাও তিতির আর একটা কথাও বলল না। বিজয় স্মরনী
থেকে ধানমন্ডির দিকে না গিয়ে তেজগাঁর দিকে যেতেই তিতির জিজ্ঞেস করলো
,
-“
ওদিকে
কোথায় যাচ্ছো
?”
-“
এখন
কথা কেন বলছো
? এতক্ষন
যেমন কথা বলার প্রয়োজন মনে করোনি তেমন এখন ও করার দরকার নেই।”

তিতির
বলল
,
-“
বাসায়
যেতে দেরী হলে প্রব্লেম হবে।”

-“
কোন
প্রব্লেম হবে না। সারাদিন তো বাসার বাইরে
, কেউ তো একবার ফোন করে
খবরও নিল না! আর যদি প্রব্লেম হয়ও তাতে আমার কি
?”
তিতির
আর কোন কথা বলল না। আসলেই রাত ১০ বাজলে হয়তো কেউ ফোন করবে তার আগে ইদানিং কারোর
সময়ই হয়না ওকে নিয়ে চিন্তা করার। হাতিরঝিল গিয়ে লেকের ধারে গাড়ি থামালো মুগ্ধ।
তারপর জিজ্ঞেস করলো
,
-“
সমস্যা
কিরে বাবা তোমার
? প্ল্যান
করে দেখা তো করিনি। হঠাৎই দেখা হয়ে গেছে। এখন একটু স্বাভাবিকভাবে কথা বলতেও তোমার
সমস্যা
?”
-“
হ্যা, অনেক সমস্যা।”
একথা
শুনে রাগ ধরে রাখতে পারলো না মুগ্ধ। আচমকা তিতিরের কোমড় জড়িয়ে ধরে তিতিরের ঠোঁটে
চুমু খেল। প্রথমে তিতির ওকে সরিয়ে দিতে চাইছিল। কিন্তু অনেকক্ষণ চেষ্টা করার পরেও
এক ইঞ্চি সরাতে পারলো না মুগ্ধকে। তারপর কি যেন হলো তিতিরের
, তখন ও নিজেও মুগ্ধর
গলাটা জড়িয়ে ধরে সাড়া দিল।
To be continued…

Tagged : / /

প্রেমাতাল পর্ব – ৩৪ || মৌরি মরিয়ম

কাঁদতে কাঁদতে তিতিরের নিঃশ্বাস আটকে যাচ্ছিল। বার বার মনে একটা চিন্তাই ঘুরপাক খাচ্ছিল যে, মুগ্ধকে আর ও পাবেনা। আর ঠিক তখনই ওর চোখে ভেসে উঠছিল মুগ্ধর সাথে কাটানো দিনগুলো, ওদের সব স্পেশাল মুহূর্তগুলো! কত স্বপ্ন, কত প্ল্যানিং, কত কথা দেয়া নেয়া সব এভাবে শেষ হয়ে যাবে? এসব ভাবনার অবসান ঘটালো একটি ফোনকল। রিংটোন শুনে তাকাতেই তিতির দেখলো স্ক্রিনে ভেসে উঠেছে, Mugdho is calling..
লাফিয়ে উঠে ফোন ধরলো তিতির। মুগ্ধর গলায় হ্যালো শুনতেই কান্নাটা আরো বেড়ে গেল। মুগ্ধ বলল,
-“আরে পাগলী এত কাঁদছ কেন? সব ঠিক হয়ে যাবে।”
তিতির কাঁদতে কাঁদতেই বলল,
-“আই লাভ ইউ।”
-“আই লাভ ইউ টু মাই তিতিরপাখি।”
-“তোমার সাথে থাকতে না পারলে আমি মরে যাব। প্লিজ কিছু একটা করো। প্লিজ প্লিজ প্লিজ।”
-“হ্যা, অবশ্যই করবো। তুমি আর কান্না করোনা প্লিজ। দেখো সব ঠিক করে দেব।”
-“জানো কতবার তোমাকে ফোন করেছি! কিন্তু তোমার ফোন বন্ধ ছিল।”
-“হ্য ফোন আছাড় মেরেছিলাম, ভেঙে গেছে, পিউ কুড়িয়ে দিয়েছে অবশ্য কিন্তু অন হচ্ছিল না। অথচ তোমার খোঁজটাও নিতে পারিনি তাই আগের ফোনটা আলমারির চিপা থেকে খুঁজে বের করেছি। যাই হোক তোমার বাসার পরিস্থিতি কি? তান্না তোমাকে স্পিচ দিয়ে দিয়েছে না একটা আমার বিরুদ্ধে?”
-“না, আমি তখনই ঘরে ঢুকে দরজা লাগিয়েছি। কিন্তু তুমি ফোন কেন ভেঙেছো?”
-“আরে ইকরা**টা ফোন করে পিঞ্চ করছিল তোমাদের বাসা থেকে আমাকে রিজেক্ট করেছে সেটা নিয়ে। আমি তো ওর ফোন ধরিনা। তাই আননোন নাম্বার থেকে ফোন করেছে, বোঝো কি পরিমাণ বেয়াদব একটা।”
-“ছিঃ প্লিজ তুমি স্ল্যাং ইউজ করোনা তো।”
-“আমি তো এমনই, খারাপ।”
-“উফ, আজাইরা কথা বলোনা। কিন্তু আমি এটা বুঝতে পারছি না ইকরা আপু এত তাড়াতাড়ি জানলো কি করে?”
-“কিভাবে আবার মা বলেছে। মাঝে মাঝে মা যা করে।”
এতক্ষণে তিতিরের কান্না থেমে এসেছে। বলল,
-“মায়ের উপর কখনো রাগ করোনা। মা তো একটু সহজ সরলই। দুনিয়ার কোন প্যাঁচই বোঝেনা।”
-“না, মায়ের উপর রাগ করিনি।”
-“আচ্ছা, এবার আমাকে বলোতো তোমার আর ভাইয়ার মধ্যে কি হয়েছিল?”
মুগ্ধ কোনো ভনিতা না করে সব বলল। যা ঘটেছিল তার এক বর্ণও চেঞ্জ বা লুকায়নি। উলটো তান্না কি কি বলেছিল আর ও কিভাবে মেরেছিল কি কি গালি দিয়েছিল তার সবটা বলল। মুগ্ধ যতক্ষণ বলছিল তিতির ততক্ষণ একটা কথাও বলেনি। মুগ্ধর বলা শেষ তখনো তিতির চুপ করে রইলো। তারপর মুগ্ধ বলল,
-“তিতির? চুপ করে আছো কেন? কিছু তো বলো।”
তিতির এখন আর মোটেও কাঁদছে না। রাগ হচ্ছে। মুগ্ধর উপরও যেমন রাগ হচ্ছে, ওর ভাইয়ের উপরও রাগ হচ্ছে। বলল,
-“আমাকে ভুলে যাও।”
-“মানে? তিতির আমি জানি আমি যা করেছিলাম ঠিক করিনি কিন্তু তোমার ভাই যেটা করেছিল সেটাও কিন্তু ঠিক করেনি। তুমি এরকম কথা বলোনা তিতির। এতবড় শাস্তি আমাকে দিওনা।”
-“আমি কিছুই করছি না। এতকিছু যখন ঘটে গেছে আমার ফ্যামিলি কখনোই রাজী হবেনা তাই বললাম আমাকে ভুলে যাও।”
-“সব ফ্যামিলি এরকম বলে। আমরা বোঝাব তিতির। দেখো বোঝালে ঠিকই বুঝবে।”
-“কি বুঝবে বলো? তুমি আমার ভাইকে কিসব গালি দিয়েছো চিন্তা করে দেখো একবার।”
-“তিতির রাগ উঠলে যখন মানুষ গালি দেয় তখন এতকিছু মিন করে দেয়না, মুখে যা আসে তাই বলে গালি দেয়।”
-“তুমি আমার ভাইয়ের জন্ম পরিচয় নিয়ে কথা বলেছো। আমার মা কে নিয়ে বাজে কথা বলেছো তোমার মনে হয় এরপরেও আমার বাবা, আমার ভাই তোমার সাথে আমার বিয়ে দেবে?”
-“আমি কি জানতাম তান্না তোমার ভাই? সবসময় তো ভাইয়া ভাইয়া বলেছো। একদিনও নামটা বলেছো?”
-“মারামারি আর গালাগালি তোমার স্বভাব। রাগ কন্ট্রোলের আর যেন কোনো উপায় নেই তোমার। আমি তো আগেও কতবার দেখেছি।”
-“তোমাকে নিয়ে কেউ কিছু বললে আমার সহ্য হয়না।”
-“বাহ! ভাল তো। কি বীরপুরুষ আমার।”
-“তিতির, তোমার ভাই যে তোমার রেট জিজ্ঞেস করেছে তাতে কি ওর কোনো দোষ নেই? তুমি তো ওর নিজের বোন।”
-“ও যদি এটা বলেও থাকে তো জানতো না যে ও ওর বোনের সম্পর্কে বলছে।”
-“ভাইয়ের বেলায় এখন ‘যদি’ বলছ? তার মানে আমাকে বিশ্বাস হচ্ছে না? আর হবেই বা কিভাবে! তোমার ভাইয়ের যা এক্টিং দেখলাম আজ। বলে কিনা বাচ্চাকাচ্চা আর মুরুব্বিদের সামনে বলতে পারবে না কি হয়েছে! আরে ও তো দুমুখো সাপ ওর মুখ কি সোনা দিয়ে বান্ধানো নাকি! যে ওর মুখ দিয়ে ভাল কথা ছড়াবে! -“মুখটাকে একটু সামলাও।”
-“তোমার ভাই বুচ্ছো বাসার মধ্যে ভেজাবিড়াল হয়ে থাকে। সেটা নিশ্চই ফ্যামিলিতে গুডবয় হয়ে থাকার জন্য?”
-“দেখা তিতির, আমি সত্যি জানতাম না যে ও তোমার ভাই। কিন্তু বিশ্বাস করো ও শুরু না করলে আমিও ওকে কিছুই বলতাম না।”
-“নাইবা জানলে, তুমি না সবসময় সবাইকে বলো একটা মেয়েকে বাজে কথা বলার আগে ভাবা উচিৎ সেও তোমার বোনেরই মত কারো বোন। তাহলে কারো মাকে নিয়ে বলার আগে এটা ভাবলে না সেও কারো মা।”
-“দেখো আমি তো চাইলে তান্নাকে গালাগাল করার ব্যাপারটা তোমার কাছে গোপন করতে পারতাম। আমিতো করিনি তিতির। পুরোটাই বলেছি তোমাকে। আর প্লিজ আল্লাহর দোহাই লাগে তিতির, একটু বোঝো.. কাউকে কুত্তার বাচ্চা বলে গালি দেয়ার মানে এটা না যে তার মা কুত্তা। মানে হলো গিয়ে সে একটা বাবু কুত্তা। তেমনি অন্য গালিগুলোও অমনই।”
এভাবেই অনেক তর্কাতর্কি হয়েছিল সেদিন। অনেক রাতে ভাইয়া দরজায় নক করলো। অনেকবার নক করার পর তিতির দরজা খুলল। বাবা-মা, ভাইয়া দরজায় দাঁড়িয়ে। ভেতরে ঢুকেই তিতিরের মা বলল,
-“তিতির, ওই ছেলের সাথে তোমার বিয়ে হওয়া কখনো সম্ভব না। তোমার কি কিছু বলার আছে?”
তিতির দেখলো বাবা ওর দিকে তাকাচ্ছে না। রুমে ঢুকে চুপচাপ দাঁড়িয়ে আছে। তান্নাও কোনো কথা বলছে না।
-“মা, তোমরা ওকে যেমন ভাবছ ও তেমন নয়। ওই ঘটনাটা একটা এক্সিডেন্ট ছিল। আমি ওকে চার বছর ধরে চিনি। ও আসলে খারাপ না। আমার সম্পর্কে কেউ কোন আজেবাজে কথা বললেই শুধু রেগে যায় ও। তখন রাগারাগি, গালাগালিটা ওর চলে আসে। সবার তো আর ১০০% ভাল দিক থাকে না।”
মা অবাক হয়ে বলল,
-“এতকিছুর পরেও একথা বলছিস? মা, ভাইয়ের সম্মানের কোন দাম নেই তোর কাছে?”
তান্না বলল,
-“তোর মতামত জানতে চেয়েছিলাম।”
তিতির বলল,
-“আমি মুগ্ধকেই বিয়ে করবো। ও ভাল খারাপ যেমনই হোক না কেন ওর সাথে আমি হ্যাপি থাকবো।”
এতক্ষণে বাবা বলল,
-“তিতির তুমি যদি মনে করো তুমি এডাল্ট, তোমার নিজের জীবনের সিদ্ধান্ত তুমি নিজেই নিতে পারবে তাহলে জেনে রাখো আমরা তোমার বাবা-মা, তোমাকে জন্ম দিয়েছি, লালনপালন করেছি, যত্ন করেছি, ভালবাসা দিয়েছি তাই তোমার উপর আমাদের অধিকার আছে। আমরা কোনোভাবেই তোমাকে আগুনে ফেলে দিতে পারব না। যাই হোক, আমরা কখনো এই ছেলের সাথে তোমার বিয়ে দেব না। তারপরেও যদি করতে চাও তাহলে এ বাড়ি ছেড়ে চিরতরে চলে যাও। কখনো আর ফিরে আসবে না। তুমি ভুলে যেও তোমার বাবা মা আছে। আমরাও ভুলে যাব আমাদের একটা মেয়ে ছিল। সব সম্পর্ক সেদিনই শেষ হয়ে যাবে যেদিন তুমি ওর সাথে নতুন সম্পর্কে বাধা পড়বে।”
একথা বলে বাবা ঘর থেকে বেড়িয়ে গেল। তান্নাও বলল,
-“রক্তের সম্পর্কের প্রতিদান, ছোটবোনকে ঘুম পাড়ানোর জন্য রাতের পর রাত জেগে কাধে নিয়ে হাটার প্রতিদান, অসুস্থ বোনের বিছানার পাশে বসে কাঁদার প্রতিদান, বোনের আবদার পূরণ করার জন্য দিনরাত এক করে বাবা-মাকে রাজী করানোর প্রতিদান, বোনের পরীক্ষার সময় অযথা জেগে থেকে বোনকে সঙ্গ দেয়ার প্রতিদান! সব প্রতিদানগুলো এতসুন্দর করে পাব ভাবিওনি কোনদিন। থ্যাংকস।”
একথা বলে ভাইয়া বের হয়ে গেল। ভাইয়ার চোখে পানি দেখে মা বলল,
-“আগে যদি জানতাম, তুই জন্মানোর পরই তোর মুখে বালিশচাপা দিয়ে মেরে ফেলতাম।”
তারপর মাও ঘর থেকে বের হয়ে গেল। তিতির ফ্লোরে বসে পড়ে অঝর ধারায় কাঁদতে লাগলো।
To be continued…

Tagged : / /

প্রেমাতাল পর্ব – ৩৩ || মৌরি মরিয়ম

হঠাৎ কলিং বেল বেজে উঠতেই মুগ্ধর ভাবনায় লাগাম পড়লো উঠে গিয়ে দরজা খুলল, মা এসেছে ভেতরে ঢুকেই জিজ্ঞেস করলো,
-“
তিতির কোথায়?”
-“
আমার ঘরে।

মা সোজা মুগ্ধর ঘরে চলে গেল। মুগ্ধ দরজা লাগিয়ে ঘরে ঢুকতেই মা বলল,
-“
একি অবস্থা হয়েছে মেয়েটার!”
মা বিছানায় তিতিরের পাশে বসেছে। মুগ্ধ চেয়ার টেনে বসে বলল,
-“
তুমি জানলে কিভাবে যে এসেছে?”
-“
পিউ ফোন করেছিল।
-“
ও।

মা আবার বলল,
-“
মেয়েটার চোখদুটো গর্তে ঢুকে গেছে। চেহারার মাধুর্যটাই চলে গেছে। ডাকাত ফ্যামিলি একটা।
-“
বাদ দাও না মা।
-“
কেন বাদ দিব? ওর ওই ডাকাত ফ্যামিলির জন্যই আজ আমার সংসারে কোন শান্তি নেই, সুখ নেই, আনন্দ নেই। যতটুকু ছিল তাও শেষ করে দিয়েছে। এতদিনে তোর বউ এসে নাতি নাতনীতে ঘর ভরে যাওয়ার কথা ছিল। ওর জন্য বিয়ে করলি না। বছর অপেক্ষা করলি ওর স্টাডির জন্য। লাভ কি হলো? উলটো অপমানিত হয়ে ফিরে আসতে হলো। এখনও বিয়ে করছিস না। বয়স চলে যাচ্ছে। তুই শুধু শুধুই ওর জন্য অপেক্ষা করছিস। দুনিয়া উলটে গেলেও ওর ফ্যামিলি কোনদিনও মানবে না। আর পারবেও না ওর ফ্যামিলি ছেড়ে আসতে।

-“
মা এখন কি এসব কথা বলার সময়?”
-“
অবশ্যই। ইভেন এখনই পারফেক্ট সময়। দেখ ওর অবস্থা, এসব দেখেও যে ফ্যামিলি ইগো নিয়ে বসে থাকতে পারে তারা বিবেকহীন। তাই ওর আশা এবার চিরদিনের জন্য ছেড়ে দে। তুই বুদ্ধিমান ছেলে, জানি এর বেশি কিছু আর তোকে বলতে হবেনা।
মুগ্ধ চুপ, মা এবার প্রসঙ্গ পালটালো,
-“
ওকে নাকি ঘুমের ওষুধ দিয়েছে?”
-“
ঘুমের ইঞ্জেকশান।
-“
তাহলে? বাসায় যাবে কি করে? দেখ তুই ওকে বাসায় এনেছিস এটা নিয়ে না ওর ভাই আবার ঝামেলা করে।
-“
না মা। ডাক্তার বলে দিয়েছে জাস্ট / ঘন্টা ঘুমাবে। তারপরও না উঠলে ডেকে উঠিয়ে দিয়ে আসব।
মা একটা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলল,
-“
এর চেয়ে অনেক ভাল হত ইকরা কে যদি বিয়ে করতি। এসব আমার আর ভাল লাগেনা।
-“
মা ইকরাকে আমি পছন্দ করিনা।
-“
যাকে পছন্দ করো তার কাছে তো তোমার ভালবাসার দাম নেই। তাই যে তোমাকে পছন্দ করে তাকেই তোমার বিয়ে করা উচিৎ। ইকরার মত লক্ষী মেয়ে কতটা চায় তোকে! তোর বউ হলে সারাজীবন তোর পায়ের কাছে পড়ে থাকতো।
-“
বউ কি পায়ের কাছে পড়ে থাকার মত জিনিস মা?”
মা মেজাজ খারাপ করে তাকিয়ে রইল। মুগ্ধ বলল,
-“
তিতিরের কাছে আমার ভালবাসার দাম নেই এটাও তুমি ভুল বলেছ মা।
-“
হ্যা দাম আছে কিন্তু ওর কাছে ওর ওই ডাকাত ফ্যামিলির ভালবাসার দাম তার চেয়েও বেশি।
-“
সেটাই কি স্বাভাবিক না?”
-“
না স্বাভাবিক না, আমি যে ফ্যামিলি ছেড়ে তোর বাপের সাথে চলে এসেছিলাম, তার মানে কি এই যে আমি আমার ফ্যামিলিকে ভালবাসতাম না?”
-“
তা বলিনি মা, সবার তো আর সেই সাহস টা থাকে না।
-“
শোন মুগ্ধ, বিয়ে করে ফেললে সব ফ্যামিলিই একসময় মেনে নেয়। আমাদের ফ্যামিলি কি মানেনি? তুই হওয়ার পর মেনেছে কিন্তু মেনেছিল ঠিকই। তিতির যদি চলে আসতো তোকে বিয়ে করতো ওর ফ্যামিলিও এক সময় মেনে নিতো।
-“
মা তোমাদের সময়ে পালিয়ে বিয়ে করার একটা ট্রেন্ড ছিল। যা এখন নেই।
কতক্ষণ রক্তচক্ষু নিয়ে মা তাকিয়ে থেকে ঘর থেকে বেড়িয়ে গেল। যাওয়ার সময় বলে গেল,
-“
যা ইচ্ছে কর, এত মানুষ মরে আমি মরি না কেন কে জানে।
একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে তিতিরের দিকে তাকালো মুগ্ধ। মায়ের উপর রাগ হচ্ছে না মুগ্ধর। হচ্ছে না তিতিরের উপরেও। দুজনই হয়তো তাদের যার যার যায়গা থেকে ঠিক। শুধু মুগ্ধই ভাঙা সেতুর রেলিং ধরে ঝুলে আছে।
সেদিন তান্না খুব স্বাভাবিকভাবে মুগ্ধর সামনে এসে হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল হ্যান্ডশেক করার জন্য। তিতিরের বাবা বলেছিল,
-“
এই আমার ছেলে।
মুগ্ধ হ্যান্ডশেক করলো। তান্না বলল,
-“
বাবা পরিচয় করাতে হবে না, উনি আমাকে ভালভাবেই চেনেন।
তিতির বলে উঠলো,
-“
তোমরা একে অপরকে চেনো?”
তান্না বলল,
-“
হ্যা, চিনি। খুব ভালভাবেই চিনি। তো ভাইয়া, আপনি আমার বোন কে বিয়ে করতে চান? সত্যি আমি অবাক! কেন আপনার সেই গার্লফ্রেন্ডের খবর কি?”
সবাই কৌতূহলী দৃষ্টিতে তাকিয়ে দেখছে ওদের দুজনকে। মুগ্ধ এতটা ভয় আগে কোনদিন, কোনো সিচুয়েশনে, কাউকে পায়নি যতটা ভয় পাচ্ছে আজ তান্না কে। খুব অসহায় লাগছে। কোনরকমে বলল,
-“
তখনও তিতিরই আমার গার্লফ্রেন্ড ছিল।
তান্না বলল,
-“
রিয়েলি? গল্পটা বেশ।
তিতিরের বাবা এতক্ষণে কথা বলল,
-“
ব্যাপারটা কি কিছুই তো বুঝতে পারছি না। তান্না তুই ওকে কিভাবে চিনিস?”
-“
বাবা উনিই মেহবুব। মিথুনদের বাসার দোতলায় থাকতো। বুঝতে পেরেছো কার কথা বলছি?”
বাবা কয়েক সেকেন্ড তাকিয়ে থাকলো মুগ্ধর দিকে। মুগ্ধর সত্যিই সেই মুহূর্তে মরে যেতে ইচ্ছে করছিল। বাবা মুগ্ধর দিক থেকে চোখ ফিরিয়ে তিতিরের দিকে তাকিয়ে বলল,
-“
তিতির আংটিটা ফেরত দিয়ে দাও।
তিতির অবাক হয়ে তাকিয়ে ছিল। বুঝতে পারছিল না কি হচ্ছে! মুগ্ধর মা বলল,
-“
কেন ভাই? কি হয়েছে? আমি তো কিছুই বুঝতে পারছি না। ওদের পরিচিত হওয়ার সাথে তিতিরের আংটি খুলে ফেলার কি সম্পর্ক রয়েছে?”
তিতিরের বাবা বলল,
-“
বিয়ে সম্ভব নয়। আমি কোনো গুন্ডা ছেলের সাথে আমার মেয়ের বিয়ে দেবনা।
তিতির কিচ্ছু বুঝতে পারছে না কি হচ্ছে! কিন্তু এটা বুঝতে পারছে সমস্যা বিরাট কিছু কারন মুগ্ধ প্রচন্ড নার্ভাস। মুগ্ধকে খুব কঠিন সময়েও নার্ভাস হতে দেখেনি তিতির। তাই ভয়ে তিতির আর কোনো কথা বলতে পারছিল না। কিন্তু যা দেখছে তাতে বুক ফেটে কান্না বেড়িয়ে আসতে লাগলো। চোখ দিয়ে অঝর ধারায় পানি পড়ছে, মুখে আঁচল চেপে ধরে আছে তিতির। মুগ্ধর মা বলল,
-“
গুন্ডা মানে? আমার ছেলেকে গুন্ডা কেন বলছেন? কি করেছে?”
-“
আন্টি সেসব কথা বাচ্চাকাচ্চা আর মুরুব্বিদের সামনে আমি মুখে আনতে পারবো না। তাই ভাল হয় আপনি মেহবুব ভাইয়ার কাছ থেকেই এসব জেনে নিয়েন। উনি সত্যি ঘটনাটাই বলুক আর রঙচঙ মিশিয়েই বলুক তাতে আমার কিছু যায় আসে না।
তিতিরের বাবা হাতজোড় করে বলল,
-“
মাফ করবেন, বিয়ে সম্ভব না। আপনারা এখন আসতে পারেন।
একথা শুনে মুগ্ধর কি যে হলো সাথে সাথে তিতিরের বাবার সামনে দুই হাটু মুড়ে বসে পা ধরে বলল,
-“
অাঙ্কেল, একথা বলবেন না প্লিজ। আমি যা করেছিলাম ভুল করেছিলাম। আজ আপনার পা ধরে ক্ষমা চাচ্ছি আমাকে প্লিজ ক্ষমা করুন।
তিতিরের বাবা আর একটি কথাও না বলে চলে গেল নিজের ঘরে। পেছন পেছন তিতিরের মাও গেল। বাবার পাশেই তান্না দাঁড়িয়ে ছিল। মুগ্ধ তান্নার পা ধরে বলল,
-“
তান্না তুমি আমার ছোটই হবে তবু যে হাতে তোমাকে মেরেছিলাম সে হাতেই আজ তোমার পা ধরে ক্ষমা চাইছি। প্লিজ ক্ষমা করো, তিতিরকে আমার থেকে আলাদা করোনা।
এই দৃশ্য দেখে পিউয়ের চোখে পানি এসে গেল। স্নিগ্ধ্বও তাকিয়ে ছিল অবাক হয়ে। এটা কি ওদেরই বড়ভাই? যে কোনদিন কারো সামনে মাথা নিচু করেনি সে আজ একজনের পর একজনের পা ধরে মাফ চেয়ে যাচ্ছে!
তান্না সরে গিয়ে ফ্ল্যাটের দরজা খুলে দিয়ে বলল,
-“
নিচে দারোয়ানকে বললে গেট খুলে দেবে।
তখনও মুগ্ধ ফ্লোরে বসা। ওর মা ওকে তুলে বলল,
-“
চল।

মুগ্ধ নির্বিকার ভঙ্গিতে উঠে দাঁড়ালো। মুগ্ধ,পিউ,স্নিগ
্ধকে নিয়ে ওদের মা তিতিরদের বাসা থেকে বেড়িয়ে এল। বের হওয়ার আগে একবার মুগ্ধ তিতিরের দিকে তাকালো। তিতির ওর ভাবীকে জড়িয়ে ধরে কাঁদছে। আর কোনদিন মুগ্ধ তিতিরের চোখের জল মুছে দিতে পারবে না। ওর আজকের এই যত্ন করে পড়া লাল শাড়ি, চোখের কাজল সব মিথ্যে হয়ে গেল।
মুগ্ধ খুব ভেঙে পড়েছিল। পিউ, স্নিগ্ধ, মা সবার মনেই কৌতূহল ছিল আসলে কি এমন হয়েছিল তান্না আর মুগ্ধর মধ্যে? মা জিজ্ঞেস করতেই মুগ্ধ পুরো ঘটনাটা বলল। মা বলল,
-“
ওদের আশা তাহলে ছেড়ে দে। তিতিরকে বল একদম খালি হাতে চলে আসতে।
ওদিকে ওরা চলে যাওয়ার পর তান্না গিয়ে বাবার ঘরে ঢুকলো। তিতির ভাবীকে জড়িয়ে ধরে কাঁদছিল। তান্নাকে বাবার ঘরে যেতে দেখে তিতিরও গেল। আসল ঘটনাটা কি সেটা ওর জানতেই হবে। ঘরের দরজায় পা রাখার আগেই তিতির শুনতে পেল তান্না বাবামাকে বলছে,

-“
তিতির হয়তো কান্নাকাটি করবে তোমরা আবার গলে যেওনা।
-“
তান্না এসব কিছুই আমাকে বলতে হবে না। আমার খুব ভালভাবেই মনে আছে তুই এক সপ্তাহ হসপিটালে ছিলি। কয়েক মাস লেগেছিল সুস্থ্য হতে।

-“
ওই ছেলে যদি ভাল হতো আমাকে মারার জন্য ওদের বিয়ে আটকে থাকতো না বাবা। একটা ক্যারেক্টারলেস। ব্যাচেলর ফ্ল্যাটে মেয়ে নিয়ে আসতো ভাড়া করে। চিন্তা করো একবার। আর আমাকে মারার সময় কি বাজে বাজে গালি যে দিচ্ছিল বাবা তার একটাও যদি তিতির শোনে ঘৃনায় মরে যাবে। আমার নাকি কোন জন্মের পরিচয় নেই, মাকে নিয়ে কতটা বাজে কথা বলেছিল বাবা আমি কিছুই ভুলিনি! তার সাথে আমি আমার বোনের বিয়ে তো কিছুতেই মানব না বাবা।
তিতির বিস্ময়ে আঁচলে মুখ চেপে ধরে ছিল তান্নার কথা শুনে। মুগ্ধ ভাড়া করে মেয়ে নিয়ে আসতো! অসম্ভব.. তিতির চেনে মুগ্ধকে। মুগ্ধ কখনোই ওরকম না। কিন্তু মার আর গালাগাল! সেটা তো তিতির নিজেই চোখেই দেখেছে কতবার! তবু সবটা জানতে হবে। বাবাভাইকে পরে ফেস করবে। আগে পুরোটা মুগ্ধর কাছ থেকে জেনে নিতে হবে। তিতির নিজের ঘরে গিয়ে দরজা লাগিয়ে দিল। তারপর ফোন করলো মুগ্ধকে। ওপাশ থেকে ভেসে এল,
আপনার ডায়ালকৃত নামারটি এখন বন্ধ আছে। দয়া করে আবার চেষ্টা করুন।
তিতির অবাক হলো, মুগ্ধর মোবাইল তো কখনো বন্ধ থাকেনা। আজ তবে বন্ধ কেন? চোখে পানি যেন আজ আটছেই না। উপচে উপচে পড়ছে
To be continued…

Tagged : / /

প্রেমাতাল পর্ব – ৩২ || মৌরি মরিয়ম

সেই পাগলী তিতির আর আজকের তিতিরের মধ্যে অনেক পার্থক্য। ৪ বছর পর্যন্ত সত্যি কোনো পার্থক্য ছিল না। গত সাত মাসে যেন হঠাৎই বড় হয়ে গেল।
তিতির ডানদিকে কাত হয়ে নিজের হাতের উপর মাথা শুয়ে আছে। এই বিছানায় ওর বউ হয়ে শোবার কথা ছিল, আর আজ অসুস্থ হয়ে শুয়ে আছে। ভাগ্যে বিশ্বাসী ছিলনা মুগ্ধ। তাই বোধহয় ভাগ্যবিধাতা বুঝিয়ে দিল তিনি চাইলে কি থেকে কি হয়ে যেতে পারে।
৭ মাস আগে তিতির না, মুগ্ধ শুয়ে ছিল এখানে। কপালে তিতিরের হাতের স্পর্শ পেতেই চোখ খুলে ওকে দেখতে পেয়েছিল মুগ্ধ। আজকালও খানিকটা এরকম ব্যাপার ঘটে, ও কপালে স্পর্শ পায় কিন্তু চোখ খুললেই বুঝতে পারে সবটা স্বপ্ন ছিল। সেদিন চোখ খুলে দেখছিল সবুজ পাড়ের হালকা কলাপাতা রঙের শাড়ি পড়ে মাথার কাছে বসে আছে তিতির। চুলগুলো খোলা। আহ কি অপূর্ব লাগছে। কোনো অকেশন ছাড়া শাড়ি পড়লে বুঝতে হবে কোন সুখবর আছে। তাই বুঝেই মুগ্ধ তিতিরের হাতটা কপালের উপর থেকে সরিয়ে বুকের মধ্যে নিয়ে বলল,
-“আমার বউটা আজ কি সুখবর দেবে?”
তিতির হাতটা ছাড়িয়ে নিচ্ছিল। মুগ্ধ ছাড়ছিল না। উলটো দুলাইন গান শুনিয়ে দিল,
“ছেড়োনা ছেড়োনা হাত
দেবোনা দেবোনা গো যেতে
থাকো আমার পাশে…”
তিতির বলল,
-“উফ কেন ছাড়ছি সেটাও তো বুঝতে হবে।”
মুগ্ধ ছাড়লো। তিতির দরজার কাছে দাঁড়িয়ে বাইরে উঁকি মারলো না কেউ নেই। দরজাটা আস্তে করে লাগিয়ে দিল। তারপর মুগ্ধর পাশে এসে শুয়ে পড়লো। মুগ্ধ তিতিরকে জড়িয়ে ধরে ওর বুকে মাথা রাখলো। তিতির মুগ্ধর গালে হাত বুলিয়ে বলল,
-“অনেক বড় কোনো সুখবর দেব আজ। যা আগে কখনো দেয়নি। এর চেয়ে বড় সুখবর আর হতেই পারে না।”
-“হোয়াট? কিভাবে সম্ভব?”
-“তুমি বুঝতে পেরেছো আমি কিসের কথা বলছি?”
-“হ্যা, তুমি প্রেগন্যান্ট! এর চেয়ে বড় সুখবর আর কিছু হতে পারেনা কিন্তু কিভাবে সম্ভব। আমি তো কিছুই করিনি।”
তিতির ওকে সরিয়ে দিল,
-“ধ্যাত, মুডটাই নষ্ট করে দিলে।”
-“এই না না বলো বলো। দুষ্টুমি করছিলাম তো।”
তিতির তবু মুখ ঘুরিয়ে রইল। মুগ্ধ তিতিরের কান ধরে বলল,
-“এই কান ধরছি, সরি। এবার বলোনা কি হয়েছে?”
তিতির মুগ্ধর দিকে তাকিয়ে মিষ্টি হাসলো। তারপর বলল,
-“তোমার এই বিছানায় আমার জন্য পার্মানেন্টলি জায়গা করো। শিগগিরই আসছি।”
-“মানে কি? বিয়ের কথা বলছো?”
-“হ্যা… কাল বাসায় একটা প্রোপোজাল এসেছিল। বাবা ওটার কথা আমাকে বলতেই আমি তোমার কথা বাবাকে বলে দিয়েছি।”
মুগ্ধ লাফিয়ে উঠে বসলো। বলল,
-“আল্লাহ মুখ তুলে তাকিয়েছেন! তারপর কি হলো?”
তিতিরও উঠে বসেছে ততক্ষণে। বলল,
-“তারপর সব জিজ্ঞেস করলো তোমার ব্যাপারে আমি বললাম। তারপর মা আর ভাইয়া, ভাবীকে ডেকে সবটা বলল বাবা। সব শুনে বোধহয় সবারই পছন্দ হয়েছে। তাই বলেছে প্রোপোজাল পাঠাতে। উফ বিশ্বাস করো এত সহজে সবাই মেনে নেবে ভাবিনি।”
-“ওয়াও, গ্রেট!”
-“জানো, ভাইয়া তো হাসছিল আর বলছিল তুই এতদিন প্রেম করেছিস টেরই পাইনি। ছোটবেলায় তুই এত শান্ত থাকতি যে বাসায় কোনো বাচ্চা আছে বোঝা যেত না। সেরকমই হলো ব্যাপারটা।”
-“বাহ।”
-“হুম।”
মুগ্ধ তিতিরের কপালে চুমু দিয়ে বুকে টেনে নিল। তারপর বলল,
-“তিতির কি যে ভাল লাগছে তোমাকে বলে বোঝাতে পারব না। অবশেষে আমার এতদিনের অপেক্ষার অবসান হতে চলেছে।”
তিতির হেসে বলল,
-“আর আমারও। এবার বাইরে চলো.. পিউ, স্নিগ্ধ সবাই বাসায়। আর তোমারও তো অফিসে যেতে হবে।”
-“ও হ্যা, তুমি যাও। আমি একবারে রেডি হয়ে বের হচ্ছি।”
পরের শুক্রবারই মুগ্ধ ফুল ফ্যামিলিসহ প্রোপোজাল নিয়ে গেল তিতিরের বাসায়। শুধু বাবা ছাড়া কারন, মুগ্ধর বাবা দুবছর আগে একটা অপারেশনে গিয়ে মারা যায়। কথাবার্তা বলে দুই ফ্যামিলিই দুই ফ্যামিলিকে পছন্দ করলো। মুগ্ধর মা চাইলো আগামী মাসের মধ্যেই বিয়ের কাজ সেড়ে ফেলতে তিতিরের বাবা-মাও রাজী হয়ে গেল। ডিনারও সেড়ে ফেলল। তারপর হঠাৎ তিতিরের বাবা বলল,
-“কীরে তান্না কখন আসবে? আজ ও বাইরে গেল কেন?”
ভাবী বলল,
-“বাবা, ওর বন্ধুর বাবা হঠাৎই মারা গেছে, তাই গিয়েছিল। চলে আসবে কিছুক্ষণের মধ্যে। ও ঝিগাতলা পর্যন্ত চলে এসেছে, কথা হয়েছে।”
মুগ্ধর বুকের মধ্যে মোচড় দিয়ে উঠলো তান্না নামটা শুনে। তান্না! কোন তান্না? ৩/৪ বছর আগে যাকে মেরে এই এলাকা ছেড়ে চলে যেতে হয়েছিল সেই তান্নাই কি তিতিরের ভাই? সর্বনাশ! তাহলে তো সব শেষ। মুগ্ধ তরতর করে ঘামছিল। সেই তান্না যেন না হয়। সেই তান্নাই যদি হয় তাহলে সারাজীবনের জন্য ও হারাবে তিতিরকে। আল্লাহ কি এতটা নিষ্ঠুর হবে? হঠাৎ লাল শাড়ি পড়া তিতির এসে দাঁড়াল ওর পাশে। বলল,
-“তোমার কি হল? মুখটা এমন লাগছে কেন?”
-“নাহ, কিছুনা।”
তিতিরকে যে মুগ্ধ কি বলবে তা ও বুঝতে পারছিল না।
কিছুক্ষণের মধ্যেই তান্না চলে এল। ড্রইং রুমে ঢুকে কি অমায়িক ভঙ্গিতে মুগ্ধর মাকে সালাম দিয়ে বলল,
-“সরি আন্টি, আমি অনেক দেরী করে ফেললাম।”
তারপর মুগ্ধর দিকে চোখ পড়তেই তান্না দাঁড়িয়ে পড়লো, অবাক হয়ে তাকিয়ে রইলো মুগ্ধর দিকে। মুগ্ধ প্রাণপণে আল্লাহ কে ডাকছিল যেন এই মুহূর্তে ওর মৃত্যু হয়। কারন এরপরই যেভাবে তিতিরকে ওর জীবন থেকে কেড়ে নেয়া হবে তা ও সহ্য করতে পারবে না। শেষবারের মত তিতিরের হাসিমুখটা দেখে নিল। এরপর থেকে তো তিরিরের জীবন থেকে সবহাসি শেষ হয়ে যাবে।
চোখের সামনে ভেসে উঠলো সেই দিনটি। সেদিনও ছিল শুক্রবার। মুগ্ধ নিজের রুমে বসে তিতিরের সাথে ফোনে কথা বলছিল। হঠাৎই কলিং বেল বেজে উঠলো। মুগ্ধ পাত্তা দিল না, আবার বাজতেই তিতির বলল,
-“কি হলো? দরজা খুলছ না যে?”
-“আরে বাসায় তমাল, সম্রাট ওরা আছে। কেউ নিশ্চই খুলবে, অযথা আমি আমার বউকে রেখে দরজা খুলতে যাব?”
তিতির বলল,
-“যেন আমি কাছে আছি?”
এরপর পরপর কয়েকবার বেল বাজতেই মুগ্ধ বলল,
-“আচ্ছা, আমি পরে কল দিচ্ছি।”
-“হুম, ঠিকাছে।”
দরজা খুলতেই দেখলো ওদের বাসার বাড়িওয়ালার ছেলে মিথুন আর মিথুনের ফ্রেন্ড তান্না দাঁড়িয়ে। দুজনই মুগ্ধর চেয়ে দুএকবছরের ছোট। মুগ্ধ বলল,
-“আরে, তোমরা যে! এসো এসো।”
ভেতরে ঢুকেই মিথুন বলল,
-“মেহবুব ভাই, আপনারা বাসা নেয়ার সময় যে কন্ডিশনগুলো দেয়া হয়েছিল তা কি আপনারা ভুলে গেছেন?”
মুগ্ধ অবাক হয়ে বলল,
-“না তো ভুলব কেন? কি হয়েছে?”
-“একটু আগে আপনাদের ফ্ল্যাটে একটা মেয়ে ঢুকেছে।”
-“এটা হতেই পারে না। প্রথমত, কেউ মেয়ে নিয়ে আসবে না, দ্বিতীয়ত, আমি আজ সারাদিন বাসায় কেউ এলে আমি জানতাম।”
তান্না বলল,
-“ভাইয়া আমি যখন উঠছিলাম আমি নিজে দেখেছি।”
-“বলো কি!”
-“জ্বী।”
মুগ্ধ বলল,
-“আচ্ছা আমার কথা বিশ্বাস না হলে তোমরা বাসা সার্চ করতে পারো।”
মিথুন বলল,
-“তাই করতে হবে।”
মুগ্ধ বলল,
-“এসো।”
মিথুন বলল,
-“তান্না তুই যা, আমি দরজার সামনেই থাকি, যাতে এদিক দিয়ে পাচার করতে না পারে।”
মুগ্ধ তান্নাকে নিয়ে গেল। প্রথমে সম্রাটের রুমে ঢুকে দেখলো কেউ নেই। মুগ্ধ ভাবল, ‘সম্রাট কি বাইরে গেল? কখন গেল? না বলেই গেল?’
এরপর মুগ্ধর রুম খুঁজে ওরা তমালের রুমে যেতে নিয়ে দেখলো দরজা ভেতর থেকে লাগানো। তান্না বলল,
-“কি বুঝলেন?”
মুগ্ধ দরজায় নক করলো,
-“তমাল? এই তমাল? দরজা খোল।”
কোনো সাড়াশব্দ পাওয়া গেল না। তান্না কয়েকবার দরজায় ধাক্কা দিল। ততক্ষণে মিথুন চলে এসেছে তমালের দরজার সামনে। তারপর আরো কয়েকবার নক করার পর ভেতর থেকে দরজা খুলে বেড়িয়ে এল তমাল। পেছনে ওড়না দিয়ে ঘোমটা টানা একটা মেয়ে। মেয়েটাকে চিনতে কষ্ট হলোনা মুগ্ধর। তমালের গার্লফ্রেন্ড সুপ্তি। কিন্তু তমাল ওকে বাসায় নিয়ে আসার মত বোকামিটা কেন করলো? আর যদি আনেও মুগ্ধকে একবার জানানোর প্রয়োজন মনে করল না? এতবড় মুখ করে বলা কথা এখন কোথায় যাবে মুগ্ধর! মিথুন বলল,
-“এই মেয়ে ব্যাচেলর বাসায় আসতে পারছো আর মুখ দেখাইতে শরম? ঘোমটা দিয়া তো ঘোমটার অসম্মান করলা! দেখি মুখ দেখাও।”
তমাল বলল,
-“ভাই আমার ভুল হয়ে গেছে, ওকে ছেড়ে দেন। আমাকে যা বলার বলেন।”
তান্না বলল,
-“শালার চোরের মার বড় গলা।”
তারপর মুগ্ধর দিকে তাকিয়ে বলল,
-“এইযে, মেহবুব ভাই।এইবার কি বলবেন? খুব তো বলসিলেন মেয়ে আনেন না বাসায়। এটা কি বের হলো রুম থেকে?”
মুগ্ধ কিছু বলার আগেই মিথুন বলল,
-“আরে এগুলা মেয়ে নাকি সস্তা ** কতগুলা।”
মুগ্ধ বলল,
-“এবার বেশিবেশি হয়ে যাচ্ছে। মেয়েটাকে যেতে দাও। বাকীটা আমরা বুঝে নিচ্ছি।”
মুগ্ধ জানে সুপ্তি এলাকারই মেয়ে। ওর মুখটা কেউ দেখে ফেললে কেলেঙ্কারি হবে। মিথুন বলল,
-“আপনাদের সাথে তো বুঝবো আসল বোঝা। আগে এই **টার সাথে বুঝে নেই।”
সুপ্তির গায়ে ধাক্কা মেরে বলল,
-“চুলকানি বেশি না? তাই ব্যাচেলর বাসায় আসো?”
একথা শুনেই তমাল মিথুনের মুখে একটা ঘুষি বসিয়ে দিল। সেই ফাঁকে মুগ্ধ সুপ্তিকে ফ্ল্যাট থেকে বের করে দিল। সুপ্তি দৌড়ে সিঁড়ি দিয়ে নেমে গেল। তান্না দৌড়ে ধরতে চাইল, মুগ্ধ ওকে ধরে আটকে রাখলো। তান্না বলল,
-“মিথুন তরে আমি কইসিলাম সবগুলার গুরু এইটা। দেখ মেয়েটারে কেম্নে বাইর কইরা দিল।”
মিথুন তখন ব্যস্ত ছিল তমালের ঘুষির জবাব দিতে। মুগ্ধ বলল,
-“তোমরা যা ইচ্ছা ভাবতে পারো কিন্তু ও একটা মেয়ে, ভুল করে ফেলেছে হয়তো একটা। তাই বলে ওকে এভাবে অপমান করাটাও ঠিক না। ও তো তোমার আমার মতই কারোর বোন তাই না?”
মিথুন উঠে এসে মুগ্ধর কলার ধরলো। তান্না বলে উঠলো,
-“শালা বানী দেয়া বন্ধ কর। তোর এত লাগে ক্যান? সব একেই চক্র না? তোর গার্লফ্রেন্ড ও নিশ্চই আসে! আসে দেখেই বন্ধুর টারে সাপোর্ট দিচ্ছিস যাতে তুই ধরা খাইলে বন্ধু সাপোর্ট দেয়। সবগুলা **বাজ।”
মুগ্ধ বলল,
-“তান্না মুখ সামলে কথা বলো। আমার গার্লফ্রেন্ড কে নিয়ে আরেকটা কথা বলার সাহস দেখিওনা। তাহলে কপালে দুর্ভোগ আছে।”
তান্না বলল,
-“ক্যান তোর গার্লফ্রেন্ডের রেট কি দুইটাকা বেশি নাকি?”
এরপর মুগ্ধ আর ধরে রাখতে পারেনি নিজেকে। উন্মাদের মত মেরেছিল সেদিন তান্নাকে। কোনো হুঁশজ্ঞান ছিল না। মিথুন শত চেষ্টা করেও থামাতে পারেনি। মার খেয়ে তান্না দৌড়ে সিঁড়িতে চলে গেল নামার জন্য। মুগ্ধও দৌড় দিয়ে ধরে ফেলেছিল। মারতে মারতে নামিয়েছিল সিঁড়ি দিয়ে। পুরো সিঁড়ি রক্তে মেখে গিয়েছিল। তারপর রাস্তায় ফেলে কি মারটাই না মেরেছিল মুগ্ধ ওকে। সাথে মুগ্ধ শুরু করেছিল বাপ মা তুলে কি অকথ্য ভাষায় গালাগালি! রাস্তায় মানুষের ভীর হয়ে গিয়েছিল। একজন থামাতে যেতেই মুগ্ধ তাকে এমনভাবে ধাক্কা দিয়েছিল যে তা দেখে কেউ আর আগানোর সাহস করেনি। তারপর একসময় মার খেতে খেতে যখন তান্না অজ্ঞান হয়ে যায় তখন ওকে ছাড়ে মুগ্ধ।
To be continued…
Tagged : / /

প্রেমাতাল পর্ব – ৩১ || মৌরি মরিয়ম

কতক্ষণ পর তিতির ক্লান্ত হয়ে মাটিতে পা রাখলো। মাটিতে ভর দিতেই তিতির টের পেল ও সব শক্তি যেন হারিয়ে ফেলেছে, দাঁড়িয়ে থাকতে পারছে না। মুগ্ধর কোমরটা আরো শক্ত করে জড়িয়ে ধরে ঢলে পড়লো মুগ্ধর বুকের উপর। নিঃশ্বাস পড়ছিল ঘন ঘন। মুগ্ধ তিতিরের মুখটা ধরে উপরে তুলল তারপর নিজের ঠোঁট দিয়ে চোখের পানিটুকু মুছে দিল। ইশ একি সুখ মুগ্ধ দিচ্ছে ওকে! এত সৌভাগ্য নিয়ে জন্মেছিল ও! আচ্ছা মুগ্ধকে কেমন দেখাচ্ছে এখন? দেখার জন্য তিতির চোখ খুলে তাকালো। মুগ্ধর চোখে চোখ পড়তেই তিতিরের লজ্জা লাগলো, চোখ নামিয়ে নিল। মুগ্ধ জিজ্ঞেস করলো,
-“কাঁদছিলে কেন?”
তিতির কিছু না বলে মুগ্ধর বুকে মুখ লুকালো। খুব ভাল লাগছে ওর, এত ভাললাগা কি করে বোঝাবে মুগ্ধকে? যেভাবেই হোক ও যে বোঝাতে চায়।
মুগ্ধ তিতিরকে নিজের বুকের মধ্যে চেপে ধরে রইলো। এত ভাল অনুভূতি এর আগে কখনো হয়নি ওর। এর আগেও অসংখ্যবার চুমু খেয়েছে প্রাক্তন প্রেমিকাদের। কিন্তু আজ মনে হলো জীবনের প্রথম চুমু ছিল এটা। প্রথম অভিজ্ঞতা। তিতিরের আনাড়িপনা ও লজ্জা ব্যাপারটাতে অন্যরকম মাধুর্য এনে দিয়েছে। তিতির ভালই করেছে ওকে এতদিন অপেক্ষা করিয়ে। অপেক্ষার ফল সুমিষ্ট হয়!
মুগ্ধ তিতিরকে কোলে তুলে নিল। তিতিরও গলা জড়িয়ে ধরল, কিন্তু তাকাতে পারলো না ওর দিকে। মুগ্ধ ওকে কোলে নিয়েই বারান্দায় রাখা সোফাটায় বসলো। তারপর বলল,
-“চুপ করে আছো যে? কথা বলবে না?”
তিতির নিচু স্বরে
-“কি বলবো?”
-“কেমন লাগলো সেটা বলো?”
-“তুমি তো সবই বোঝো। আমি আর কি বলবো?”
-“বুঝি তো কিন্তু আমার তিতিরপাখিটার মুখে কি শুনতে ইচ্ছে করে না?”
তিতির মুগ্ধর কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিসফিস করে বলল,
-“সুখের সমুদ্রে ডুবে ছিলাম। মরে যেতে ইচ্ছে করছিল। যদি এত সুখের মুহূর্ত আর না আসে?”
তিতিরের উষ্ণ নিঃশ্বাস কানে লাগতেই মুগ্ধ কোথায় যেন হারিয়ে গেল। তিতিরকে বুকের উপর নিয়েই সোফাতে শুয়ে পড়লো। তিতির উপুর হওয়াতে ওর ভেজা চুলগুলো মুগ্ধর মুখের উপর পড়লো। মুগ্ধ চুলগুলোকে সরিয়ে বলল,
-“সুখের সমুদ্রে তো তোমাকে নিয়ে মাত্র পা ভেজালাম। এখনি মরতে চাও? যখন সাঁতার কাটবো তখন কি বলবে?”
একথা শুনে লজ্জায় তিতির আচমকাই উঠে পড়ল। মুগ্ধ আঁচল টেনে ধরতেই তিতির দাঁড়িয়ে পড়লো। মুগ্ধ কাত হয়ে সরে তিতিরকে বসিয়ে বলল,
-“আরে এখনি না তো! বিয়ের পরে। তুমি তো মাত্র ১৭। ১৮+ কাজ কি আমি তোমার সাথে করতে পারি বলো?”
তিতির কিছু বলল না, শুধু হাসলো। মুগ্ধ ওকে বুকে নিয়ে বলল,
-“ইশ একটু তাড়াতাড়ি বড় হও না, বিয়ে করি।”
-“বড় হওয়ার মন্ত্র থাকলে আজই পড়ে বড় হয়ে যেতাম।”
-“তাই? সাঁতার কাটার এত ইচ্ছে?”
তিতির মুগ্ধর বুকে কিল মারতে মারতে বলল,
-“তুমি এত খারাপ কেন?”
-“তুমি এত লক্ষী বলে।”
এমন সময় মুগ্ধর ফোন বাজল। বংশী ফোন করেছে। মুগ্ধ ফোন ধরলো। বংশী কি বলল তা তো তিতির শুনতে পেল না কিন্তু তারপর মুগ্ধ বলল,
-“হ্যা, হ্যা.. তুমি নিয়ে এসো।”
ফোন রাখতেই তিতির বলল,
-“কি নিয়ে আসতে বললে?”
মুগ্ধ হাসলো। তিতির বলল,
-“কি? হাসছো যে?”
-“না মানে একটা কথা মুখে চলে এসেছিল, বললে তুমি লজ্জায় আমার সামনেই আর আসতে না তাই গিলে ফেলেছি। ওটা ভেবেই হাসলাম।”
তিতিরের মনে মনে রাগ হলো। এহ সারাদিন রাজ্যের আজেবাজে কথা বলতে থাকে, এখন একদম তুলসী পাতা হয়ে গেছে! কথাটা জানার জন্য মনটা আকুপাকু করলেও আর জিজ্ঞেস করতে পারলো না তিতির। বংশী এসে দরজায় নক করতেই মুগ্ধ গিয়ে খুলে দিল। পিছন পিছন তিতিরও ঘরে ঢুকলো। তিতিরকে শাড়ি পড়া দেখেই বংশী বলল,
-“দেখলিজিয়ে সাহাব, বিবিজিকো আব ছোটা নেহি লাগতা।”
তিতির হাসলো।মুগ্ধও হেসে বলল,
-“হ্যা।”
-“সাহাব, ডিনারপে কেয়া খায়েগা আপ দোনো?”
মুগ্ধ তিতিরের দিকে তাকিয়ে বলল,
-“এই তুমি কি খাবে?”
তিতির বলল,
-“খেয়ে না এলাম? আমি আর কিছু খাব না।”
-“খেয়েছি তো সেই ৬/৭ টার সময়। এখন তো ১০ টা বাজতে চলল।”
-“হোক।”
বংশী বলে উঠলো,
-“নেহি বিবিজি.. ইয়ে সাহি বাত নেহি! রাত কা খানা বহত জারুরি হোতা হেয়।”
মুগ্ধ বংশীকে বলল,
-“তোমার বিবিজির কথা বাদ দাও.. ও খাবে কি খাবে না আমি দেখে নেবো। তুমি দুজনের জন্য নরমাল কিছু নিয়ে এসো ১১ টার দিকে। যেমন ধরো ভাত, মাছ, ভর্তা।”
-“সাহাব, চিকেন গুতাইয়া হেয়। ও ভি দিব?”
-“ওহ ওয়াও। অবশ্যই দিবে।”
বংশী চলে গেল। যাওয়ার সময় মুগ্ধর হাতে একটা বোতল দিয়ে গেল। তিতির জিজ্ঞেস করলো,
-“এটা কি?”
-“এটা দিতেই তো বংশী এসেছিল।”
-“হ্যা কিন্তু জিনিসটা কি?”
-“মহুয়া।”
-“সেটা কি? মদ?”
-“ছি, এভাবে বলো না। যদিও ওই টাইপেরই। কিন্তু মহুয়া ইজ মহুয়া। চরম একটা জিনিস। খাসিয়ারা বানায় ফল দিয়ে।”
-“মানে কি? মদ তো মদই। তুমি যদি ওটা খাও আমার ধারেকাছেও আসবে না। ছিঃ আর তুমি মদ খাও আমি ভাবতেও পারিনি। আমি জানতাম তোমার কোনো নেশা নেই।”
মুগ্ধ বোতলটা সোফার সামনের টি-টেবিলের উপর রেখে তিতিরের কাছে এসে বলল,
-“আরে বাবা, আমাকে একটু বলার সুযোগ দাও।”
তিতির সরে গিয়ে বলল,
-“কি সুযোগ দেব? ছিঃ তুমি মদ খাও ভাবতেই আমার গা গোলাচ্ছে।”
মুগ্ধ তিতিরকে জড়িয়ে ধরে বলল,
-“শোনো তিতিরপাখি, আমার সত্যিই কোনো নেশা নেই উইদাউট ইউ। ইভেন অকেশনালিও এসব করিনা শুধু বান্দরবান আর কুয়াকাটা গেলে মহুয়াটা খাই। তাও প্রত্যেকবার না। এটা অন্যরকম স্বাদ। আমি প্রথমবার যখন খেয়েছিলাম তখনই ঠিক করে রেখেছিলাম যে বউয়ের সাথে একবার খাব। সেজন্যই বংশীকে দিয়ে আনিয়েছি।”
তিতির চোখ বড় বড় করে বলল,
-“আমি খাব?”
-“হ্যা, মানে অল্প।”
তিতির সরে গেল। বিছানায় বসে বলল,
-“অসম্ভব।”
মুগ্ধ তিতিরের পাশে বসলো। বলল,
-“এক চুমুক খেয়ে ট্রাই করো। ভাল না লাগলে খেয়ো না।”
তিতির হ্যা না আর কিছু বলল না। প্রসঙ্গ পাল্টালো,
-“বাদ দাও, আচ্ছা উনি না বলেছিল কোনো কটেজ খালি নেই, তাঁবুতে থাকার ব্যবস্থা করবে। তাহলে পরে আমরা কটেজ কিভাবে পেলাম?”
-“ওহ এই কটেজটা অলরেডি বুকিং দেয়া। যারা বুক করেছে তারা কাল আসবে। তাই আজ আমাদের দিতে পারলো।”
-“ও।”
মুগ্ধ তিতিরের একটা হাত ধরে বলল,
-“তুমি রাগ করেছো?”
-“কেন?”
-“মহুয়া আনালাম বলে?”
-“না তা না কিন্তু আমি এগুলো পছন্দ করি না।”
-“এই তোমাকে ছুঁয়ে বলছি নেশা জাতীয় কোন কিছুই আমি রেগুলার করি না।”
তিতির আহ্লাদ করে হাসলো। তারপর বলল,
-“আচ্ছা ঠিকাছে।”
মুগ্ধ হঠাৎই বলল,
-“সিরিয়াসলি তোমাকে শাড়ি পড়ায় বড় লাগছে। একদম বউ বউ।”
তিতির হাসলো। মুগ্ধ তিতিরের কোমর ধরে কাছে নিয়ে আসলো। তারপর বলল,
-“বিয়ের পর সবসময় আমার সাথে যখন থাকবে ফর সিওর তুমি খুব বিরক্ত হবে।”
-“কেন?”
-“এইযে, তোমাকে এক মুহূর্তের জন্য ছাড়বো না যে। বুকেই রাখবো।”
-“তখন আর এত আকর্ষণ থাকবে না।”
-“কে বলল তোমাকে?”
-“পুরোনো হয়ে যাব না?”
-“কিছু জিনিস কখনো পুরোনো হয়না তেমনি কিছু মানুষও কখনো পুরোনো হয়না। প্রতিদিন নতুন করে ভাললাগা জন্মায় তাদের প্রতি।”
-“সত্যি তো?”
-“সত্যি।”
ওদের গল্প চলতেই থাকলো। এক সময় বংশী খাবার দিয়ে গেল। তিতির বলল,
-“আমার না তোমাকে নিজের হাতে খাইয়ে দিতে ইচ্ছে করছে, দিই?”
-“কি সৌভাগ্য! কি সৌভাগ্য! প্লিজ দাও।”
তিতির এলোমেলো চুলগুলোকে হাতখোঁপায় বেঁধে কোমরে আঁচল গুঁজে নিল। মুগ্ধ তাকিয়ে রইলো ভ্যাবলার মত। একদম গিন্নী গিন্নী লাগছে। এই সৌন্দর্য কোথায় ছিল এতদিন?
তিতির হাত ধুয়ে ভাত নিল প্লেটে। ভাত মেখে মুগ্ধর মুখে সামনে তুলে ধরলো। মুগ্ধ তখনও তাকিয়ে। তিতির বলল,
-“কি হলো? নাও খাও।”
মুগ্ধ হা করলো তিতির খাইয়ে দিল। মুগ্ধ বলল,
-“তুমিও খাও।”
-“তুমি খাও, আমার ইচ্ছে করছে না।”
-“ওকে আমিও খাব না, রাখো।”
-“আচ্ছা আচ্ছা খাচ্ছি, বাপরে বাপ! ব্ল্যাকমেইলর একটা।”
তিতিরও খেল। মুগ্ধ হেসে দিল। খাওয়াদাওয়া শেষ করে তিতির যখন হাত মুখ ধুয়ে প্লেটগুলো গোছাচ্ছিল। পিছন থেকে মুগ্ধ ওকে ধরে নিজের দিকে ফেরালো। কপালে একটা চুমু দিল। তারপর চোখে চোখ রেখে বলল,
-“তোমাকে যতটা বাচ্চা ভাবি ততটা বাচ্চা তুমি নও।”
-“একথা কেন বললে?”
-“এইযে এত সুন্দর করে খাইয়ে দিলে। তারপর এই খোঁপা! আঁচল কোমড়ে গোঁজা। সব মিলিয়ে পারফেক্ট বউ।”
-“আমার সবই তো তোমার পারফেক্ট লাগে। আমার খারাপটা বলোতো। ভাল শুনতে শুনতে আমি টায়ার্ড।”
-“তোমার খারাপটা হচ্ছে তুমি খুব কিপটা।”
-“কি কিপটামি করেছি?”
-“আদর করতে কিপটামি করো সবসময়। নিজে থেকে তো শুধু জড়িয়ে ধরো আর কিছুই না। আমাকেও করতে দাওনা।”
তিতির লাজুক মুখে বলল,
-“আজ তো দিয়েছি।”
মুগ্ধ তিতিরের শাড়ির ভেতর দিয়ে কোমরের কার্ভে হাত রেখে বলল,
-“তাই?”
তিতির একটু নড়ে উঠে বলল,
-“ছাড়ো সুড়সুড়ি লাগে।”
মুগ্ধ আস্তে আস্তে হাতটা উপরের দিকে ওঠাতে লাগলো। তিতির ছটফট করতে লাগলো। সরে যেতে চেয়েও পারলো না। মুগ্ধর একহাত ওকে ধরে রেখেছে। অবশেষে বলল,
-“দোহাই লাগে ছাড়ো। নাহলে মরে যাব।”
মুগ্ধ হাত সরিয়ে নিল, ছেড়ে দিল। তারপর বলল,
-“দেখেছো! আমি কিছু করতাম না জাস্ট দেখালাম তুমি কত কিপটা।”
তিতির নিচু স্বরে বলল,
-“আমার খুব সুড়সুড়ি লাগছিল।”
মুগ্ধ মুচকি হেসে বলল,
-“হুম জানি, আমি দুষ্টুমি করছিলাম।”
তিতির মুগ্ধর কাছে এসে ওকে জড়িয়ে ধরে বলল,
-“এটাতে কখনো কিপটামি করিনা আমি।”
মুগ্ধও ওকে জড়িয়ে ধরে বলল,
-“হুম, আর এটাই আমাকে সবথেকে বেশি শান্তি দেয়। যতক্ষণ তুমি দূরে থাকো, উত্তাল সমুদ্রের ঢেউয়ের মত উথাল পাথাল করতে থাকে বুকের মধ্যে। তারপর যখন এসে জড়িয়ে ধরো সব ঠান্ডা হয়ে যায়। তখন আমার চেয়ে সুখী মানুষ পৃথিবীতে আর একটিও পাবে না।”
তিতির বলল,
-“আমারও একই অবস্থা হয়।”
কিছুক্ষণ পর মুগ্ধ বলল,
-“এই চলো মহুয়া খাই, তুমি কখন ঘুমিয়ে পড়বে তার ঠিক নেই।”
-“আমি কিন্তু অল্প একটু খাব।”
-“হুম। অল্পই পাবে, বেশিটা পাবে কোথায় আমারই লাগবে ওটুকু।”
-“খেলে কি নেশা হয়?”
-“অল্প খাবেতো, নেশা হবে কোত্থেকে?”
-“তুমি তো বেশি খাবে।”
-“আমার তো অভ্যাস আছে রে বাবা। আরো বেশি খেয়েও নেশা হবে না। আর নেশা হলেও তোমার ভয় পাওয়ার কিছু নেই। নেশা হলে আমি খুব ঠান্ডা হয়ে যাই। চুপচাপ বসে থাকি।”
-“ও।”
মুগ্ধ বংশীকে ফোন করে বরফ আনালো। বরফ, গ্লাস আর মহুয়ার বোতল নিয়ে ওরা বারান্দায় চলে গেল। মুগ্ধ গ্লাসে ঢেলে এগিয়ে দিতেই তিতির বলল,
-“পানি মেশাবে না?”
-“আরে এটা ওইটাইপ না বাবা। এটা মহুয়া। পানি মেশানো লাগে না। পানি মেশালে টেস্টই চলে যাবে।”
-“ও।”
মুগ্ধ এক গ্লাস খেয়ে ফেলেছে, তিতির তখনো একটু খানি হাতে নিয়ে বসে রয়েছে ওর পাশে, মুখে দেয়নি। মুগ্ধ তা দেখে বলল,
-“খেতে যদি একান্তই ইচ্ছা না করে জোর করে খেওনা।”
-“না, তেমন কিছু না।”
তিতির মুখে দিল। ঘ্রাণটা সুন্দর, খেতেও টেস্টি কিন্তু গলা দিয়ে নামার পর কেমন যেন লাগলো। কয়েক সেকেন্ড যাওয়ার পর তিতির বলল,
-“ওয়াও, গ্রেট!”
-“কি?”
-“টেস্ট টা! খাওয়ার কতক্ষণ পরে বেশি ভাল লাগে।”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“বলেছিলাম।”
গ্লাসের টুকু শেষ করে তিতির বলল,
-“আমি আরো খাব।”
-“পাগল? নেশা হয়ে যাবে তোমার।”
-“না না হবে না। প্লিজ আরেকটু দাও না।”
-“না বাবা, এমন করোনা। টেস্টটা অনেক ভাল বলে তোমাকে আমি টেস্ট করিয়েছি। তার মানে এই না যে আমি তোমাকে আরো দিতে পারি। এটা অনেক কড়া।”
মুগ্ধ কিছু বুঝে ওঠার আগেই তিতির বোতলে মুখ লাগিয়ে ঢকঢক করে খেতে লাগলো। তারপর মুগ্ধ টেনে নিয়ে নিল। বলল,
-“ইশ কেন যে আনতে গেলাম।”
-“কেন? খুব ভাল করেছো আনতে দিয়ে। খুব মজা তো।”
ততক্ষণে তিতিরের কথা জড়িয়ে যাচ্ছিল। মুগ্ধ আর খেলনা। তিতির সোফায় হেলান দিয়ে শুয়ে পড়লো। কিছুক্ষণের মধ্যেই মুগ্ধ বুঝলো তিতির ঘুমিয়ে পড়েছে, যাক বাবা, বাঁচা গেল। নেশা হওয়ার আগে ঘুমিয়ে পড়লো। মুগ্ধ কিছুক্ষণ তাকিয়ে রইলো তিতিরের ঘুমন্ত মুখটার দিকে। ইশ, পৃথিবীর সব সুখ যেন এই মুখটার মাঝে। মুগ্ধ এগিয়ে তিতিরের কপালে একটা চুমু দিল। চুমু দিয়ে আর উঠতে পারলো না তিতির ওর শার্টের কলার ধরে ফেলেছে কখন যেন। ছাড়াতে যেতেই তিতির চোখ খুলে বলল,
-“আগে বলো খুলবে?”
মুগ্ধ অবাক,
-“কি খুলবো?”
-“এই পচা শার্ট টা।”
-“পচা? এটা তো তোমারই পছন্দের শার্ট। তুমিই দিয়েছিলে।”
-“নাহ এটা খুব পচা। এটা তোমার বুকের লোমগুলোকে ঢেকে রেখেছে, আমি কিসসি করতে পারছি না।”
মুগ্ধর বুঝে গেল, নেশা ভাল ভাবে হয়েছে। হবেই তো, বোতলে মুখ লাগিয়ে গিলেছে! পাগলী একটা। ওকে তারাতারি ঘুম পাড়িয়ে দিতে হবে। মুগ্ধ ওকে কোলে নিতে যাচ্ছিল। তিতির বলল,
-“খবরদার, এভাবে কোলে নিবে না। শার্ট খোলো আগে।”
মুগ্ধ অগত্যা শার্ট খুললো। তিতির সেটাকে ছুড়ে ফেলে দিল, শার্ট টা ঘরের দরজায় লেগে মাটিতে পড়লো। মুগ্ধ বলল,
-“খুশি?”
তিতির সেকথার উত্তর না দিয়ে মুগ্ধকে ধাক্কা দিয়ে শুইয়ে দিল সোফার উপর। ওর বুকে মধ্যে মুখ ডুবিয়ে ঘ্রাণ নিল কতক্ষণ, তারপর অজস্র চুমুতে ভরিয়ে দিল মুগ্ধর বুকটা। মুগ্ধর তখন পাগলপ্রায় অবস্থা। চুমু দিতে দিতে একসময় তিতির ওর গলাতেও চুমু দিল, তারপর গালেও দিল। মুগ্ধ ওর মুখটা ধরে বলল,
-“শোনো তিতির, তোমার নেশা হয়ে গেছে, চলো ঘরে গিয়ে ঘুমাবে।”
-“উফফফো! এমন পূর্ণিমারাতে এত সুন্দর পরিবেশে কেউ ঘুমায়?”
-“হুম, ঘুমায়।”
-“জানো, কেন আজকে থাকতে চেয়েছিলাম?”
-“কেন?”
-“তুমি আমাকে যতবার কিসসি করতে চেয়েছো আমি দিইনি। পরে খারাপ লেগেছে। আমি জানতাম থাকলে একসাথেই থাকবো আর তুমি আমাকে কিসসি করতে চাইবে, তখন আমি আর বাধা দিবনা। সেজন্য থাকতে চেয়েছি।”
-“হুম, আমি যদি সুযোগ নিয়ে আরো অনেক কিছু করে ফেলতাম তখন?”
উত্তর দিল না তিতির। বলল,
-“জানো তুমি যখন কিসসি করেছিলে তখন আমি কেন কেঁদেছিলাম?”
-“জানতে তো চেয়েছিলাম, তুমি বলোনি।”
-“তুমি এত সুন্দর আদর করে ধরেছিলে আমাকে আর এত সুন্দর করে কিসসি করেছিলে যে আমার বুকের ভেতর কেমন যেন অস্থির অস্থির করছিল। আমি সেই অস্থিরতাটা সহ্য করতে পারছিলাম না। কেমন যেন! সেজন্যই কান্না এসে গিয়েছিল আর আমি কেঁদে ফেলেছিলাম।”
মুগ্ধ তিতিরের মুখটা নিজের বুকে রেখে বলল,
-“ওহ, আহারে!”
তিতির মুখটা আবার তুলল। মুগ্ধর চোখের দিকে তাকিয়ে বলল,
-“এই শোনোনা, তখন আমি আবেশে কোনো এক অন্য দুনিয়ায় চলে গিয়েছিলাম। কিছুতেই বুঝতে পারিনি তুমি কিভাবে আমাকে কিসসি করেছিলে! আর আমার কেমন অনুভূতি হয়েছিল, শুধু অস্থির অস্থির লাগাটা বুঝতে পেরেছিলাম। আমাকে আরেকবার ওভাবে কিসসি করবে?”
মুগ্ধ হাসলো আর ভাবলো, ইশ কি ইনোসেন্ট! নিজেকে পৃথিবীর সবচেয়ে ভাগ্যবান পুরুষ বলে মনে হচ্ছিল। তিতির ওকে চুপ করে থাকতে দেখে বলল,
-“ভাবছো তো নিজে না করে তোমার কাছে চাইছি কেন? আমি তো জানিনা কিভাবে করতে হয়। তখন তো বুঝতে পারিনি। আমাকে একটু শিখিয়ে দাও না। আমিও তোমার মত করে তোমাকে আদর দিতে চাই।”
মুগ্ধ তিতিরকে সরিয়ে উঠে বসলো। তারপর দাঁড়াল। তিতির বলল,
-“দাও না, প্লিজ। আর কখনো তোমাকে ফিরিয়ে দেব না।”
মুগ্ধ হেসে তিতিরকে কোলে তুলে নিল। তারপর ঘরে নিয়ে গিয়ে বিছানায় শুইয়ে দিল। তিতির বলল,
-“কিসসি না করে ঘুমাবো না।”
তিতির তখনো মুগ্ধর গলা ধরে আছে। মুগ্ধ বলল,
-“জানি।”
মুগ্ধ তিতিরের কানের নিচ দিয়ে চুলের ভেতর হাত গলিয়ে ওর মুখটা কাছে নিয়ে এল। তারপর তিতিরের ঠোঁটে চুমু খেল। তিতিরও একসময় মুগ্ধর গলা জড়িয়ে ধরলো। মুগ্ধ যখন ছাড়তে চাইলো তিতির ছাড়লো না। পারলে ও মুগ্ধর গলায় ঝুলেই উঠে আসে। মাঝে মাঝে আবার কামড়ও দিচ্ছিল।
কিছুক্ষণ পর তিতির মুগ্ধকে ছেড়ে হাঁপাতে লাগলো। মুগ্ধ উঠে যাচ্ছিল। তিতির ধরে রাখলো। মুগ্ধ হেসে জিজ্ঞেস করলো,
-“কি? আরো?”
তিতির এক্সাইটমেন্টে, নেশা আর ঘুমের মধ্যে কি যে বলল বুঝতে পারলো না মুগ্ধ। মুগ্ধ জিজ্ঞেস করলো,
-“বুঝিনি কি বললে! আবার বলবে?”
-“তোমার এক্স গার্লফ্রেন্ডদের কি এভাবেই কিসসি করতে?”
-“আরে নাহ!”
-“তাহলে কিভাবে করতে?”
-“কেন এসব জিজ্ঞেস করছো?
তিতির কান্না করে দিল,
-“বলোনা..”
-“এভাবে করতাম না। তুমি আবার কাঁদছ কেন?”
-“এভাবে চুলের ভেতর হাত দিয়ে ধরতে?”
-“নাহ।”
-“ওইভাবে কোমরে ধরতে?”
-“না।”
-“উপরের ঠোঁটটায় কি…..”
মুগ্ধ তিতিরের মুখ চেপে ধরে চোখের দিকে তাকিয়ে বলল,
-“শোন পাগলী! আমি কখনো কাউকে এভাবে আদর করিনি। যতটা ভালবাসলে এভাবে আদর করা যায় ততটা ভাল শুধু তোকেই বেসেছি। আর তোর পরেও আমি অন্য কোনো মেয়েকে স্পর্শ করবো না। মাথায় কিছু ঢুকেছে?”
তিতির মুগ্ধকে জড়িয়ে ধরে বলল,
-“উফফফ, বাঁচালে!”
তিতিরের পাগলামি দেখে মুগ্ধর নিজেরই মাথা ঘুরছিল। ওকে বুকের মধ্যে জড়িয়ে ধরে শুয়ে রইল মুগ্ধ। একসময় ঘুমিয়েও পড়লো তিতির। হয়তো কাল ঘুম থেকে উঠে তিতিরের কিছুই মনে থাকবে না। কিন্তু মুগ্ধর জীবনে তিতিরের সাথে বিয়ে, সংসার আরো আরো যতকিছুই হোক না কেন আজকের এই স্পেশাল রাতটা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে!
To be continued..
Tagged : / /

প্রেমাতাল পর্ব – ৩০ || মৌরি মরিয়ম

তিতির ভয়ে ভয়ে তাকিয়ে আছে মুগ্ধর দিকে। ও বংশীর কথা তো শুনতে পাচ্ছে না কিন্তু মুগ্ধ চুপ করে থেকে একসময় বলল,
-“আচ্ছা আচ্ছা নো প্রব্লেম। হুট করে এলে এমনটা হতেই পারে। আচ্ছা বংশী দা। রাখছি তাহলে।”
ফোন রাখতেই তিতির বলল,
-“ব্যবস্থা হয়নি না?”
মুগ্ধ তিতিরের গাল টিপে দিয়ে বলল,
-“মন খারাপ করোনা। আমি সামনের মাসেই আগে থেকে বুকিং দিয়ে তোমাকে নিয়ে আসব।”
তিতির বলল,
-“আমি পারমিশন পাব না।”
-“পাবা পাবা।”
-“না পাবনা।”
-“আচ্ছা বাদ দাওনা এখন, যেভাবেই হোক আমি তোমাকে নিয়ে আসবো। এখন একটু খাও।”
তিতির প্লেট এগিয়ে নিল। খাওয়া শুরু করে বলল,
-“হ্যা, এতক্ষণ তো টেনশনে ছিলাম তাই খেতে পারছিলাম না। এখন তো আর কোনো টেনশন নেই, সব শেষ।”
-“বোকার মত কথা বলোনা তিতির। কিসের সব শেষ?”
তিতির কিছু বলল না, মন খারাপ করে খেতে থাকলো। হঠাৎ তিতিরের চোখ পড়লো টেবিলের উপর রাখা লাচ্ছির দিকে। ৪ গ্লাস লাচ্ছি আর সাথে হাফ লিটারের বোতলের এক বোতল লাচ্ছি। তিতির বলল,
-“এত লাচ্ছি দিয়ে কি হবে?”
-“খাব। গ্লাসের গুলো এখন খাব। বোতলের টা রাস্তায় যেতে যেতে খাব। নষ্ট হয়ে যাবে নাহলে আরো নিতাম। এটা আমার প্রিয় লাচ্ছি। সব ইনগ্রিডিয়েন্স গুলো এত পারফেক্ট পরিমাণে দেয় যে একদম পারফেক্ট একটা লাচ্ছি হয়। তিতির এতক্ষণে হাসলো। বলল,
-“তুমি পাগল একটা।”
-“না, খাদক।”
রাস্তার অপজিটে আর্মিদের একটা সুপার শপ ছিল। খাওয়া শেষ হতেই মুগ্ধ ওই শপটা দেখিয়ে বলল,
-“চলো ওই শপটাতে একটু যাব।”
-“কি কিনবে আবার?”
-“চকলেট কিনবো।”
-“তুমি যাও। আমার যেতে ইচ্ছে করছে না। এখানেই বরং ভাল লাগছে। তুমি যাও। কেনাকাটা শেষ করে এসো। আমি এখানেই বসে থাকি।
মুগ্ধ আর জোর করলো না, চলে গেল। মুগ্ধ যাওয়ার কিছুক্ষণ পরেই হঠাৎ করে বৃষ্টি নামলো। তিতির ভিজে যাচ্ছে, ধুর! সবগুলো টেবিলের উপর ছাতা আছে, শুধু ওদেরটাতেই নেই। ভেতরে চলে যেতে পারে কিন্তু তাহলে তো মুগ্ধ ওকে খুঁজে পাবে না। ফোনটাও তো ব্যাগে আর ব্যাগ মুগ্ধর কাছে। যখন বৃষ্টির জোর বাড়লো তখন তিতিরের ভালই লাগলো ভিজতে। এর মধ্যেই মুগ্ধ দৌড়াতে দৌড়াতে এল। এসেই ওকে হাত ধরে টেনে নিয়ে যাচ্ছিল। তিতির বলল,
-“কোথায় যাচ্ছি?”
-“সিএনজি ঠিক করেছি।”
-“ওহ।”
মুগ্ধ বলল,
-“ভিজছিলে কেন তুমি?”
-“তো কি? যদি হারিয়ে যাই, আমার ফোন তো তোমার কাছে।”
মুগ্ধ তাকিয়ে দেখলো তিতিরের ঠোঁট বেয়ে বৃষ্টির পানি পড়ছে আর সেই ফোঁটা ফোঁটা পানিগুলো তিতির ওর ঠোঁট দিয়ে পিষে ফেলছে কথা বলার সময়। মুগ্ধর সেই ফোটাগুলোকে এখন হিংসা হচ্ছে। তিতির বলল,
-“কি হলো দাঁড়িয়ে পড়লে যে?”
-“এমনি, চলো চলো।”
সিএনজিতে উঠেই মুগ্ধ আবার তাকালো তিতিরের দিকে। ওর ঠোঁটদুটো ভিজে সপসপে হয়ে আছে। এই মুহূর্তে মুগ্ধর প্রচন্ড ইচ্ছে করছে ওই ভেজা ঠোঁটের ছোঁয়া পেতে। এই অন্ধকারে সিএনজিতে সেটা পাওয়াও সম্ভব। কেন যেন মনে হচ্ছে তিতির আজ বাধা দেবে না। কিন্তু নিজেকে সামলে নিল মুগ্ধ। ওদের প্রথম চুমুটা কিনা এভাবে হবে? নাহ! সুন্দর, পারফেক্ট একটা সময়ের জন্য মুগ্ধ অপেক্ষা করবে। যখন কোনো তাড়া থাকবে না, কেউ দেখে ফেলার আতঙ্ক থাকবে না আর যখন তিতিরের কোনো সংকোচ থাকবে না।
সিএনজি বাস স্ট্যান্ড পার হওয়ার পর তিতির বলল,
-“এই আমরা বাস স্ট্যান্ড পার হয়ে এলাম তো।”
মুগ্ধর ঠোঁটে মুচকি হাসি দেখেই তিতির বুঝে ফেলল। বলল,
-“আমরা আজ থাকছি?”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“হ্যা, বংশী ফোন দিয়ে কনফার্ম করেছিল তখন, আমি তোমার সাথে একটু মজা করছিলাম। আর তাঁবুতে থাকতে হবে না। আমরা কটেজ পেয়েছি।”
তিতির একমুখ হাসি নিয়ে এক লাফ দিয়ে মুগ্ধর গলাটা জড়িয়ে ধরলো। মুগ্ধ হাসতে হাসতে বলল,
-“তুমি এত পাগলী কেন?”
তিতির ওর পিঠে খামচি মেরে বলল,
-“তুমি এত খারাপ কেন? কি মন খারাপ হয়েছিল আমার।”
মুগ্ধ হঠাৎই তিতিরের কোমর জড়িয়ে ধরে ওকে কোলের মধ্যে উঠিয়ে নিল। তারপর কানের কাছে মুখ নিয়ে বলল,
-“আই লাভ ইউ পাগলী!”
তিতিরের ইচ্ছে করছিল রিপ্লাই দিতে কিন্তু দিলনা। যখন দিবে বলে ঠিক করে রেখেছে তখনই দিবে। ভালবাসার বহিঃপ্রকাশ কি শুধু লাভ ইউ টু বললেই হয়? আরো কত উপায় আছে! তিতির তারই একটা বেছে নিল। মুগ্ধর শার্টের ডান পাশের কলারটা সরিয়ে মুখ ডুবিয়ে দিল ওর গলার ডান পাশে। তারপর ইচ্ছেমত চুমু দিল। মুগ্ধর পায়ের রক্ত এক লাফে মাথায় উঠে গেল। হাওয়ায় ভাসতে লাগলো। নিজ উদ্যোগে করা তিতিরের প্রথম আদর। মুগ্ধ ওকে জাপ্টে ধরে রাখলো নিজের বুকের মধ্যে।
কিছুক্ষণের মধ্যে যখন ওরা “রিসোর্ট হলিডে ইন” এ পৌঁছল, গাড়ির শব্দ পেয়ে বংশী দৌড়ে এল,
-“আইয়ে বিবিজি আইয়ে। আল্লাহ মেহেরবান কি হাম আপকো লিয়ে কুছ কার পায়া।”
তিতির হাসলো কিছু বলল না। ওদের ব্যাগ দুটো জোর করে নিয়ে নিচ্ছিল। মুগ্ধ দিলনা। জিজ্ঞেস করলো,
-“বংশী বিবিজিকে কেমন দেখলে? পছন্দ হয়েছে?”
বংশী মাথা নিচু করে বলল,
-“সাহাব ইয়ে আপনে কেয়া পুছা? মুজহে তো লাগা কি বেহেশত সে কোয়ি হুর আগেয়া।”
মুগ্ধ বলল,
-“হ্যা তা ঠিক, কিন্তু বেশি বাচ্চা না?”
-“লেড়কি কাভি বাচ্চা নেহি হোতি সাহাব। উহারা পালাট কে সাত সাত জোয়ান বান যাতা।”
কথা বলতে বলতে ওরা রিসিপশনে চলে এল। তিতির বসলো। মুগ্ধ ফর্মালিটিজ সেরে তিতিরকে নিয়ে কটেজের সামনে যেতেই তিতির বলল,
-“আমরা এখানে থাকব?”
-“হ্যা।”
-“আর ইউ সিওর?”
-“হ্যা।”
-এই পুরো কটেজটা আজকের জন্য আমাদের?”
মুগ্ধ এবার হেসে দিল। তারপর বলল,
-“হ্যা।”
তিতির আরেকবার তাকিয়ে দেখে নিল কটেজটাকে। ছোট্ট একটা একতলা ঘর। কিন্তু দোতলা সমান উঁচু। নিচতলা সমান যায়গা ফাকা। টোঙ ঘরের মত করে বানানো। সামনেই চওড়া সিঁড়ি। সিঁড়ির উপরে দোচালা ডিজাইনের চাল। সিঁড়ি দিয়ে উঠলেই বারান্দা। বারান্দা দিয়েই ভেতরে ঢোকার দরজা দেখা যাচ্ছে। তিতির পা বাড়াতেই মুগ্ধ থামালো,
-“এই দাঁড়াও।”
-“কেন?”
-“বংশী একটা ছেলেকে পাঠালো না আমাদের ব্যাগ নিয়ে?”
-“হ্যা।”
-“ও বের হোক, তারপর আমরা যাব।”
-“আচ্ছা।”
ছেলেটা বের হয়ে চলে যেতেই মুগ্ধ তিতিরকে কোলে তুলে নিল। তিতির মুগ্ধর গলার পিছনে দু’হাত বাধলো, মুখে হাসি। মুগ্ধ ওকে কোলে নিয়ে সিঁড়ি দিয়ে উপড়ে উঠে গেল। ভেতরে নিয়ে নামালো। তিতির ভেতরটা দেখে বিস্ময়ে মুখ চেপে ধরলো। পুরো রুমটাই কাঠের, ইভেন দেয়াল, ফ্লোর সব কাঠের। রুমে ঢুকেই হাতের ডান পাশে বিছানা সাদা বেড কভার বিছানো। বিছানার পাশেই বিশাল আয়নার বিলাশবহুল ড্রেসিং টেবিল। একটু সরে একটা আলমারি। সব ফার্নিচার ম্যাচিং ডিজাইনের। বাম পাশের দেয়ালের কর্নারে একটা দরজা, হয়তো টয়লেট। বাকী দেয়ালটুকু পুরোটাই সাদা পর্দা দিয়ে ঢাকা, নিচে কি? জানালা নাকি? কে জানে। সামনের দেয়ালে থাই গ্লাস লাগানো সিলিং থেকে ফ্লোর পর্যন্ত পুরোটা। এখানেও সাদা পর্দা। মুগ্ধ পর্দাটা টেনে দিয়ে তিতিরের সামনে এসে দাঁড়ালো। তারপর বলল,
-“কি ম্যাম? পছন্দ তো?”
-“পছন্দ হবে না মানে? আমি তো বিশ্বাস করতে পারছি না কি দেখছি আমি!”
-“আচ্ছা শোনো, অনেকক্ষণ ভেজা কাপড়ে আছো। চেঞ্জ করো। নাহলে ঠান্ডা লেগে যাবে। সারারাত যখন এখানেই আছো তখন সব দেখতে পারবে আস্তে আস্তে।”
-“আচ্ছা। আমি বাথরুমে যাচ্ছি চেঞ্জ করতে। তুমি রুমেই চেঞ্জ করে নাও।”
-“হুম।”
তিতির যখন ব্যাগ থেকে কাপড় বের করতে যাচ্ছিল মুগ্ধ বাধা দিল। তারপর নিজের ব্যাগ থেকে একটা প্যাকেট বের করে তিতিরের হাতে দিয়ে বলল,
-“এই নাও। এটা পড়ো।”
-“এটা কি?”
-“শাড়ি। তোমার জন্য কিনলাম একটু আগে।”
-“মানে আর্মি শপটাতে তুমি এজন্যই গিয়েছিলে?”
-“হ্যা। কাল তো একটু দেখেছি শাড়ি পড়া বউ তিতিরপাখিকে। আজ যখন সুযোগ পেয়েছি মিস করতে ইচ্ছে হলোনা।”
-“কিন্তু শাড়ি পড়তে তো আরো অনেক কিছু লাগে। পেটিকোট, ব্লাউজ। ওগুলো কোথায় পাব স্যার? কাল তো পিউয়ের টা পড়েছিলাম।”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“তোমার কি আমাকে বলদ মনে হয়? আমি আর যাই হইনা কেন বলদ নই। আর মেয়েদের ব্যাপারে সবই জানি সো শাড়ি পড়তে কি লাগে না লাগে তা আনবো না ভাবলে কি করে?”
তিতির হেসে বলল,
-“জানি আমি। কিন্তু আমি তো শাড়ি পড়তে পারিনা। কালই প্রথম পড়লাম। তাও মা পড়িয়ে দিয়েছিল।”
-“তো তুমি দেখোনি মা কিভাবে পড়িয়েছিল?”
-“হুম দেখেছি, শিখেছি কিন্তু অনেক প্যাঁচ। সব ভুলে গেছি।”
-“হায় খোদা! এখন শাড়ি পড়ানোটাও আমার শিখিয়ে দিতে হবে?”
-“তুমি পারো?”
-“পারব না কেন? মুগ্ধ সব পারে।”
-“কিভাবে পারো?”
সন্দেহের দৃষ্টি তিতরের চোখে। মুগ্ধ বলল,
-“ইউটিউবে আজকাল কি না শেখা যায় বলো? আমার খুব সাধ জেগেছিল শাড়ি পড়া দেখবার। কিন্তু জিএফ বউ কিছুই তো ছিলনা। তাই ইউটিউব থেকেই দেখেছি। আর শিখেও ফেলেছি।”
-“তুমি ওই মেয়েটার পেটের দিকে তাকিয়েছিলে?”
মুগ্ধ চমকে উঠে জিজ্ঞেস করলো,
-“কোন মেয়ে?”
-“ইউটিউব ভিডিওতে যে মেয়েটা শাড়ি পড়া শেখাচ্ছিল?”
মুগ্ধর মাথায় দুষ্টু বুদ্ধি এল। বলল,
-“হ্যা। মানে একটা সুন্দরী মেয়ে চোখের সামনে সুন্দর, মসৃন পেট বের করে শাড়ি পড়ছে। আর আমি কি চোখ বন্ধ করে থাকবো বলো? আমি কি পুরুষ মানুষ নই?”
-“তুমি সত্যি দেখেছো?”
-“হ্যা দেখেছি। বাট আই প্রমিস আমি আর কোনো শাড়ি পড়া মেয়ের পেটের দিকে তাকাব না। তখন তো তুমি ছিলে না তাইনা?”
তিতির উত্তর নাদিয়ে রাগ করে বাথরুমে ঢুকে গেল। ঢুকে তো ভিমরি খাওয়ার জোগাড়। বাথটাব, হাই কমোড সব আছে। কিসের সাথে কিসের কম্বিনেশন! যাই হোক, ওর মুডটা অফ! মুগ্ধ কি বলল এটা! সত্যি কি দেখেছে নাকি ওকে ক্ষ্যাপানোর জন্য বলেছে কে জানে!
প্যাকেট টা খুলতেই তিতির দেখলো সিলভার পাড়ের লাল তাতের শাড়ি এনেছে মুগ্ধ। উফ শাড়িটা এত সুন্দর কেন? মুগ্ধর পছন্দ আছে বলতে হবে। সাথে লাল ব্লাউজ, পেটিকোটও আছে। ফ্রেশ হয়ে শাড়িটা পড়ার অনেক চেষ্টা করলো তিতির কিন্তু পারলো না। কোনোভাবে পেঁচিয়ে বেড়িয়ে এল। বাইরে এসে দেখলো মুগ্ধ সোফায় হেলান দিয়ে ঘুমাচ্ছে। ইশ! কাল রাতে ঘুমাতে পারেনি বলেই হয়তো এখন ওর অপেক্ষা করতে করতে ঘুমিয়ে গেছে। তিতির ওর কাছে গিয়ে ভেজা চুলগুলো মুগ্ধর চোখের উপর ধরলো। কয়েক ফোঁটা পানি পড়তেই মুগ্ধ লাফিয়ে উঠে হেসে দিল। তারপর তিতিরের দিকে তাকাতেই চোখে যেন নেশা ধরলো। লাল শাড়িতে কিযে অপূর্ব লাগছে তিতিরকে! কাল নীল শাড়িতে বউ বউ লাগছিল আর আজ লাল শাড়ি, ভেজা চুল সব মিলিয়ে মনে হচ্ছে নতুন বউ বিয়ের পরদিন সকালে গোসল করে বেড়িয়েছে! কি বলবে! কিভাবে এক্সপ্রেশ করবে তিতিরকে দেখে ওর ভেতরে কি হচ্ছে। বাকরুদ্ধ হয়ে অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিল মুগ্ধ।
মুগ্ধ এমনভাবে তাকিয়ে ছিল যে তিতির লজ্জায় কোনো কথাই বলতে পারছিল না। মুগ্ধ আচমকা তিতিরকে কোলে তুলে নিল তারপর টয়লেটের পাশের দেয়ালের পর্দা সরিয়ে দরজা ঠেলে বারান্দায় চলে গেল। বারান্দাটা দেখে আরও একবার মুগ্ধ হলো তিতির। সামনে বিশাল লেক। লেকটা কি কৃত্রিম না প্রাকৃতিক কে জানে! মুগ্ধকে জিজ্ঞেস করে নিতে হবে পরে। এখন আর কোনো কথা বলতে ইচ্ছে করছে না।
বারান্দাটা বেশ বড়। বারান্দায় কোনো ছাদ দেই। আর ঘরের সাথে লাগোয়া দেয়কলটি ছাড়া বাকি তিন দিকের দেয়ালগুলো ছোট ছোট হাটুসমান। প্রত্যেকটা কর্নারে ফুলের টব। একপাশে একটা সাদা রঙের সোফা। একটা ইরানি লাইটও জ্বলছিল বারান্দার এক কোনায়। মুগ্ধ তিতিরকে কোল থেকে নামিয়ে লাইটটা বন্ধ করে দিল। কারন লাইট টা চোখে লাগছিল। যদিও আকাশে মেঘ ছিল, পূর্নিমাও ছিল। মেঘের বিচরণ যেন খেলছিল ওদের সাথে। সরে গেলেই জোছনায় ভেসে যাচ্ছিল চারপাশ। আর মেঘে চাঁদ ঢেকে যেতেই আবছা অন্ধকারে লুকোচুরি খেলছিল। তিতির লেকের দিকে তাকিয়ে ছিল। মুগ্ধ লাইট অফ করে তিতিরকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরতেই তিতির বলল,
-“একটা গান শোনাবে?”
মুগ্ধও আগে থেকেই ঠিক করে রেখেছিল গান শোনাবে তাই বিনাবাক্যে শুরু করে দিল,
“মোর প্রিয়া হবে এসো রানী
দেব খোঁপায় তারার ফুল
কর্ণে দোলাবো তৃতীয়া তিথির
চৈতি চাঁদেরও দুল..
খোঁপায় তারার ফুল
মোর প্রিয়া হবে এসো রানী
দেব খোঁপায় তারার ফুল
কন্ঠে তোমার পড়াবো বালিকা
হংস সাড়ির দোলানো মালিকা
বিজরী জরির ফিতায় বাধিব
মেঘরঙ এলোচুল…
দেব খোঁপায় তারার ফুল।
মোর প্রিয়া হবে এসো রানী
দেব খোঁপায় তারার ফুল
জোছনার সাথে চন্দন দিয়ে
মাখাব তোমার গায়ে..
রামধনু হতে লাল রঙ ছানি
আলতা পড়াব পায়ে..
আমার গানের সাত সুর দিয়া
তোমার বাসর রচিবও প্রিয়া
তোমারি হেরিয়া গাহিবে আমার
কবিতার বুলবুল
দেব খোঁপায় তারার ফুল
মোর প্রিয়া হবে এসো রানী
দেব খোঁপায় তারার ফুল।”
গানটা শেষ হতেই তিতির বলল,
-“এটা শুধু একটা গান ছিলনা। তার চেয়েও যেন অনেক বেশি কিছু ছিল।”
মুগ্ধ হেসে বলল,
-“হুম চলো বসি।”
একথা বলেই মুগ্ধ সোফায় গিয়ে বসলো। তিতিরও যাচ্ছিল পেছন পেছন। হাঁটা শুরু করতেই পায়ে বেঝে তিতিরের শাড়ির কুচি খুলে গেল। তিতির কুচিগুলো কুড়িয়ে নিল। মুগ্ধ উঠে এসে হেসে বলল,
-“এসো আমি পড়িয়ে দেই।”
-“না আমি পারব।”
এই বলেই তিতির ঘরে যাচ্ছিল। মুগ্ধ তিতিরের কোমর আঁকড়ে ধরে আটকালো। তারপর বলল,
-“পারলে প্রথমবারই পারতে। একবার পড়িয়ে দেইনা। কি হয়েছে? আমার অনেক ইচ্ছে ছিল আমি আমার বউকে শাড়ি পড়িয়ে দেব তাইতো শিখেছিলাম।”
-“কিন্তু তখন যে বললে..”
-“ওটা তো তোমাকে রাগানোর জন্য বলেছি।”
তিতির দাঁড়ালো। মুগ্ধ দেখলো তিতির শাড়ি উলটো পড়েছে। শাড়িটা ঠিক করে পড়িয়ে তিতিরের সামনে হাটু গেরে বসে যখন কুচি দিচ্ছিল তখন তিতির বলল,
-“ব্লাউজটা একদম ঠিক মাপের হয়েছে। তোমাকে তো আমি কখনো বলিনি তাহলে মাপ জানলে কোত্থেকে?”
-“তোমার মাপ আমি জানবো না তো জানবে কে? তোমার পা থেকে মাথা অবধি কত শতবার চোখ দিয়ে মুখস্থ করেছি জানো?”
তিতির লজ্জা পেল। মাঝে মাঝে মুগ্ধ যে কিসব বলে, মুখে কিছু আটকায় না। এরপর মুগ্ধ বলল,
-“অবশ্য মেয়েদের সবচেয়ে সুন্দর লাগে কিভাবে শাড়ি পড়লে জানো?”
-“কিভাবে?”
-“আগের যুগে ওভাবে পড়তো। এখন যা দিনকাল পড়েছে তাতে অবশ্য ওভাবে শাড়ি পড়া যাবে না আমাদের সমাজে। তবে হাজবেন্ডের জন্য প্রত্যেক মেয়েরই পড়া উচিৎ। পাহাড়ীরা তো এখনো পড়ে।”
-“কিভাবে বলবে তো?”
-“চোখের বালি সিনেমা টা দেখেছো? ইন্ডিয়ান বাংলা সিনেমা।”
-“কোনটা ওইযে প্রসেনজিৎ, ঐশরিয়া আর রাইমা সেনের টা?”
-“চোখের বালি একটাই হয়েছে।”
-“দেখিনি, তবে ট্রেইলর দেখেছি।”
-“ওখানে ঐশরিয়া কিভাবে শাড়ি পড়েছে দেখেছো?”
-“ব্লাউজ ছাড়া? পেঁচিয়ে?”
-“হ্যা, মারাত্মক লাগে… উফ।”
-“ছিঃ”
-“ছিঃ কেন? সবার সামনে পড়ার কথা তো বলছি না।”
তিতিরের এত লজ্জা লাগছিল! মুগ্ধ কিভাবে যে বলে এই কথাগুলো কে জানে! শেষমেশ তিতির বলল,
-“প্লিজ তুমি থামবে?”
-“তুমি কেন এত লজ্জা পাচ্ছো? তোমার জন্য তো ব্লাউজ এনেছিই।”
তিতির আর কথাই বলল না। ওর সাথে এ নিয়ে আরো কথা বললে আরো লজ্জা দেবে। কুচি দেয়া শেষ হতেই মুগ্ধ তিতিরের হাতে দিয়ে বলল,
-“নাও এবার গুঁজে নাও।”
তিতির শাড়ি উলটো গুঁজছিল মুগ্ধ ধরে ফেলল,
-“শাড়ি গুঁজতেও জানোনা? কি শেখালো তোমার শ্বাশুড়ি মা তোমাকে?”
তিতির কিছু বলল না, হাসছিল। মুগ্ধ কুচিগুলো ঠিক করে ধরে গুঁজে দিল। এই কাজ করতে গিয়ে তিতিরের নাভিতে চোখ চলে গেল, তারপর ঠোঁটও অটোমেটিক্যালি চলে গেল। নাভির ডানপাশে চুমু দিল মুগ্ধ। তিতির শিউরে উঠলো। দুহাত দিয়ে ওর চুল খামচে ধরে সরিয়ে দিতে চাইলো। মুগ্ধ সরলো না। আশেপাশে আরো কয়েকটা চুমু দিল। মুগ্ধর ঠোঁটের প্রতিটা স্পর্শে তিতির কেঁপে কেঁপে উঠছিল, আর সরে সরে যাচ্ছিল। তিতিরের পিছনেই ছিল ঘরের দেয়াল। কাঁপতে কাঁপতে আর সরতে সরতে ও দেয়াল পর্যন্ত চলে গেল। পেছনে হাত দিয়ে দেয়াল ধরে দাঁড়িয়ে ব্যালেন্স রাখছিল। মুগ্ধ উঠে দাঁড়ালো। তিতিরকে দেয়ালে ঠেকিয়ে দুহাতে ওর মুখটা তুলে ধরলো। তারপর নিচু হয়ে তিতিরের চোখে চোখে রাখলো। একজনের নিশ্বাস আরেকজনের নিশ্বাসের সাথে ধাক্কা খেয়ে লুটিয়ে পড়ছিল। তিতির তাকিয়েই ছিল। মুগ্ধ ফিসফিস করে জিজ্ঞেস করলো,
-“আজ নিশ্চয়ই তোমার কোনো আপত্তি নেই?”
মুগ্ধর কন্ঠটা ভারী শোনালো। তিতির বলল,
-“কিন্তু একটা কথা বলার ছিল যে!”
তিতিরেরও গলা কাঁপছিল। মুগ্ধ বলল,
-“বলো।”
তিতির মুগ্ধর চোখে চোখ রেখেই বলল
-“আই লাভ ইউ।”
মুগ্ধ হাসলো। তিতিরও মাথা নিচু করে সামান্য হাসলো। মুগ্ধ একটা হাত তিতিরের কোমরে রাখলো। আরেকটা হাতে ওর কানের নিচ দিয়ে চুলের ভেতর দিয়ে ওর মুখটা তুলে ধরলো। তিতির তাকালো। মুগ্ধ এগিয়ে যেতেই তিতির চোখ বন্ধ করে ফেললো। তারপর মুগ্ধ তিতিরের ঠোঁটে ঠোঁট রাখলো। তিতিরের দেয়ালে রাখা হাত দুটো একসময় মুগ্ধর কোমর পার করে পিঠে উঠে গেল। কিছুক্ষণের মধ্যেই মুগ্ধ টের পেল তিতিরের চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। কিন্তু কেন? মেয়েরা অতি সুখে চোখের জল ফেলে বটে কিন্তু তাই বলে এরকম সময়ে! কই ওর এক্স গার্লফ্রেন্ডদের বেলায় তো এমনটা হয়নি! ধুর এসব কথা ভাবার সময় নেই। তিতিরকে এখন ও স্বর্গে নিয়ে যাবে।
তিতিরের কাঠের ফ্লোরে রাখা পায়ের গোড়ালি দুটোও উঁচু হয়ে উড়ে যেতে চাইছিল। ওড়াবার জন্য মুগ্ধ তো আছেই।
To be continued..
Tagged : / /